বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিশ্ব জয়ের স্বপ্ন হাতছানির লড়াইয়ে হেরেছে বাংলাদেশ

বিশ্বকাপ ক্রিকেট জয়ের স্বপ্ন হাতছানির লড়াইয়ে হেরেছে বাংলাদেশ। শুক্রবার ব্যাটে-বলে নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে সমান তালেই লড়াই করেছে টাইগাররা। মাহমুদউল্লাহর টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরিতে ২৮৮ রানের বড় পুঁজি। বল করতে নেমে শুরুতেই সাকিবের স্পিন-ঘূর্ণিতে একই ওভারে ব্রেন্ডন ম্যাককালাম ও কেন উইলিয়ামসনের বিদায়। শেষ পর্যন্ত কোনো কিছুই কাজে দিল না।

শ্বাসরুদ্ধকর এই ম্যাচে শেষ অবদি ৩ উইকেটে জয় পেয়েছে নিউজিল্যান্ড। ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতেছেন সেঞ্চুরি পাওয়া নিউজিল্যান্ডের ওপেনার মার্টিন গুপ্তিল।

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের টানা দ্বিতীয সেঞ্চুরি আর সৌম্য সরকারের ক্যারিয়ারের প্রথম হাফসেঞ্চুরির ওপর ভর করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২৮৮ রানের লড়া্কু পুঁজি সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ। জবাবে ৪৮.৫ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে গেছে নিউজিল্যান্ড।

হ্যামিল্টনের সেডন পার্কে টস জিতে বাংলাদশকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছে নিউজিল্যান্ড। খেলতে নেমে ৭ উইকেটে ২৮৮ রান তুলেছে বাংলাদেশ। অপরাজিত ১২৮ রান করেছেন মাহমুদউল্লাহ। এর মাধ্যমে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি পেয়েছেন তিনি। এর আগের ম্যাচেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষেও সেঞ্চুরি করেছেন তিনি। যা বিশ্বকাপের মঞ্চে বাংলাদেশের কোনো ব্যাটসম্যানের প্রথম সেঞ্চুরি করার রেকর্ড।

নিউজিল্যান্ডের বোলারদের মধ্যে ট্রেন্ট বোল্ট, কোরে অ্যান্ডারসন ও গ্রান্ট ইলিয়ট ২টি করে উইকেট নিয়েছেন। তবে বাংলাদেশকে শুরুতে ভোগান্তিতেই ফেলেছিলেন আসরের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী বোলার বোল্ট। তার তোপের মুখে পড়ে দলীয় ২৭ রানে ২ ওপেনার ইমরুল কায়েস ও তামিম ইকবালকে হারিয়েছে বাংলাদেশ। তবে মাহমুদউল্লাহ ও সৌম্যের ৯০ রানের জুটি বাংলাদেশকে প্রাথমিক ধাক্কা সামলেতে নিতে সাহায্য করেছে।

ইনিংসের শেষ পর্যন্ত নট আউট থাকা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ১২৩ বলে ১২৮ রানের ইনিংসটিতে ছিল ১২টি বাউন্ডারি ও ৩টি ছক্কা। দলীয় ১১৭ রানে আউট হয়েছেন সৌম্য সরকার। এরপর দলীয় ১৮২ রানে পৌঁছানোর ফাঁকে সাকিব ও মুশফিকুর রহিমের উইকেট দুটি হারিয়ে খানিকটা ব্যাকফুটে চলে যেতে হয়েছে বাংলাদেশকে। তবে মাহমুদউল্লাহ ও সাব্বিরের ৭৮ রানের জুটি দলকে দিয়েছে ২৮৮ রানের পুঁজি।

c-01জবাব দিতে নেমে দলীয় ৩৩ রানে ২ উইকেট হারিয়েছে নিউজিল্যান্ড। বাংলাদেশের বোলিং আক্রমণের সূচনা করেছেন দুই স্পিনার সাকিব আল হাসান ও তাইজুল ইসলাম। সাকিবের ব্যক্তিগত তৃতীয় আর ম্যাচের পঞ্চম ওভারের প্রথম বলেই সৌম্যের হাতে ক্যাচ দিয়েছেন ডেঞ্জারম্যান ব্রেন্ডান ম্যাককুলাম। কিউই অধিনায়ক আউট হওয়ার ২ বল পরেই সাকিবের আরেকটি ডেলিভারিতে তামিম ইকবালের তালুবন্দী হয়েছেন কেইন উইলিয়ামসন।

তবে উইকেটর এক প্রান্ত আগলে রেখে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন মার্টিন গুপ্তিল। আর অপর প্রান্তে অফ ফর্মে থাকা রস টেইলর করেছেন ৫৬ রান। এই দুই ব্যাটসম্যানের ১৩১ রানের জুটিই মূলত বাংলাদেশের কাছ থেকে ম্যাচ বের করে নিয়েছে।

তবে ৩০.৪ ওভারে গুপ্তিল ব্যক্তিগত ১০৫ রানে আউট হওয়ার পর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়েছে নিউজিল্যান্ড। ম্যাচের ভাগ্য তাই ঘন ঘনই একবার বাংলাদেশ, আরেকবার নিউজিল্যান্ডের দিকে ঝুঁকেছে। শেষ অবদি জয়ের হাসি শোভা পেয়েছে স্বাগতিকদের মুখেই। ম্যাচের ৭ বল বাকি থাকতে ৩ উইকেটের জয় তুলে নিয়েছে ম্যাককুলামবাহিনী। এ জয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে অপরাজিত দল হিসেবে গ্রুপপর্ব শেষ করার সৌভাগ্য হয়েছে কিউইদের।

বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নিয়েছেন সাকিব। এ ছাড়া অলরাউন্ডার নাসির হোসেন নিয়েছেন ২ উইকেট।

এ ম্যাচ হারায় এ-গ্রুপে চতুর্থস্থান দখল করে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলবে বাংলাদেশ। সেক্ষেত্রে কোয়ার্টারে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারত। অবশ্য গ্রুপ পর্বের নিজেদের শেষ ম্যাচে স্কটল্যান্ড যদি অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বিস্ময়কর কিছু করে বসে তাগলে এই সমীকরণ পাল্টে যেতে পারে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ : ২৮৮/৭, ওভার ৫০ (মাহমুদউল্লাহ ১২৮*, সৌম্য ৫১, সাব্বির ৪০, সাকিব ২৩; ইলিয়ট ২/২৭, অ্যান্ডারসন ২/৪৩)

নিউজিল্যান্ড : ২৯০/৭, ওভার ৪৮.৫ (গুপ্তিল ১০৫, টেইলর ৫৬, ইলিয়ট ৩৯, অ্যান্ডারসন ৩৯; সাকিব ৪/৫৫, নাসির ২/৩২)

ফল : নিউজিল্যান্ড ৩ উইকেটে জয়ী

ম্যাচ সেরা : মার্টিন গুপ্তিল (নিউজিল্যান্ড)

Spread the love