মঙ্গলবার ১৬ অগাস্ট ২০২২ ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে পাখির গ্রামে চলছে বিদায়ের প্রস্ত্ততি

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক : পাখির কলকনাতি ঘুম ভাঙ্গে আবার পাখির কলকনানিতে গোধুলী নামে যে গ্রামে। সেই পাখির গ্রামে চলছে পাখিদের বিদায়ের প্রস্ত্ততি। তাই বিষাদের কালো ছায়ায় ঢেকে গেছে দিনাজপুর বীরগঞ্জ উপজেলার শিবরাপুর ইউনিয়নের ধনগাঁও গ্রামের কদমতলী। যেটি এখন পাখির গ্রাম নামে পরিচিত।

 

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, গত ৫বছর ধরে বর্ষাকাল শুরু হওয়ার সাথে সাথে বিভিন্ন জাতের শত শত পাখির দল এসে বাসা বাধে এই গ্রামের একটি বাগানে। এই বাগানে চার প্রকারে পাখী সবচেয়ে বেশী আসে। এদের মধ্যে বক, ঘুঘু, আমপারু, বাদুর এবং বগ জাতীয় এক প্রকারের অতিথি পাখি সবচেয়ে বেশী। বাগানের ছোট বড় ৫০টি গাছে জুড়ে তাদের বসবাস। এখানে তারা শুরু করে সংসার জীবন এবং জীবন সংগ্রাম। সময়ের সাথে সাথে পাখিরা ডিম থেকে ছানা বড় করে। এরপর ছানাগুলি বড় হলে শীতের শুরুতেই পাড়ি জমায় অজানার উদ্যেশ্যে। তাদের বিচিত্র এই খেয়ালীপনায় এলাকার মানুষগুলির মাঝে নিজের অজান্তেই মায়া জন্মেছে পাখিগুলির উপর। আর শীতের আগমনী বার্তায় তাদের এই বিদায় মুহুর্তে যেন চাপা কান্নার ঢেউ খেলে যাচ্ছে পাখির গ্রামের মানুষগুলির বুকের মাঝে।

 

স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ মোমিন খাঁ জানান, যতদুর জেনেছি শীতকালে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে থেকে আমাদের দেশে পাখিরা এসে বাসা বাধে। কিন্তু আমাদের গ্রামে ঠিক তার বিপরীত নিয়মে বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পাখিরা ছুটে আসে। গত ৫বছর ধরে বর্ষাকাল শুরুর মুহুর্ত থেকে এখানে ঝাঁকে ঝাঁকে পাখি এসে বাসা বাধে। শীতের শুরুতেই তারা আবার অজানার উদ্যেশ্যে পাড়ি জমায়। এখন পর্যন্ত এই নিয়মের কোন ব্যতয় হয়নি। পাখি গুলি চলে যাওয়ার পর এলাকায় নেমে আসে সুনশান নীরবতা। এই সময়টায় আমাদের খারাপ লাগে। প্রতিক্ষায় থাকি তাদের ফিরে আসার।

 

Birganj Birds-02পাখিদের নিরাপত্তায় স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্ব পালনকারী ধনগাঁও সমবায় সমিতি সভাপতি মোঃ সিরাজ জানান, বাগানটি আমার বাড়ীর সাথে লাগানো। তাই পাখিগুলির প্রতি আমার পরিবারে বেশ মায়া জন্মেছে। একারণে কেউ পাখি শিকারে আসলে আমরা বাধা দিতাম। এ নিয়ে শিকারীদের সাথে আমাদের প্রায়ই দ্বন্দ বেধে যেত। এরপর পাখিগুলি রক্ষায় গঠন করা হয় ধনগাঁও সমবায় সমিতি। সমিতির সকল সদস্য পাহাড়া দিয়ে রাখতো পাখি এবং পাখির ছানাগুলিকে। কয়েক বছর ধরে পাখি দেখতে রাজধানী সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসে অনেক পাখি প্রেমী মানুষ। তবে এখন কেউ আর এখানে পাখি শিকার করে না।

 

বাগানের মালিক জগদীশ চন্দ্র রায় জানান, ভোরে যখন পাখিগুলি খাদ্য আরোহনের জন্য দুর-দিগন্তের দিকে ছুটে যায় তখন তাদের কলকনানিতে আশের পাশের গ্রামের মানুষ ঘুম ভাঙ্গে। তাদের দল বেধে ছুটে চলার দৃশ্য ভোরের আকাশকে মুগ্ধ করে রাখে। ঠিক তেমনি গোধুলিতে তাদের ফিরে আসার দৃশ্য আমাদের মনের মাঝে আরেকটি সকালের সম্ভাবনাকে জাগিয়ে তুলে। এখন আমাদের এই অতিথিদের বিদায়ের জন্য প্রস্ততি চলছে। তবে আবারও তাদের কনকনানিতে মুখরিত হবে আমাদের এই গ্রাম। আমরা সে আশাই বুক বেধে রাখি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email