শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিরামপুরে প্রত্যন্ত অঞ্চলে বাল্যবিয়ে বেড়েই চলছে

মোঃ মাহাবুর রহমান,

বিরামপুর(দিনাজপুর)সংবাদদাতাঃ

দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে দিন দিন বাড়ছে বাল্যবিয়ে। অনুসন্ধানে দেখা গেছে, সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের সহযোগিতার কারণে রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না অধিকাংশ বাল্যবিয়ে। প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো প্রামে বাল্যবিয়ে সংঘটিত হচ্ছে।

নারী অধিকার সংরক্ষণ, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ, নারীর ক্ষমতায়ন ইত্যাদি ক্ষেত্রে বহু নারী সংগঠন কাজ করলেও বিরামপুর উপজেলার নারী নির্যাতন, বাল্যবিয়ে এবং যৌতুক বন্ধ হচ্ছে না। সরকারি তথ্যে বাল্যবিয়ে অনেকাংশে কমে যাওয়ার দাবি করা হলেও বিরামপুর এর বিপরীত চিত্র লক্ষ্য করা যায়।

সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী বিয়ের ক্ষেত্রে মেয়ের ১৮ এবং ছেলের ২১ বছর বয়স বিবেচনায় নিতে হয়। কিন্তু মেয়েদের ১৩ থেকে ১৪ আর ছেলেদের ১৬ বছর বয়স হলেই অভিভাবকরা বিয়ে দিচ্ছেন। কোন কোন ক্ষেত্রে আরো কম বয়সে ছেলে-মেয়েদের বিয়ে হচ্ছে।

অভাব-অনটন, ইভটিজিং এবং অজ্ঞতার কারণে অভিভাবকেরা সমত্মানদের বাল্য বয়সেই জোর করে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে বাধ্য করছে।

উপজেলার কাটলা ইউনিয়নে দাউদপুর গ্রামের নুরম্নল ইসলাম এর ১২ বছরের মেয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী আকতারা বানু কে বিয়ে দিয়েছেন গত বছর। স্বামীর সংসার বুঝতে না পারায় তাকে নির্যাতিত হয়ে বাবার বাড়িতে ফিরে আসতে হয়েছে।

এ ধরনের নজির রয়েছে অনেক। বিশেষ করে উপজেলার কাটলা ইউনিয়নে বাল্যবিবাহের প্রবণতা ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

আর বাল্যবিয়ের প্রবণতা বেশি হওয়ায় উপজেলায় পারিবারিক পর্যায়ে নারী নির্যাতনও ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। এ কারণে নারী নির্যাতন এবং যৌতুক নিয়ে মামলা করার প্রবণতাও বহুলাংশে বৃদ্ধি পাচ্ছে।

ভগবতিপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোঃ আব্দুল মমিন জানান, প্রাথমিক শিক্ষাস্তর অতিক্রম করে মাধ্যমিক সত্মরে পা রাখার পরেই মেয়ে শিশুরা ঝরে পড়ছে। এসএসসি পরীক্ষার আগেই ৫০ শতাংশ ছাত্রীর বিয়ে হয়ে যাচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে ছেলে ও মেয়েপক্ষ জেনেও না জানার ভান করে আইন ভঙ্গ করছে।

ভোট প্রাপ্তির আশায় ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বাররা ভুয়া জন্মসনদ প্রদান করেন যা বাল্যবিয়েকে আইনগতভাবে বৈধ করে দেয়। স্কুলে ভর্তির তারিখ ও জন্ম নিবন্ধন সনদ যাচাই করলে প্রতারণার বিষয়টি ধরা পড়ে।

বিয়ের আসরে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, বাল্যবিয়ের ক্ষেত্রে কাজীরা ভুয়া জন্মসনদ অনুসরণ করেন। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কর্মকর্তারা সে কারণে প্রায়ই কোনো ব্যবস্থা নিতে পারেন না।

বিরামপুর ডেবলভ দ্যা ভিলেজ (ডিভি) নির্বাহী পরিচালক মোরশেদ মানিক জানান, বাল্যবিয়ে রোধ করতে পারেন একমাত্র কাজীরাই। কেননা তাদের মাধ্যম ছাড়া কোনো বিয়ে হয় না। সে কারণে কাজীদের ওপর সরকারি নজরদারি থাকলে বাল্যবিয়ে অনেকটাই কমে যাবে।

 

স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, বাল্যবিয়ের প্রবণতা বৃদ্ধির কারণে উপজেলার পল্লী অঞ্চলে মা ও শিশুদের অপুষ্টি, রক্তস্বল্পতা, আয়োডিন ঘাটতিসহ নানা রোগব্যাধি বাড়ছে। প্রামিত্মক জনগোষ্ঠী অর্থাভাবে মা ও শিশুদের সঠিক চিকিৎসা সহায়তা প্রদান করতে পারছে না বলে প্রসবজনিত মা ও শিশুমৃত্যু এবং মেয়ের গড় আয়ুও হৃাস পাচ্ছে।

বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম মনিরুজ্জামান আল-মাসউদ বলেন, বাল্যবিয়ে রোধ করার বিষয়টি প্রশাসনের কঠোর নজদারিতে রয়েছে। ফলে কোনো স্থানে বাল্যবিয়ের সংবাদ পেলে প্রশাসন আইনগত ব্যবস্থা নেয় এবং নেবে। তবে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের প্রদান করা ভূয়া জন্ম সনদপত্র ও অসহযোগিতার কারণে রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না অধিকাংশ বাল্যবিয়ে । তাই প্রশাসনের পাশা পাশি সমাজের সকলস্তরের মানুষকে সচেতন হওয়ার আহবান জানান।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email