মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিরামপুরের ভুট্টার বাম্পার ফলনের আশাবাদী চাষিরা

Birampurপোল্ট্রি ও গো-খাবারের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় বিরামপুরে দিন দিন বেড়েই চলেছে ভুট্টার কদর। আর অন্য ফসলের চেয়ে অধিক লাভজনক হওয়ায় বিরামপুরের চাষিরা ঝুঁকে পড়েছেন ভুট্টা চাষে। নির্ধারিত দাম না থাকায় প্রতি বছরই চাষিরা বড় অংকের মুনাফা হারাচ্ছেন। তাদের লাভের একটি বড় অংশ চলে যাচ্ছে পুঁজিপতিদের হাতে। ফসল উত্তোলনের আগে দাম নির্ধারণের দাবি জানিয়েছেন ভুট্টা চাষিরা।
দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলায় বিভিন্ন গ্রামের মাঠ ঘুরে দেখা গেছে মাঠে মাঠে ভুট্টা চাষের সমারোহ। এক সময় যেখানে শুধু ধান চাষ হতো এখন সেখানে ভুট্টা চাষের দেখা মিলছে। ভাল ফলন, ফসলের চাহিদা এবং ভুট্টা গাছ থেকে জ্বালানীর চাহিদা পুরণ হওয়ায় বিরামপুরের চাষিরা এখন বেছে নিয়েছেন ভুট্টা আবাদ।
উপজেলা কৃষি অফিসার শাহ্ আলম এর তথ্যমতে, এবারে রবি ৩ শত ৭০ হেক্টর খড়ি ৪৫হেক্টর জমিতে ভুট্টা আবাদ হয়েছে। যা ল্যমাত্রার চেয়ে প্রায় দ্বিগুন। গেল বছর আবাদ হয়েছিল ২ শত ৬০ হেক্টর জমিতে। মাঠে হাইব্রিড জাতের ৯০০ গোল্ড ও উত্তোরণ ভুট্টার আবাদ বেশি। হেক্টর প্রতি ফলন নির্ধারণ করা হয়েছে ৯ মেট্রিক টন। সে হিসেবে ৩৮ হাজার ২৫ মেট্রিক টন ভুট্টা উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে।
বিরামপুর উপজেলার কেসবপুর গ্রামের চাষি মাহাফুজ মাস্টার জানিয়েছেন, গত বছর ভুট্টার দাম নিয়ে চাষিরা বিপাকে পড়েছিলেন। মৌসূমের শুরুতে যা দাম ছিল তাতে কৃষকের খরচই বাঁচেনি। যখন দাম বাড়ে তখন চাষিদের ঘরে ভুট্টা ছিল না। তাই এবারের মৌসুমের শুরুতেই দাম যদি ভাল পাওয়া যায় তাহলে লাভ পাওয়া যাবে। কেননা গত কয়েক বছরের চেয়ে এবার ভাল ফলন আশা করছেন চাষিরা।
একেবারেই অল্প খরচ অর্থাৎ ৪ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা বিঘা প্রতি খরচ করে ফলন পাওয়া যায় ৪০-৫০ মণ। এটি ছয় মাসের ফসল (কার্তিক-চৈত্র)। একই সময় ধান আবাদ করে ভুট্টার সমপরিমাণ লাভ মেলেনা বিধায় অনেক চাষিই এখন ভুট্টা আবাদ করছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email