বুধবার ১৮ মে ২০২২ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিরামপুরে ভূমি অফিসের কর্মকর্তাদের অবহেলায় একটি পরিবার জিম্মি!

দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ

দিনাজপুরের বিরামপুরে ভূমি অফিসের কর্মকর্তাদের যোগসাজসে দীর্ঘদিন ধরে জিম্মি দশায় জীবন যাপন করছে মর্মে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শহিদুল ও তার স্ত্রী সখিনা বেগম জানান, উপজেলার  কাটলা ইউনিয়নের হরিহরপুর মৌজার ৮২৫ নং দাগের ০৫ ও ৮২৬ দাগে ৩২ শতকের মধ্যে সাড়ে ৮ শতাংশসহ সর্বমোট দুইদাগে সাড়ে ১৩ শতক জমি ২৯-০৭-১৯৯৩ইং, ও ১২-০৮-১৯৮৯ইং সালে সখিনা বেগম রিফাজ উদ্দীনের ছেলে এমদাদুল হক চৌধুরির নিকট থেকে ক্রয়সূত্রে মালিক। কিন্তু পার্শ্ববর্তি কাটলা মৌজার মৃত: রইচ উদ্দিনের ছেলে রফিকুল ইসলাম(রফিক) ৩০-৯-১৯৯৮ইং সালে অভিরামপুর গ্রামের মৃত:মহির উদ্দিন ওরফে টরার ছেলে সেটেলমেন্ট ও ভূমি অফিসের দালাল তফিজ উদ্দিনের পরামর্শে খারিজ সম্পাদন করে নিজের বলে দাবি করে আসছে। উক্ত রফিক প্রভাব খাটিয়ে শহিদুলের দখলিয় জমির বাঁশ কর্তন, দরজায় বেড়া প্রদান ও তার ল্যাট্রিনের স­াপ ভাংচুর করে টিউবয়েলের পানি নিষ্কাশন বন্ধ করে দেয়। এ বিষয়ে বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ রোখছানা বেগম বরাবরে সখিনা বেগম বাদী হয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। বিষয়টি তদন্ত পূর্বক মিমাংসার জন্য ২নং কাটলা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এম সামসুল আলমকে  নির্দেশ দেন ।

এ বিষয়ে চেয়ারম্যান এম সামসুল আলম জানান,আমি  তদন্ত পূর্বক ২৯-০৮-২০১২ইং তারিখে কাটলা/বিরাম/দিনাজ-১১/১২নং স্মারকে বাদী ও বিবাদীকে ইউনিয়ন কার্যালয়ে বিষয়টি নিস্পত্তির জন্য স্ব-স্ব কাগজ পত্রসহ হাজির করি। বাদী পক্ষের অভিযোগ সত্য প্রমানিত হওয়ায় বিবাদী আপোষ-মিমাংসা না মানায় বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে প্রতিবেদনে জানান।

নির্বাহী অফিসার ২৭-১০-২০১৩ইং তারিখে উনিঅ/বিরাম/দিনাজ/অভিযোগ ও তদন্ত/২০০৮-১২/১০১৪(৩)নং স্মারকে নোটিশ মারফত সার্ভেয়ার, উপজেলা ভূমি অফিস, বিরামপুর, দিনাজপুর, এবং পরবর্তীতে অফিসার ইনচার্জ বিরামপুর থানার মাধ্যমে তদন্ত করান।  গত ২০১২ সাল থেকে সার্ভেয়ার সেলিম বাদীর সকল সমস্যা সমাধানের লক্ষে বিভিন্ন সময়ে ৬ হাজার ৫০০ টাকা নিয়েছে বলে বাদীর অভিযোগ করেন।

শহিদুল ইসলাম  জানান,উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে ৩০/০৯/১৯৯৮ইং সালের রফিকুল ইসলাম পিতা-মৃত রইচ উদ্দিন সহ দুই নামে ওই মৌজার ৮২৫ ও ৮২৬ দাগে সাড়ে ১৬ শতক জমি খারিজ হয়। যাহার কেস নম্বর ওঢ-১/১০২/৯৮-৯৯। উক্ত খারিখটি ওই জমির মালিক মশিয়ার রহমান চৌধুরীর ছেলে মেজবাউল হক চৌধুরী খারিজ বাতিলের আবেদন করলে বিরামপুর ভূমি অফিস ০৪/১১/১৯৯৮ তারিখে বাতিল করে। এরপর তিনি ও সখিনা বিবি উক্ত বাতিল খারিজটির জাবেদা নকল কপি চেয়ে আবেদন করলে ভুমি অফিসের সার্ভেয়ার সেলিম  কাটলা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের তহশিলদার তাহসিন কে নিয়ে নকল সহ সকল সমস্যা সমাধানের প্রতিশ্রুতি দেয়। কিন্তু অদ্যবধি বিবাদী রফিকুলের মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে উক্ত খারিজের জাবেদা নকল কপি না দিয়ে তালবাহানা চালিয়ে আসচ্ছেন।

এ বিষয়ে সার্ভেয়ার সেলিমের সঙ্গে কথা বললে তিনি বাদীর অভিযোগ মিথ্যা বলে তাল বাহানা করেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় উক্ত পরিবার টিউবয়েলের পানি নিষ্কাশন বন্ধ রয়েছে।  টয়লেট না থাকায় বাড়ীর মধ্যে মল ত্যাগ সহ মানবেতর জীবন যাপন করছে।

এ বিষয়ে বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম মনিরুজ্জামান আল মাসউদ এর সঙ্গে কথা বললে তিনি  জানান,  কাটলা গেলে আমি ওই বাড়ী যাব এবং সরেজমিনে তদন্তপূর্ব্ক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করব। অতপর কয়েক সপ্তাহ অতিবাহিত হওয়ার পরও ওই পরিবারটির সমস্যা সমাধান হয়নি। এলাকার সচেতন মহল তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন\

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email