রবিবার ১৪ এপ্রিল ২০২৪ ১লা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিরল পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী নুরুজ্জামানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত অভিযোগের তদন্ত শুরু

আতিউর রহমান, ষ্টাফ রিপোর্টার, বিরল : দিনাজপুরের বিরল পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী নুরুজ্জামানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত অভিযোগের তদন্ত শুরু হয়েছে।

 

রোববার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে অভিযোগকারী ও অভিযুক্ত সহকারী প্রকৌশলী নুরুজ্জামানের লিখিত জবানবন্দি গ্রহণ করেছেন পৌর প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল খায়রুম।

 

বিরল উপজেলার সদর ইউপি’র মোখলেশপুর (জয়হার) গ্রামের লুৎফর রহমানের পুত্র আলিমুল ইসলাম লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, বিরল পৌরসভা ঘোষনার পুর্বে তিনি বিরল বাজারে একটি ভবন নির্মান কাজ শুরু করে দোতলার ছাদ ঢালাই পর্যন্ত কাজ করেছেন।

 

উক্ত ভবনের নকশা অনুমোদনের জন্য পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী নুরুজ্জামানের কাছে গেলে তিনি প্রথমে ৫০ হাজার টাকা ও পরে ৩৫ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন। ভবনের মালিক আলিমুল ইসলাম সহকারী প্রকৌশলী নুরুজ্জামানকে ঘুষ না দিয়ে তিনি নকশা অনুমোদনের জন্য পৌর প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল খায়রুমের নিকট ২ ডিসেম্বর আবেদন করেন।

 

পরে সহকারী প্রকৌশলী নুরুজ্জামান ৫০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করাসহ তার বিভিন্ন রকম অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে আলিমুল ইসলাম পৌর প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল খায়রুমের নিকট ১৪ ডিসেম্বর একটি অভিযোগ দাখিল করে।

 

উক্ত অভিযোগের ঘটনা প্রকাশ হওয়ায় সহকারী প্রকৌশলী নুরুজ্জামানের বিভিন্ন রকম অনিয়ম, দুর্নীতি এবং নকশা অনুমোদনের নামে ঘুষ নেয়ার তথ্য বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে। ইতিমধ্যে যে সব ভবনের নকশা অনুমোদন করেছেন প্রতিটি নকশা অনুমোদনের সময় তিনি হাতিয়ে নিয়েছেন হাজার হাজার টাকা বলে ভুক্তভোগিরা জানায়। সহকারী প্রকৌশলী নুরুজ্জামানের চাহিদা পুরন করতে পারলে নকশা অনুমোদনের কোন জটিলতার সৃষ্টি হয় না। চাহিদা পুরনে ব্যর্থ বা ঘুষ দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে বিভিন্ন জটিলতার স্বীকার হতে হয় নকশা অনুমোদনের জন্য আসা ভবন মালিকদের। সহকারী প্রকৌশলী নুরুজ্জামান যে সব ভবনের নকশা ইতিমধ্যে অনুমোদন করেছেন সে সব ফাইল যাচাই-বাছাই করা হলে সহকারী প্রকৌশলী নুরুজ্জামানের অনিয়ম ও দুর্নীতির চিত্র পরিষ্কার হবে বলে সচেতন মহল মনে করছেন। এ ব্যাপারে পৌর প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল খায়রুমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তদন্ত শুরু হলো। যাচাই-বাছাই অন্তে দোষী ব্যাক্তির বিরম্নদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষেই ব্যবস্থা নেয়া হবে। ভুক্তভোগিরা পৌর প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল খায়রুমের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করে ঘুষখোর দুর্নীতিবাজ সহকারী প্রকৌশলী নুরুজ্জামানের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন।

Spread the love