শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিরামপুর পৌরসভার আয়কর ও ভ্যাটের বিপুল পরিমান টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

মো.মাহাবুর রহমান,দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ
দিনাজপুরের বিরামপুর পৌরসভার আয়কর ও ভ্যাটের বিপুল পরিমান টাকা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা না দিয়ে সোনালী ব্যাংক এবং উপজেলা হিসাবরক্ষণ কার্যালয়ের সীল ও  কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর জাল করে আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
পৌর মেয়র, উপজেলা হিসাবরক্ষন কর্মকর্তা এবং সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।
ঘটনায় মাহিদুল নামের জনৈক ব্যক্তি স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব, জেলা প্রশাসক, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক, দুর্নীতি দমন কমিশন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন। পৌর কর্তৃপক্ষ চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।
পৌরসভা সূত্রে জানা গেছে, উন্নয়ন মূলক ঠিকাদারী কাজের ক্ষেত্রে দুই লাখ টাকা পর্যন্ত ১ পার্সেন্ট, ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ২ দশমিক ৫ পাসেন্ট, ২৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ৩ দশমিক ৫ পার্সেন্ট এবং ২৫ লাখ টাকার উর্ধ্বে ৪ পাসেন্ট এবং হাট-বাজারের ইজারার ৫ পার্সেন্ট আয়কর এবং এছাড়াও হাট বাজারের ইজারা মূল্যের ১৫ শতাংশ এবং অন্যান্য কাজের ৫ শতাংশ ভ্যাট  ট্রেজারি চালান দিয়ে সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দিতে হয়। টাকা জমা দেওয়ার পর ট্রেজারী চালানের একটি কপি পৌরসভায়, একটি কপি সোনালী ব্যাংকে এবং একটি কপি উপজেলা হিসাবরক্ষণ কার্যালয়ে জমা দিতে হয়।
এ সমস্ত আয়কর এবং ভ্যাটের টাকা সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার ও ইজারাদার নিজেই ট্রেজারী চালানের মাধ্যমে সোনালী ব্যাংকে জমা দিতে পারেন, অথবা পৌরসভার হিসাবরক্ষন কার্যালয় ঠিকাদারদের বিল দেওয়ার সময়  মোট বিল থেকে আয়কর ও ভ্যাটের টাকা কেটে নিয়ে ঠিকাদারদের বিল দিয়ে থাকেন।
লিখিত অভিযোগ এবং পৌরসভার একটি নির্ভর যোগ্য বিশ্বস্ত সূত্র নিশ্চিত করেছেন, টাকা আত্মসাতকারী চক্রটি বিগত প্রায় পনের বছর থেকে আয়কর ভ্যাটের কোটি কোটি টাকা ঠিকাদার ও ইজারাদারের কাছ থেকে আদায় করে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা না দিয়ে আত্মসাত করেছেন। এসব অনিয়ম বিগত কয়েকটি অডিটে ধরা পড়লেও টাকা আত্মসাতকারি চক্রটি অডিটরদের মোটা অংকের টাকা দিয়ে বিষয়টি ধামা চাপা দেয়।
যেভাবে টাকা আত্মসাতঃ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তদন্ত কমিটির এক সদস্য এবং পৌরসভার একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে, টাকা আত্মসাতকারি চক্রটি কোন কোন ক্ষেত্রে ট্রেজারী চালানে ব্যাংক ও উপজেলা হিসাবরক্ষন কার্যালয়ের সীল ও কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর জাল করে পৌর সভায় জাল ট্রেজারী চালান জমা দিয়ে নিজেরা চেকের মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করেছেন। আবার কোন ক্ষেত্রে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে দেড় লাখ টাকা জমা দেওয়ার কথা থাকলেও টাকা আত্মসাতকারি চক্রটি শুধু পঞ্চাশ হাজার টাকা জমা দিয়ে চালানে পঞ্চাশ হাজারের আগে এক লাখ লিখে পৌর সভায় জমা দিয়েছেন।

বিশ্বস্ত সূত্র মতে বর্তমান মেয়র লিয়াকত আলী সরকার এ বছর মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর বিষয়টি জানতে পারেন। ঘটনায় পৌরসভা থেকে গত ৯ আগষ্ট চারটি চালান যাচাইয়ের জন্য সোনালী ব্যাংকে পাঠান। সোনালী ব্যাংক গত ১০ আগষ্ট লিখিত ভাবে পৌর কর্তৃপক্ষকে জানায় যে চারটি চালানের মধ্যে দুটি চালান জাল। (এ প্রতিবেদকের কাছে সোনালী ব্যাংকের পাঠানো চিঠির কপি রয়েছে।)
এর পর পৌরসভা ছত্রিশটি চালান যাচাইয়ের জন্য উপজেলা হিসাবরক্ষন কার্যালয়ে নিয়ে যান। উপজেলা হিসাবরক্ষন কর্মকর্তা মো. মফিদুল ইসলাম গত বুধবার নিজ কার্যালয়ে জানান যে, মোটা অংকের কয়টি চালান জাল ধরার পড়ার পরে চালনাগুলো যাচাইয়ের জন্য পৌরসভা থেকে লিখিতভাবে জানানোর জন্য বললে  পৌর কর্তৃপক্ষ হিসাব রক্ষন কার্যালয় থেকে চলে যান। ঈদের পর তাঁরা পুনরায় আসবেন বলে জানান।
অভিযোগের আঙ্গুল হিসাব শাখার দিকে- তদন্ত কমিটির নাম প্রকাশে একজন সদস্য এবং পৌরসভার বিশ্বস্ত সূত্রটির মতে আয়কর ও ভ্যাট কাটা এবং চেক বিতরনের সম্পূর্ণ কাজ করে থাকেন পৌরসভার হিসাব শাখা। তাই ঘটনায় হিসাব শাখার সাথে যারা জড়িত তারা কেউ এর দায় এড়াতে পারেনা। ঘটনার সাথে জড়িত হিসাবরক্ষন শাখার একজন কর্মচারী  দোষ স্বীকার করে ইতোমধ্যে প্রায় দশ লাখ টাকাও জমা দিয়েছেন। তবে তদন্ত সম্পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত টাকা আত্মসাতের ঘটনায় কে কে জড়িত তা এ মূহুর্তে বলা সম্ভব নয়।
তবে ট্রেজারি চালানে উপজেলা হিসাবরক্ষন কার্যালয় এবং সোনালী ব্যাংকের সীল ও কর্মকর্তার স্বাক্ষর জাল ধরা পড়লেও ওই ব্যাংক ও হিসাবরক্ষন কার্যালয় এ ব্যাপারে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। এতে করে সংশ্লিষ্টরা বিষ্ময় প্রকাশ করে প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করে চেষ্টা হতে পারে বলে আশংকা প্রকাশ করেছেন।

জানতে চাইলে দিনাজপুর স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মো. ইমতিয়াজ হোসেন  জানান, কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর ও কার্যালয়ের সীল জাল ধরা পড়ার পর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।
জানতে চাইলে সোনালী ব্যাংকের বিরামপুর শাখার ব্যবস্থাপক মো. নাজিম উদ্দিন জানান, বিষয়টি তিনি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছেন। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ নির্দেশনা মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
বিরমাপুর উপজেলা হিসাবরক্ষন কর্মকর্তা মো. মফিদুল ইসলাম জানান, পৌর কর্তৃপক্ষ ঈদের পর লিখিত ভাবে বিষয়টি জানার পর এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
জানতে চাইলে তদন্ত কমিটির সদস্য পৌরসভার সহকারি প্রকৌশলী মো. সেলিম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, পুরো পুরি তদন্ত না করে আত্মসাত হওয়া টাকার পরিমান এবং অপরাধী কারা তা সঠিক ভাবে বলা যাচ্ছেনা। তবে অপরাধীদের কঠিন বিচার হওয়া উচিত বলে মো. সেলিম জানান।
জানতে চাইলে পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, অপরাধী যেই হোক প্রত্যেককেই আইনের আওতায় আনা হবে।

Spread the love