রবিবার ২২ মে ২০২২ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জের মৃৎশিল্প এখন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে

এন আই মিলন:  দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার মৃৎশিল্পীরা মোটেই ভালো নেই। প্রয়োজনীয় পুঁজি, উপকরণ আর বাজার দরের অভাবে এই্ ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প এখন বিলুপ্তির পথে। এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত অনেকেই এখন বাপ-দাদার এ পেশা ছেড়ে অন্য পেশায় জড়িয়ে পড়েছেন। সরেজমিন পরিদর্শনে জানা গেছে, এক সময় বীরগঞ্জ উপজেলার ভোগনগর ইউনিয়নের প্রাণনগর গ্রামের ১৭টি পরিবার মৃৎশিল্পের সঙ্গে জড়িত। বর্তমানে অ্যালুমিনিয়াম, প্লাস্টিক ও স্টীলের জিনিসপত্রের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় মাটির তৈরী তৈজসপত্র টিকে থাকতে পারছে না বলে এসব পরিবারের মধ্যে চরম ভাবে নেমে এসেছে আর্থিক অভাব অনটন।

বীরগঞ্জ এলাকার পাল সম্প্রদায়ের পরিবারগুলোর একটি বিরাট অংশ মৃৎশিল্পের সঙ্গে জড়িত। তারা এলাকায় কুমার অথবা পাল নামে পরিচিত। শত অভাবের মধ্যেও এ সম্প্রদায়ের অনেকেই এখনো পূর্বপুরুষের এ পেশাকে আকড়ে ধরে আছেন। তাদের অবস্থা এখন করুণ। ময়লা ও ছেঁড়া কাপড় তাদের পরনে। পুষ্টিকর খাদ্যের অভাবে পুষ্টিহীনতার শিকার জীর্ণ-শীর্ণ শিশুদের চোখেমুখে সুন্দরভাবে বেচেঁ থাকার আকুতি। এসব কুমার অধিকাংশই ভূমিহীন। অনেকের আবার নিজেদের বসবাসের জন্য সামান্য ভিটেটুকু ছাড়া তাদের অন্য কোন জমিজমা নেই। কয়েকজন মৃৎশিল্পী ক্ষোভ ও হতাশার সঙ্গে জানান, কেউ তাদের খোঁজ নেয় না। কেউ জানতে চায় না তাদের জীবনের চলমান ঘটে যাওযা সুখ-দুঃখ নানা অসুবিধার কথাগুলো। পালপাড়া গ্রামের রেখা পাল জানান, বছরের সারা মাস হাড়ি- পাতিল, সরা, লোটা, কলস, ঝাঁঝর, ফুলের টব সহ বিভিন্ন ধরনের মাটির সামগ্রী তৈরী করে শুকনোর পর পুড়িয়ে সেগুলো বিভিন্ন হাট-বাজারে নিয়ে বিক্রি করা হয়। জ্বালানি খড়ির দাম বেশি হওয়ার ১ ভাটা মালা পোড়াতে বা তৈরী করতে প্রায় ১২ থেকে ১৫শত টাকা খরচ হলেও তা বিক্রি করে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকাও লাভ হয় না। আবার তৈরী মাল অবিক্রিতও থেকে যায়। বিকাশ পাল, নিত্যানন্দ পাল, স্বপন পাল বলেন, মাটির জিনিসপএ তৈরী করি, বিক্রি করি আর তা দিয়ে কোন রকমে প্রতিদিনের খাওয়া দাওয়া চলে। মাটির তৈরী এ কাজে হাড়ভাঙা খাটুনি অথচ আয় বলে কিছু নেই। পূর্বপুরুষের পেশা আকড়ে ধরে পুরোনো ঐতিহ্য রক্ষায় এ পেশা ধরে আছি। মৃৎশিল্পী অতুল পাল বলেন, এক সময় তাদের কোনো কিছু কিনে খেতে হয়নি। গ্রামে গ্রামে ধানের বিনিময়ে মাটির তৈরী জিনিসপত্র বিক্রি করে যে ধান পেতাম তা দিয়ে সারা বছর চলত। তবে বর্তমান কেউ তা করে না। এ এলাকার কুমার পরিবারগুলোর দাবি, পরিবার ভিত্তিক ব্যাংক ঋণ, মৃৎশিল্পের উপর আধুনিক প্রযুক্তি প্রয়োগ সম্পর্কে প্রশিক্ষন সহ কারিগরি উপকরণ সরবরাহের ব্যবস্থা করা হলে এ এলাকার পাল পরিবারের মৃৎশিল্পকে একমাত্র অবলম্বন করে এখনো টিকে থাকা সম্ভব।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email