শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪ ২৯শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জের কুড়ি টাকিয়া হাটে চলছে জনপ্রতিনিধিদের নেতৃত্বে জমজমাট জুয়া ও নগ্ননৃত্য

এন.আই.মিলন, বীরগঞ্জ থেকে : দিনাজপুরের বীরগঞ্জের কুড়ি টাকিয়া হাটে চলছে জনপ্রতিনিধিদের নেতৃত্বে জমজমাট জুয়া ও নগ্ননৃত্য। যুব সমাজ ধংশের পথে, এসএসসি পরীক্ষার্থী, ছাত্র/ছাত্রী ও অভিভাবকগণ দিশে হারা হয়ে পড়েছেন। প্রশাসন নিশ্চুপ। রাজস্ব্য হারাচ্ছে সরকার।

বীরগঞ্জ উপজেলায় মেলার নামে চলছে জমজমাট জুয়া ও নগ্ন নৃত্য। মেলায় শিশুদের শিখাচ্ছে প্রাথমিক জুয়া যা লটারী র‌্যাফেল ড্র ও লাকী কুপন নামে। পাশাপাশি রাজস্ব্য হারাচ্ছে সরকার, উৎকচ পেয়ে লাভবান হচ্ছে প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও সরকারদলীয় নেতা সহ বিভিন্ন পর্যায়ের গুটি কয়েক লোক। যাত্রা ও ভ্যারাইটি শো এর নামে চলছে শুধু মাত্র নগ্ন নৃত্য। অপর দিকে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন আসন্য এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা। যুব সমাজ জাচ্ছে ধংশের দিকে। আর এসবের কারনে সাধারন মানুষ হচ্ছে অর্থনৈতিক পঙ্গু। যার প্রভাবে সাংসারিক কলহ ও চুরি ডাকাতী বৃদ্ধি পাবে এলাকায়।

সরজমিন পরিদর্শনে জানাযায়, ঢাকা-পঞ্চগড় মহাসড়কের পার্শ্বে উপজেলার পাল্টাপুর ইউনিয়নের ঘোড়াবান্দ গ্রামের মৃত বেসার উদ্দিনের পুত্র তোফাজ্জল হোসেনের নেতৃত্বে কুড়ি টাকিয়া মসজিদ সংলগ্নে গত ৯ জানুয়ারী ইউপি সদস্য বাবুলের সভাপতিত্বে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বাবু সুরেন্দ্র নাথ কোকিল বিজয় মেলার উদ্বোধন করেন। মেলায় চলছে ঘটঘটি, লটারী ও সর্বপরি হাউজি খেলার নামে জমজমাট জুয়া। মেলায় লোভনিয় উপহার দেওয়ার নামে সরকারকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে ১০/২০ টাকার র‌্যাফেল ড্র ও লাকী কুপন নামে লটারী। পৌর শহর সহ সর্বত্র মাইকিং করে চালছে টিকিট বিক্রয়। আর সেই টিকিট ক্রয়ের জন্য বড়দের পাশাপাশি কমলমতি শিশুরাও ভিড় করে। এছাড়াও মেলাগুলোতে যাত্রা, ভ্যারাইটি শো ও ছায়াবাজীর নামে চলছে শুধুমাত্র নগ্ন নৃত্য। যেখান থেকে প্রতিরাত্রে জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন সহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা কর্মীরা ৫০/৬০ হাজার টাকা উপঢৌকন হিসাবে গ্রহণ করে কানে তুলাদিয়ে বসে আছেন। অপরদিকে চরম দূঃচিন্তায় পড়েছেন আগামী ২ ফেব্রুয়ারী হতে শুরু হওয়া এসএসসি ও সমামান পরীক্ষার্থী সহ ছাত্র/ ছাত্রীরা। দিশে হারিয়েছেন অভিভাবক মহল। এব্যাপারে উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা মুখ খুলতে রাজি না হলেও শুধুমাত্র এইটুক বলেন সব উপর ওয়ালারা জানে।

মেলা কমিটির সদস্যদের সঙ্গে কথা হলে (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) ব্যক্তি যানায় মেলা চলছে মহামান্য হাইকোটের নির্দেশে। যা ডিসি, এসপি সহ সকলেই জানে।

অপরদিকে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল, দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি ও পাবলিক লাইব্রেরীর সভাপতিদের যৌথ সাক্ষরে এসব কর্মকান্ড এলাকার যুব সমাজের নৈতিক, আর্থিক ক্ষতি ও সামাজিক অবক্ষয় বন্দের জন্য জেলা প্রশাসকে ই-মেইলের মাধ্যমে একটি অভিযোগ প্রেরন করেন একই সাথে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাসেল মনজুর ও বীরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (প্রশাসন) কেএম শওকত হোসেনকেও অভিযোগ পত্র দেয়।

অন্যদিকে সুশিল সমাজের নেতারা জানায়, কিছুদিন পূর্বে প্রেমবাজার নামক স্থানে শুধুমাত্র হাউজি বন্ধের জন্য বীরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান সাবেক এমপি আমিনুল ইসলাম মানবন্ধন ও মিটিং মিছিল করে ইউএনও আবু জাফরকে ব্যবহার করে হাউজি প্যন্ডেল ভেঙ্গে-গুড়িয়ে দেয়। বর্তমানে হাউজি, জুয়া ও নগ্ন নৃত্য চললেও অজ্ঞাত কারনে তিনি ও প্রশাসন নিঃশ্চুপ হয়ে আছেন।

Spread the love