মঙ্গলবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৩ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিরামপুরে বাজার ফসলি জমি হুমকির মুখে

দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলার যমুনা শাখা নদীতে নীতিমালা উপেক্ষাকরে দীর্ঘ দিনধরে একটি স্বার্থনেশী মহল বালু উত্তোলনের ফলে উপজেলার ঐতিহ্যবাহী কাটলাবাজার ,বিজ্র,বিজিবি ক্যাম্প ও আবাদী জমি এবং কয়েকটি গ্রাম হুমকির মুখ। বালুউত্তোলন ও বন্ধের জন্য এলাকার মানুষ গণ স্বাক্ষর করে জেলা প্রশাসক সহ সরকারী বিভিন্ন মহলে আবেদন করেছেন।

অভিযোগ সুত্রে জানাযায়, উপজেলার কাটলা ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর, দামোদর পুর ও চৌঘুরীয়া  গ্রামের আড়াই শতাধিক পরিবার তিনটি গ্রামের কয়েক শ’একইর আবাদী জমি, কাটলাবাজার ও ৪০ বিজিবির অর্মতভূক্ত ঘাসুড়িয়া বিওপি নদী ভাঙ্গনের ধংসের হাত থেকে রক্ষার জন্য বালু উত্তোলনকারী হাকিমপুর উপজেলার নয়ানগর গ্রামের আশরাফ আলীর ছেলে মিজানুর রহমান কে নীতিমালা অপেক্ষা করে  বালু উত্তলোন বন্ধের জন্য দাবি জানান।

৬নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য যুদ্ধহত মুক্তিযোদ্ধা দেলোয়ার হোসেন (দিলু) জানান, এলাকা বাসির সকল দাবি উপেক্ষাকরে মিজানুর বালুউত্তোলন অব্যাহত রাখলে এলাকাবাসি গনস্বাক্ষর সম্বলিত অভিযোগ ৩০ মার্চ দিনাজপুর জেলা প্রশাসক,সংসদ সদস্য, বিরামপুর উপজেলা নির্বাহি অফিসার ও উপজেলা চেয়ারম্যান সহ বিভিন্ন প্রশাসন দপ্তরে লিখিত  ভাবে অভিযোগ করেছেন।

সরেজমিনে জানাযায়, কাটলাবাজার সংলগ্ন ব্রীজ এর দুই পাশ্বে ১০০ গজের মধ্যে এবং সরকারী স্থাপনা ঘাসুড়িয়া বিজিবি ক্যাম্প এর ৬০ গজের মধ্যে ফসলী জমিসংলগ্ন স্থানে  ইঞ্জিন চালিত মেশিন দ্বারা ২৫ থেকে ৩০ ফিট গভীর গর্তকরেবালু ব্যবস্থায়ি মিজানুর রহমান বালু উত্তোলন করছেন।

এ বিষয়ে বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস,এম মনিরুজ্জামান আল-মাসউদ বলেন,অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে বালুউত্তোলন কারীর লীজ বাতিলের জন্য জেলা প্রশাসক মহোদয়ের বরাবরে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

এ সংবাদ লিখা পর্যন্ত অভিযোগের প্রেক্ষিতে উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার গত ০২ এপ্রিল কাটলা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের তহসিলদার তাহসিনকে সঙ্গে নিয়ে ঘনাস্থলে তদন্ত করছিলেন।

সচেতন মহল মনে করেন, অপরিকল্পিত ভাবে বালু উত্তোলনের ফলে স্বার্থনেশী বালু ব্যবসায়ী লাভবান হলেও অচিরেই ২০ লক্ষাধিক টাকার রাজস্ব আয়ের উৎস কাটলাবাজার,৮২লক্ষ টাকায় নির্মিত ব্রীজ,কয়েক শ’একইর ফসলি জমি,কয়েকটি গ্রাম ও সরকারী বিজিবি ক্যাম্প নদীগর্ভে বিলিন হয়ে জাওয়ার আসংখ্যা রয়েছে।

এলাকাবাসি দাবী সরে জমিনে তদন্ত সাপেক্ষে সরকারী সম্পদ,এলাকা বাসির ফসলি জমি ও জনবসতি গ্রাম রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করতে সরকারী সর্বমহলের সদয় দৃষ্টি কামনা করেছেন।