রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিরলে লিচুর মুকলের সমারোহ, হাজার হাজার লোকের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি

আতিউর রহমান, বিরল (দিনাজপুর) : দিনাজপুরের বিরল উপজেলার লিচু গাছে এখন মুকুলের সমারোহ ঘটেছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে আশাতীত ফলন হওয়ার সম্ভাবনা প্রকাশ করছেন সংশ্লিষ্টরা। অপরদিকে, এ অঞ্চলে লিচু চাষাবাদ বাণিজ্যিক ভাবে হতে থাকায় হাজার হাজার লোকের কর্মসংস্থানের সৃষ্টিও হয়েছে। সবমিলে এখন লিচুর বাম্পার ফলনের আশায় চলছে নিবীর পরিচর্যা।

জানা গেছে, জেলার ১৩টি উপজেলার মধ্যে বিরল উপজেলা লিচু রাজ্য হিসেবে পরিচিত। অন্য সকল জেলায় উৎপাদিত লিচুর চেয়ে এখানকার উৎপাদিত লিচু স্বাদে ও গুণগত মানে অনন্য। তাই রাজধানী ঢাকা সহ সারা দেশে নিজ গুনে ও মানে বিরলের লিচুর রয়েছে ব্যাপক পরিচিতি। উপজেলার ১টি পৌরসভা ও ১১টি ইউনিয়নের মাটি এবং জলবায়ু লিচু উৎপাদনে উপযোগী হওয়ায় লিচু চাষে রীতিমত বিপ্লব ঘটিয়েছে এ অঞ্চলের চাষীরা। লিচু উৎপাদনের মাধ্যমে একদিকে তারা পতিত জমির সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করেছে, অন্যদিকে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হয়েছে।

কৃষি অধিদপ্তর জানিয়েছে, ইতিমধ্যে উপজেলার প্রায় আড়াই ২ হাজার একর জমিতে ছোট বড় প্রায় দুই সহ¯্রাধিক লিচুর বাগান গড়ে উঠেছে। উপজেলার মাটি ও জলবায়ু লিচু চাষের উপযোগী হওয়ায়, লিচু উৎপাদন বিরলের বাগান মালিকদের ভাগ্যের পরিবর্তন এনেছে। এখানে উৎপাদিত লিচুর মধ্যে উল্লেখযোগ্য জাত হলো মাদ্রাজী, বোম্বে, বেদানা, চায়না থ্রি এবং কাঁঠালী। ফাল্গুন মাসে লিচু বাগানে ফুল আসতে শুরু করে। ফুল আসার ১৫ দিন আগে এবং ফুল আসার ১৫ দিন পরে সেচ দিতে হয়। এভাবে প্রয়োজন মত সেচ আর পর্যাপ্ত পরিচর্যা করতে হয় লিচু বাগানে। এরপর ফুলে পর্যাপ্ত ভিটামিন ও বালাই নাশক নিয়মিত স্প্রে করতে হয়। ফল আসার পর পরিচর্যার পাশাপাশি বাদুড়, নানা রকমের পাখি ও পোকা মাকড় থেকে ফল রক্ষা পেতে নিবীড় ভাবে পরিচর্যা করতে হয়। এর পাশাপাশি বাগানে সার্বক্ষণিক পাহারাদার রাখতে হয়। রাতের বেলা বাগানগুলোতে প্রয়োজনীয় আলো সরবারাহ আর বাদুড় তাড়াতে নানা রকমের শব্দ যন্ত্র ব্যবহার করতে হয়। এরপর কাঙ্খিত ফল বাজারে তোলা সম্ভব হয়। এসকল কাজ করতে হাজার হাজার শ্রমিকের প্রয়োজন হওয়ায় অনেকের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়।

Spread the love