রবিবার ৩ মার্চ ২০২৪ ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিরলে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুল্লাহের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের আদেশকে অমান্যের অভিযোগ

আতিউর রহমান, বিরল (দিনাজপুর) : বিরল উপজেলার কামদেবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক থাকার পরও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সহকারী শিক্ষক (শরীরচর্চা) আব্দুল্লাহকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দ্বায়িত্ব দেয়ার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রীট পিটিশন দায়ের হয়েছে৷ রীট পিটিশনের শুনানী অন্তে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুল্লাহ’র সকল প্রকার কার্যক্রম ৬ মারে জন্য স্থগিতাদেশ দিয়েছে বিজ্ঞ বিচারক৷ তদুপরী হাইকোর্টের আদেশকে তোয়ক্কা না করে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুল্লাহ এখনো বহাল তবিয়তে রয়েছে কোন খুঁটির জোড়ে প্রশ্ন সবার মুখে মুখে?

 

ঘটনার বিবরনে প্রকাশ, কামদেবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইয়াছিন আলী অবসর গ্রহনের পুর্বে তত্কালীন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি ২৪/৯/২০১৩ ইং তারিখের সভায় রেজুলেশনের মাধ্যমে সহকারী প্রধান শিক্ষক মোঃ সেলিমকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দ্বায়িত্ব প্রদানের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়৷ কমিটির সিদ্ধান্ত মতে প্রধান শিক্ষক ইয়াছিন আলী ২৬.০৯.২০১৩ ইং তারিখে সহকারী প্রধান শিক্ষক মোঃ সেলিমকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দ্বায়িত্বভার অর্পন করে ২৮.০৯.২০১৩ ইং তারিখে অবসর গ্রহণ করেন৷

ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ সেলিম শারীরিক অসুস্থতার কারণে ২৫.১১.২০১৪ ইং তারিখ হতে ০৫.১২.২০১৪ পর্যন্ত বিদ্যালয় পরিচালনার জন্য সহকারী শিক্ষক (শরীরচর্চা) আব্দুল্লাহ’র নিকট দ্বায়িত্ব অপর্ন ক েছুটি গ্রহণ করে৷ পরের দিন ২৬.১১.২০১৪ ইং তারিখে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জুলফিকার আলী শাহ সকল শিক্ষককে তাঁর কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে বিভিন্ন রকম ভয়ভীতি দেখিয়ে অবৈধভাবে একটি রেজুলেশন করে সহকারী শিক্ষক (শরীরচর্চা) আব্দুল্লাহ কে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দ্বায়িত্ব অর্পন করেন৷ যার কোন বৈধতা মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের কোন প্রজ্ঞাপনে খুঁেজ পাওয়া যায়নি৷

 

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জুলফিকার আলী শাহ’র সা েhোগোযোগ করা হলে তিনি বলেন, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ সেলিম ১০ দিনের জন্য সহকারী শিক্ষক (শরীরচর্চা) আব্দুল্লাহকে দ্বায়িত্ব অর্পন করেছিল৷ শিক্ষকেরা আমার কাছে পরামর্শ করতে আসায় আমি “বৈধ হউক আর অবৈধ হউক” আব্দুল্লাহকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দ্বায়িত্ব দিয়েছি৷ ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ সেলিম দ্বায়িত্ব না পেয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করে দ্বায়িত্ব না পেয়ে হাইকোর্টে ২২৮৯/২০১৫ নং একটি রীট পিটিশন আনয়ন করেন৷ গত ১০.০৩. ২০১৫ ইং তারিখে উক্ত রীট পিটিশনের শুনানী অন্তে বিচারপতি মোঃ কাজী রেজা-উল হক ও আবু তাহের মোহাম্মদ সাইফুর রহমান বিবাদীদের প্রতি রুল ইস্যু করেন এবং আরও আদেশ প্রদান করেন যে, ২৬.১১.২০১৪ ইং তারিখের উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কতৃক সৃষ্টিকৃত রেজুলেশনের মাধ্যমে আব্দুল্লাহকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দ্বায়িত্ব প্রদান করিয়া ছিলেন উক্ত রেজুলেশনের কার্য্যক্রম ৬ মাসের জন্য স্থগিতাদেশ এর আদেশ প্রদান করেছেন৷ এছাড়াও ২৬.১১.২০১৪ ইং তারিখের রেজুলেশনের কার্য্যকারিতা ৬ মাসের জন্য স্থগিত করায় আব্দুল্লাহ আইনতঃ ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে ১০.০৩.২০১৫ ইং তারিখের পর হতে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে আর কোন মিটিং ও বিদ্যালয় পরিচালনার কাজ করিতে পারেন না বলে আদেশে উল্লেখ রয়েছে৷ তার পরও আইনকে তোয়াক্কা না করে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জুলফিকার আলী শাহ এর ইন্ধনে সহকারী শিক্ষক (শরীরচর্চা) আব্দুল্লাহ ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক পদে এখনো বহাল তবিয়তে রয়েছে এবং বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছে৷ এলাকার অভিভাবকসহ সচেতন মহলে প্রশ্ন উঠেছে, শিক্ষক আব্দুল্লাহ এখনো বহাল তবিয়তে রয়েছে কোন খুঁটির জোড়ে?

Spread the love