সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে ঝুকিপূর্ণ ঢেপা ব্রীজ এখন মৃত্যু ফাঁদ

Dapa Birigমোঃ আবেদ আলী, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ বীরগঞ্জে ১৯৮৮’র বন্যায় কাত হয়ে যাওয়া ঢেপা নদীতে ঝুকিপূর্ণ ব্রীজের উপর দিয়ে মৃত্যুর ঝুকি নিয়ে শতশত যানবাহন সহ মানুষ পারাপার হচ্ছে।

বীরগঞ্জের বুক চিরে বয়ে যাওয়া করতোয়া নদীর শাখা ঢেপা নদী বীরগঞ্জ-দেবীগঞ্জ রাসত্মায় ইংরেজ শাসনামলে খেয়া ঘাটের মাধ্যমে গরু গাড়ী, মহিষের গাড়ী ও মানুষ পারাপার হয়ে খানসামা বন্দর ও দেবীগঞ্জের বাহাদুরহাট ফেরিঘাট হয়ে নদী পথে রাজধানী ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন জেলা শহরে ব্যবসা-বানিজ্য করতে যেতে হতো মানুষকে। জনগনের ভোগামিত্মর কারনে ভারত পাকিসত্মান বিভক্তির পর তৎকালিন সরকারের সময় ঢেপা নদীতে জেলা পরিষদের অর্থায়নে ৩০ মিটার বী্রজ নির্মান করা হয়। মুক্তিযুদ্ধের সময় পাক সেনারা ঐ ব্রীজটি উড়িয়ে দেওয়ার শত চেষ্টা করেও ব্যার্থ হয়েছে। ১৯৮৮ইং সালে ভয়াবহ বন্যায় পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া জিরো পয়েন্ট থেকে শুরু করে দেশে হাজার হজার ব্রীজ ধংশ হলেও ঢেপা নদীর ব্রীজটি  সামান্য কাত হলেও ব্রীজটি সম্পূর্ণরুপে ধ্বংশ হয়নি।

ভয়াবহ বন্যার পর থেকে ঢেপা ব্রীজটি পূনঃনির্মানের দাবি তোলা হয় কিন্তু অজ্ঞাত কারনে তা দীর্ঘকাল থেকে নির্মান করা হচ্ছে না। এই ঝুকিপূর্ণ ব্রীজের উপর দিয়ে প্রতিদিন অসংক্ষ বাই সাইকেল, মটর-সাইকেল, রিক্সা-ভ্যান, অটোরিক্সা, ভটভটি, প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, এ্যাম্বুরেন্স, মিনিবাস, কোচ সহ ভারী যানবাহন চলাচল করে মৃত্যুর ঝুকি নিয়ে পারাপার করছে। ব্রীজটির উপরের অংশে রয়েছে অসংক্ষ ভাঙ্গন, যা প্রতিবছর সংস্কার করে চলাচলের ব্যাবস্থা করে সড়ক, জনপথ ও ইমারত নির্মান প্রকৌশল বিভাগ। মাঝে মধ্যে লোকজনকে ব্রীজটি মাপামাপি করতে দেখা গেলেও আজ পর্যন্ত  পুনঃনির্মান করা হচ্ছে না।

এ ব্যপারে নিজপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল খালেক সরকার জানান বহুবার ব্রীজটি নির্মানের জন্য সংশি­ষ্ঠ বিভাগের সাথে যোগাযোগ করা হলেও শুধু আশ্বাস ছাড়া  আর কোন কিছুই মিলেনি। ঢেপা নদীতে ৩০ মিটার ব্রীজটিতে যে কোন সময় ভারী যান চলাচলের কারনে দুর্ঘটনায় ব্যপক সংখ্যক হতাহতের আশংকা করা হচ্ছে। ভোক্তভোগি এলাকাবাসী বীরগঞ্জ-কাহারোল নির্বাচনী এলাকার দিনাজপুর-১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপালের আশু হসত্মক্ষেপে জরুরী ভিত্তিতে ঢেপা নদীর ৩০ মিটার ব্রীজটি পুনঃ নির্মানের জোর দাবী জানিয়েছে।