বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্বকাপের ১ম প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশের হার

অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে শুরু হতে যাওয়া এবারের বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ১ম আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতি ম্যাচে পাকিস্তান দলের কাছে হেরে গেছে বাংলাদেশ দল।

সিডনির ব্ল্যাকটাউন অলিম্পিক পার্ক ওভাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এ ম্যাচে ১১ বল বাকী থাকতেই ৩ উইকেটে হেরে যায় বাংলাদেশ।

টস জিতে বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন। ১ম ব্যাট করে সব কটি উইকেট হারিয়ে বংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ২৪৬ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৭ উইকেট হারিয়ে ১১ বল বাকী থাকতেই ৩ উইকেটের জয় নিশ্চিত করে পাকিস্তান। এর মধ্যে সর্বোচ্চ রান ছিল শোহেব মাকসুদের। তিনি ৯০ বল মোকাবেলায় ৯৩ রানে অপরাজিত ছিলেন। এছাড়া সোহেল ও আকমল করেন ৩৯ রান করে। পক্ষান্তরে বাংলাদেশের পক্ষে ২টি করে উইকেট দখল করেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা ও তাসকিন আহমেদ। রুবেল, সাকিব ও মাহমুদুল্লা পেয়েছেন ১টি করে উইকেট।
শুরুটা ভালো না করলেও তামিম ইকবাল ও মাহমুদুল্লার দুর্দান্ত ব্যাটিং বাংলাদেশকে নিয়ে যায় সম্মানজনক স্কোরে। বিশ্বকাপের এ প্রস্তুতি ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে অল্পের জন্য শতক থেকে ছিটকে যান মাহমুদুল্লাহ ও তামিম। দুজনই ১০৯ বল মোকাবিলা করেন। এতে মাহমুদুল্লাহ ৮৩ রান করে আহমেদ সেজাদের কাছে রান আউট হয়ে ফিরে যান ড্রেসিং রুমে। অন্যদিকে, তামিম ইকবাল ৮১ রান করে ইয়াসির শাহ’র বলে আউট হয়ে যান।

এ ২ ব্যাটসম্যানের পরে আবারও বিপর্যয়ে পড়লে দলের হাল ধরেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার  সাকিব আল হাসান। তিনি ৩০ বলে ৩১ রান করে মোহাম্মদ ইরফানের বলে আহমেদ সেজাদের হাতে ধরাশায়ী হন। সাবেক ওয়ানডে অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম শূন্য রান নিয়ে মাঠ ছাড়েন। এরপরে তেমন কোন ব্যাটসম্যান বেশিক্ষণ ব্যাট হাতে দাঁড়িয়ে থাকতে পারেননি। টাইগার বাহিনীর অধিনায়ক মাত্র ৮ বল খেলে ২ রান করেন।

এ নিয়ে ৫মবার বিশ্বকাপ আসরে খেলতে নামলো বাংলাদেশ। ১৯৯৯ সালের বিশ্বকাপে অভিষেক হয় টাইগারদের। ওই আসরেই ১৯৯২ আসরের চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তানকে হারিয়ে পুরো ক্রিকেট বিশ্বকে চমকে দেয় বাংলাদেশ। সে চমক ২০০৭ ও ২০১১ বিশ্বকাপেও দেখায় তারা।

বিশ্বের বাঘা বাঘা দিন দল ভারত, দক্ষিন আফ্রিকা ও ইংল্যান্ডকে হারের লজ্জা দেয় বাংলাদেশ। তাই ওই স্মৃতিগুলো এখনো বেশ ভালোভাবেই মনে আছে বাংলাদেশের। মনে আছে বর্তমান দলের খেলোয়াড়দেরও। তাই আসন্ন বিশ্বকাপে ভালো খেলার প্রত্যয় নিয়েই দেশ ছেড়েছে বাংলাদেশের এ তরুণ দলটি।

তারুণ্য নির্ভর এ দল ও অভিজ্ঞতার মিশেল দিয়েই বিশ্বকাপে ভালো খেলার কথা অস্ট্রেলিয়ায় বসেই জানালেন দলের নেতা মাশরাফি। বিশ্বকাপের আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন মাশরাফি বলেন, দলের বেশিরভাগ খেলোয়াড়ই নতুন। তারা দারুণ ক্রিকেট খেলে। প্রচুর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট না খেললেও দারুন কিছু অভিজ্ঞতা তাদের রয়েছে। আশা করছি তারা ভালো খেলতে পারবে। তবে অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ও রয়েছে এ দলে। মুশফিক, তামিম, সাকিব, মাহমুদুল্লাহ ও নাসিরের মত অভিজ্ঞ খেলোয়াড় রয়েছে। তাই অভিজ্ঞরা সেরাটা দিতে পারলে এবং তরুনরা প্রয়োজনীয় সহায়তা করতে পারলে আমাদের জন্য ভালো কিছু অপেক্ষা করছে।

এবারের বিশ্বকাপ অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তাই অস্ট্রেলিয়ার কন্ডিশনের সাথে মানিয়ে নিতে প্রায় দুসপ্তাহ আগেই অস্ট্রেলিয়া তাবু খাটিয়েছে বাংলাদেশ। এরপর সেখানে ইতোমধ্যে অস্ট্রেলিয়ার একাদশের বিপক্ষে দুটি প্রস্তুতিমূলক ম্যাচও খেলেছে তারা। দুটি ম্যাচে প্রতিন্দ্বন্দিতা ছাড়াই হেরেছে টাইগাররা। আর মূল পর্বের আগে আরও দুটি অফিসিয়াল প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে ১টি আজ খেলে ফেলেছে টাইগাররা।

Spread the love