রবিবার ২ অক্টোবর ২০২২ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিরলে ২ শহীদ মুক্তিযোদ্ধার স্মৃতি রক্ষার্থে স্মৃতিস্তম্ভের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন

Khalid Vaiমহান স্বাধীনতার ৪৩ বছর পর দিনাজপুরের বিরল উপজেলার পশ্চিম রাজারামপুর গ্রামে দুই জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধার স্মৃতি রক্ষার্থে ‘শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি স্তম্ভ’-এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি।
শুক্রবার বিকেলে তিনি রাজারামপুর গ্রামে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা তমিজউদ্দীন আহমেদ এবং শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আজিমউদ্দীন আহমেদ স্মরনে এই স্মৃতি স্তম্ভের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করা হয়।
বিরল উপজেলার ১নং আজিমপুর ইউনিয়নের পশ্চিম রাজারামপুর গ্রামের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা তমিজউদ্দীন আহমেদের পুত্র আলহাজ্ব রুস্তম আলী জানান, তার পিতা তমিজউদ্দীন আহমেদ এবং সদর উপজেলার মাসিমপুর গ্রামের আজিমউদ্দীন আহমেদ ছিলো ঘনিষ্ট বন্ধু। ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ডাক দেয়ার সাথে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন এই দুই বন্ধু। তাদের নিয়ন্ত্রনে ছিলো বিরল উপজেলার ওই এলাকা।
দীর্ঘ ৯ মাসের যুদ্ধ শেষে ১৪ ডিসেম্বর পাক-হানাদার মুক্ত হয় বিরল উপজেলা। এর একদিন আগে ১৩ ডিসেম্বর পাক-হানাদার বাহিনীরা তাদের দোসর রাজাকারদের সহায়তায় পশ্চিম রাজারামপুর গ্রাম থেকে প্রথমে আজিমউদ্দীনকে এবং পরে তমিজউদ্দীনকে আটক করে। পাক-হানাদার বাহিনী এই দুই মুক্তিযোদ্ধাকে ধরে নিয়ে যায় পাশ্ববর্তী পুনর্ভবা নদীর তীরে। বিকেলে জনসম্মুখে তাদের ব্রাশ ফায়ার করে হত্যা করে পালিয়ে যায়। এরপর রাতে স্থানীয় এবং মুক্তিযোদ্ধারা শহীদ এই দুই মুক্তিযোদ্ধার লাশ উদ্ধার করে পশ্চিম রাজারামপুর গ্রামেই তাদের দাফন করে।
শহীদ মুক্তিযোদ্ধা তমিজউদ্দীন আহমেদের নাতি রফিকুল ইসলাম জানান, স্বাধীনতার ৪৩ বছর পর হলেও তাদের স্মৃতি রক্ষার্থে স্মৃতি স্তম্ভ নির্মানের উদ্যোগ নেয়ায় তাদের পরিবার কিছুটা হলেও স্বস্তি পাচ্ছে।
এদিকে শহীদ স্মৃতি স্তম্ভের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন শেষে দিনাজপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, স্বাধীনতার ৪৩ বছরেও পাক-হানাদার বাহিনীর দোসর জামায়াত-শিবির এখনও সক্রিয়। এখনও তারা দেশে বিভিন্ন নাশকতামূলক কর্মকান্ড চালিয়ে দেশের স্বাধীনতা-স্বার্বভৌম নষ্টের চেষ্ঠা চালাচ্ছে। তিনি বলেন, ইতিমধ্যেই জামায়াত-শিবির একটি সন্ত্রাসী দল হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। আর যার কারনেই অচিরেই জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা হবে বলে জানান তিনি। সাংসদ খালিদ মাহমুদ চৌধুরী জামায়াত-শিবিরের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান।
শহীদ স্মৃতি স্তম্ভের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, বিরল উপজেলার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম, বিরল উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ইছাহাক আলী সরকার, বিশিষ্ঠ মুক্তিযোদ্ধা শাহাদত হোসেন ও দবিরুল ইসলাম এবং আনসারুল ইসলামসহ শহীদ মুক্তিযোদ্ধা তমিজউদ্দীনের পরিবারের সদস্যরা।
ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন শেষে শহীদদে মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা তমিজউদ্দীন আহমেদ-এর পুত্র আলহাজ্ব রুস্তম আলী।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email