শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে নারীর ছোয়ায় হস্তশিল্পের বিপ্লব

হাসান জুয়েল,ষ্টাফ রিপোর্টার ঃ হস্তশিল্পের বিপ্লব ঘটিয়ে দরিদ্রতা দূর করার পাশাপাশি নিজের ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটিয়েছে বীরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের হতদরিদ্র নারীরা। আর তাদের এই স্বপ্ন পুরন করতে এগিয়ে এসেছে বেশ কয়েকটি বে-সরকারী সাহায্য সংস্থা।

জানা গেছে, বে-সরকারী সাহায্য সংস্থা আর.ডি.আর.এস গ্রাম পর্যয়ে নারীদেরকে পাপোষ, কার্পেট ওয়ালমেট, টেবিলমেট,  সহ বিভিন্ন প্রকার হস্তশিল্পের প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে। প্রশিক্ষণ চলাকালীন সময় জন প্রতি দৈনিক ৩০ টাকা হারে মুজুরি প্রদান করে এবং প্রশিক্ষণ শেষে উলেন সুতা ও ফ্রেম  সরবরাহ করে থাকে। তাদের সহযোগিতায় তৈরীকৃত কার্পেট, ওয়ালমেট, টেবিলমেট, পাপোষ ও জায়নামাজ বিক্রিতেও কোন সমস্যা নেই। কারন তাদের তৈরী পন্য ১২ টাকা বর্গফুট হিসাবে উক্ত সংস্থাটিই ক্রয় করে থাকে। সেই টাকা দিয়ে অনটনের সংসারে ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়ার খরচ ও সাংসারিক অন্যান্য কাজে স্বামীকে সহযোগিতা করছে নারীরা। বর্তমানে কমরপুর গ্রামের ২৫/৩০টি পরিবারের নারীরা এই হস্তশিল্পের পন্য তৈরীর কাজে নিয়োজিত আছে।

কমরপুর গ্রামের সত্যেন রায়ের কন্যা সিবানী রাণী রায় (১৫) জানান, আমি স্থানীয় একটি এনজিও থেকে কার্পেট তৈরীর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে পড়ালেখার পাশাপাশি অবসর সময়ে কার্পেট তৈরী করি।এখান থেকে যা আয় হয় তা দিয়ে আমার পড়ালেখার খরচ চালাই ।

বাবুলের স্ত্রী গোলাপী (২৫) জানান, আর.ডি.আর.এস থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহন করে আমরা বিভিন্ন প্রকার কার্পেট ,ওয়ালমেট, টেবিলমেট, পাপোষ ও জায়নামাজ তৈরী করে থাকি যা পরবর্তীতে ১২ টাকা বর্গফুট হিসাবে আর.ডি.আর.এস কে সরবরাহ করি। আমাদের তৈরী কার্পেট, জায়নামাজ, ওয়ালমেট, টেবিলমেট দিনাজপুর,রংপুুর ও রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বাজারজাত হচ্ছে। এখন আমাদের সংসারে অভাব নেই।

দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির এই বাজারে সংসারের চাহিদা পূরনে পুরুষরা যেখানে হিমশিম খাচ্ছে, সেখানে পুরুষদের পাশাপাশি মহিলারা নিজেদের ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটানোর স্বপ্ন দেখছেন। তাদের স্বপ্ন পূরনের লক্ষে বিভিন্ন ধরনের হস্তশিল্পের কাজে ব্যস্ত রয়েছেন উপজেলার হতদরিদ্র নারীরা। আর তাদের ছোয়ায় এই হস্তশিল্পের কারণে বদলে গেছে উপজেলার সুজালপুর ইউনিয়নের কমরপুর গ্রামের চিত্র।

Spread the love