বুধবার ৪ অগাস্ট ২০২১ ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিরলে সতীন ও স্বামীর পরিবারের লোকজনের মারপিটে গৃহবধূ সন্তানসহ আতহ-৬

আতিউর রহমান, বিরল (দিনাজপুর)॥ বিরলে সতীন ও স্বামীর পরিবারের লোকজনের মারপিটে গৃহবধূ ও তাঁর সন্তানসহ আতহ হয়েছে ০৬ জন। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
আহতরা জানান, উপজেলার পলাশবাড়ী ইউপি’র ধূলাতৈড় (মহপুকুর) গ্রামের বাবুল হোসেন প্রায় ০৬ মাস পূর্বে ১ম স্ত্রীর অসম্মতিতে ২য় বিয়ে করলে ১ম স্ত্রী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে থানা পুলিশ বাবুলকে আটক করলে তাঁর পরিবারের লোকজন স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ ১ম স্ত্রীর সাথে ঘরসংসার ও ২য় স্ত্রীকে তালাক দেয়ার শর্তে আপোষ মিমাংসায় বাবুল ছাড়া পায় এবং পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা স্থগিত হয়ে যায়। বাবুল হোসেন ছাড়া পেয়ে শালিস মিমাংসাকে তোয়াক্কা না করে আবারও ২য় স্ত্রীকে নিয়ে বাড়ী ছেড়ে উধাও হয়। উপায় না পেয়ে পিত্রালয় থেকে অর্থ এনে ১ম স্ত্রী স্বামীর ভিটেমাটি ক্রয় করে সন্তানদের নিয়ে কোনমতে বসবাস করতে থাকেন। এরপর গত ০৬ দিন পূর্বে হঠাৎ করে বাবুল হোসেন ২য় স্ত্রীকে নিয়ে বাসায় এসে চাচা, চাচাতো ভাই ও বোনদের সাথে নিয়ে ১ম স্ত্রী ও তাঁর সন্তানদের বাড়ী থেকে বের করে দেয়। উপায় না পেয়ে ১ম স্ত্রী আবারো থানায় অভিযোগ দায়ের করে। থানা পুলিশ অভিযোগের তদন্ত করতে গিয়ে শুক্রবার বাবুল হোসেনকে আটক করলে এসময় তাঁর নিকট হতে মাদক উদ্ধার হলে বিষয়টি ভ্রাম্যমাণ আদালতে সোপর্দ করে। ভ্রাম্যমাণ আদালতে বাবুল হোসেন এর দন্ড হলে শনিবার ক্ষিপ্ত হয়ে চাচা হামিদুর রহমান, চাচাতো ভাই জাহাঙ্গীর আলম, শাহিন আলম, আপেল, রুহুল আমিন ও তাঁর স্ত্রী এবং বাবুল হোসেন এর বোনদের হামলায় ১ম স্ত্রী সুরাইয়া বেগম, মেয়ে আম্বিয়া সুলতানা, ছেলে সুমন, ইছা আলী, মুছা আলী ও সুরভী গুরুতর আহত হয়। মারপিট দেখে স্থানীয়রা পুলিশকে সংবাদ দিলে পুলিশ এর উপস্থিতি দেখে সকলে পালিয়ে যায়। আহতদের উদ্ধার করে বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে (হাসপাতালে) চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে স্ত্রী সুরাইয়া বেগম ও মেয়ে আম্বিয়া সুলতানার অবস্থা শংকাজনক হওয়ায় তাঁদেরকে ভর্তি রাখা হয়েছে ও অন্যান্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। রবিবার সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখাকালীন আহতদের চিকিৎসাকাজে ব্যস্ত থাকায় বিলম্বে থানায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছিল বলে জানান আহত ছেলে সুমন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email