শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে ঝুঁকিপুর্ণ ভবনে চলছে দাপ্তরিক কার্যক্রম

U.P.Bildingমোঃ আবেদ আলী, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ বীরগঞ্জে ঝুঁকিপুর্ণ ভবনে চলছে সরকারী দাপ্তরের কার্যক্রম কর্মকর্তা-কর্মচারী সকলের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

উপজেলা পরিষদের পুরাতন ভবনটি ১৫বছর আগে প্রকৌশল বিভাগ পরীক্ষা-নিরিক্ষার পর পরিত্যাক্ত ঘোষনা করে কিন্তু জায়গা অভাবে জীবনের ঝুকি নিয়ে পরিত্যাক্ত ভবনে দাপ্তরিক কাজ করা হচ্ছে। উপজেলা পরিষদের পুরাতন ভবনের মুলভীত সহ দেয়াল ফেঁটে চৌচির হয়ে যাওয়ায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দাপ্তরিক কার্যক্রম চালাচ্ছেন কর্মকর্তা ও সংশি­ষ্ট দপ্তরের কর্মচারীরা। যেকোন মুহুর্তে ভবনের দেয়াল ও ছাদের ফেটে যাওয়া অংশ ধসে পড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে কর্মকর্তাসহ সকলের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

উপজেলা কৃষি অফিসার ড.মো.আবুল কালাম আজাদ, হিসাব রক্ষন অফিসার শফিকুল আলম, কৃষি সম্প্রসারন অফিসার হুজ্জাতুল ইসলাম, পাট অফিসার অসিম কুমার মালাকার, সার্টিফিকেট সহকারী ফজলুল হক, নির্বাহী অফিস সহকারী মোসত্মাফিজুর রহমান, সিএ কাম ইউডিএ-শাহজাহান আলী ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ফিল্ড সুপার ভাইজার ফজলুল হক আতঙ্কে আছেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিস সুত্রে জানা গেছে, ১৯৬৭-১৯৬৮ অর্থবছরে গ্রেটবিম ও কলাম ছাড়াই শুধুমাত্র ইটের গাঁথুনী দিয়ে একটি হলরুমসহ মোট ১৬ টি কক্ষ বিশিষ্ট দ্বিতল ভবন নির্মাণ করা হয়। নির্মানের পর ভবনটি একাধিকবার মেরামত করা হলেও বর্তমানে এর অবস্থা অত্যন্ত ঝুঁকিপুর্ণ। ভবনের দেয়াল ও মেঝেতে বড় ধরনের ফাটলসহ ছাদ ধসে পড়ার উপক্রম হয়েছে। তাছাড়া ফেটে যাওয়া অংশ দিয়ে বৃষ্টির পানি কক্ষে প্রবেশ করে দেয়াল ও মেঝে স্যাঁতসেতে হয়ে উঠেছে। এছাড়াও অফিসের সংরক্ষণ করা প্রয়োজনীয় দাপ্তরিক কাগজপত্র নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। কাঠের চেয়ার, টেবিল ও আলমারিতে উইপোকার আক্রমনে মূল্যবান কাগজপত্র নষ্ট হচ্ছে।

উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসার শফিকুল আলম জানান, ভবনটির বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দেয়াসহ ছাদ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় বর্ষা মৌসুমে পানি ঢুকে মূল্যবান কাগজপত্র নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। বিষয়টি সংশি­ষ্ট বিভাগের উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম জানান, নুতন ভবন নির্মানের প্রযোজনীয় অর্থ বরাদ্দের জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। ভবনটি দ্রুত সংস্কারের জন্য ব্যবস্থা নেয়া দরকার। ভবনটির ধারণ ক্ষমতা ক্রমশ কমে যাচ্ছে। বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেতে জরাজীর্ণ ভবনটি ভেংগে ফেলে পরিকল্পনা মাফিক নুতন করে উন্নতমানের ভবন তৈরী করা দরকার। আশা করছি খুব শিগগিরই সংশি­ষ্ট বিভাগ নুতন ভবন নির্মানে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

উপজেলা প্রকৌশলী মোহাম্মদ মুসা জানান, ভবনের ছাদ দিয়ে পানি চুয়ে ক্রমে কাগজপত্র নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। উপরের জলছাদটি সংস্কার করা হলে আপাতত সমাধান হতে পারে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাসেল মনজুর জানান, ভবনটির বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দিয়েছে। ইতিপূর্বে ভবনটি কয়েকবার মেরামত করা হয়েছে গত ২৮.০৪.২০১৩ইং তারিখে পত্রের মাধ্যমে বিভাগিয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসককে চিঠি দিয়ে জানানো হলেও এখন পর্যমত্ম কোন উত্তর পাওয়া যায়নি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email