মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে কোটি কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত উপ-কারাগারটি এখন ভুতুরে অবস্থা

Jal Karagar    মোঃ আবেদ আলী, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকেঃ বীরগঞ্জে কোটি কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত উপ-কারাগারটি এখন ভুতুরে অবস্থা ও অসামাজিক কাজের আখড়ায় পরিণত হয়েছে।

১৯৮০ইং সালে গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের এক সিদ্ধামেত্ম থানা পদ্ধতি বাতিল করে উপজেলায় উন্নিত করা হয়। উপজেলায় রূপামত্মর করার সাথে সাথে দরিদ্র মানুষের দ্বারপ্রামেত্ম সরাসরি বিচার ও উন্নয়ন পৌছে দেওয়ার প্রত্যয় নিয়ে উপজেলা মাজিষ্ট্রেট আদালত , মুনসেফ আদালত, নির্বাহী অফিস, বাসভবন, গেজেটেড ষ্টাফ কোয়াটার, ব্যাচেলর কোয়াটার, সহকারী কমিশনার ভূমি অফিস ও পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডে সরকারী ৭ দশমিক ৫০ একর জমিতে উপ-কারাগার র্নিমান করা হয়। উপ-কারাগারের অফিস ভবন, সাব-জেলার কোয়াটার, পুরুষ হাজত ও মহিলা হাজত, রান্নাঘর পৃথক পৃথক টয়লেট, বিদ্যুৎ সংযোগ ও সাপলাই পানির ব্যাবস্থা করা হয়।

১৯৯০ইং সালে সরকারী পট  পরিবর্তন হয়। স্বাধীনতা উত্তর জাতীয় পাটির সরকার কেয়ার টেকার সরকারের কাছে আনুষ্ঠিানিক ভাবে ক্ষমতা হসত্মামত্মর করে। রাষ্ট্রিয় ক্ষমতা পরিবর্তনের পর উপজেলা পদ্ধতি বাতিল করে থানা পদ্ধতি পর্নবহাল করা হয়। উপজেলা আদালত সমুহ তুলে নেওয়া হয় একই সাথে উপকারগারের আসামীদের প্রত্যাহার করে জেলা কারাগারে সরিয়ে নেওয়া হয়। সেই থেকে দীর্ঘ ২৪ বছর ধরে কোটি কোটি টাকার সরকারী মহা-মূল্যবান রাষ্ট্রিয় সম্পদ পরিত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। বর্তমানে মাদক সেবন ও অসামাজিক কাজের নিরাপদ স্থানে পরিনত হয়েছে এগুলো। একই অবস্থা দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপ-কারাগার ও ঠাকুরগাঁও জেলার রানী শংকৈল উপ-কারাগারের।

গত ১০ এপ্রিল সকালে বীরগঞ্জ উপ-কারাগার পরিদর্শন করে  দেখা যায় সমাজসেবা অধি দপ্তরের অধিনস্থ কর্মচারী মোঃ অব্দুর রহমান কেয়ার টেকারের দায়িত্ব পালন করছেন। উপ-কারাগারের সাব-জেলারের কোয়াটার গুলোর জরার্জীন অবস্থা, সরকারী ৭ দশমিক ৫০ একর জমিতে উপ-কারাগারের অফিস ভবন, সাব-জেলারের কোয়াটার, পুরুষ হাজত ও মহিলা হাজতখান, রান্নাঘর পৃথক পৃথক টয়লেটের দরজা-জানালা গুলো খুলে  পড়েছে। বিদ্যুৎ সংযোগ ও সাপলাই পানির ব্যাবস্থা চালু রয়েছে। কেয়ার টেকার আব্দুর রহমান জানান দীর্ঘ দিন পরিত্যাক্ত থাকার কারনে ভূতুরে অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। নিজস্ব অর্থ ব্যায়ে তা পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করে বৃদ্ধা মাকে সাথে নিয়ে উপ-কারাগাটি রক্ষনা-বেক্ষন করছি।

এলাকাবাসীর পরিচালনায় উপ-কারাগার ক্যাম্পাসে একটি জামে মসজিদ ও ২৫ জন এতিম সম্বলিত একটি এতিমখানা রয়েছে। উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মোঃ মতিয়ার রহমান জানান। উপ-কারাগার ক্যম্পাসে একটি বেকার যুবক ও যুব মহিলা কারিগরি  প্রশিক্ষন কেন্দ্র, কিশোর অপরাধ সংশোধন ও পুর্নবাসন কেন্দ্র, শেখ রাসেল শিশু একাডেমি ও শিশু পুর্নবাসন কেন্দ্র, স্থাপনের জন্য প্রাথমিক ভাবে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের জন্য সমাজ কল্যান মন্ত্রণলয়ে প্রসত্মাব প্রেরন করা হয়। উপরোক্ত প্রসত্মাবের আলোকে সরকারী বরাদ্দ দেওয়া হলে সমাজ কল্যান অধিপ্তর উপ-কারগারটি নিয়ন্ত্রন সহ সরকারী প্রতিষ্ঠান সরকারি ভাবেই প্রতিষ্ঠা লাভ করবে ও হাজার হাজার শিশু এবং কিশোর মানব সম্পদে রূপামত্মরিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হসত্মক্ষেপ প্রয়োজন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email