শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে বাড়িতে হামলা ভাংচুর,লুটপাট অগ্নি সংযোগ আহত-১৮

Hamlaমোঃ মীর কাশেম লালু, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ গত বৃস্পতিবার ভোমর মুন্সির পুত্র মাওঃ সাত্তার বনাম একই গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের পুত্র আব্দুস সালামের ১০ শতক খাস জমি নিয়ে দ্বন্দের জের হিসাবে সন্ধ্যায় বাড়িতে হামলা অগ্নি সংযোগ ঘটনায় লাঠি ও ধারল অস্ত্রের আঘাতে উভয় পক্ষে ১৮ জন আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

উপজেলার মোহনপুর ইউনিয়নের চক মোহাদেব গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের পুত্র আব্দুস সালাম জানান বাপ-দাদার ভিটে বাড়ি (সরকারী খাস) পরিবার পরিজন নিয়ে দির্ঘদিন থেকে বসবাস করে আসছি। অল্প কিছুদিন থেকে একই গ্রামের ভোমর মুন্সির পুত্র মাওঃ আব্দুস সাত্তার জানান আমাদের ভিটেবাড়ির জমি ভূমি অফিস থেকে পত্তন করে নিয়েছে। ঘটনার দিন একদল লোক লাঠি-সোটা ও ধারাল অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বাড়িতে হামলা চালায়। তারা বাড়ি-ঘর ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টাকালে বাড়ির লোকেরা বাধা দিলে তাদের এলো-পাথারী লাঠি ও ধারল অস্ত্রের আঘাতে আব্দুস সালাম (৪৫), খাদিজা বেগম (৩৭), সফিকুল ইসলাম (২৯), ফয়জুল হক (৩৯), সালেহা বেগম (৪৭), মোঃ সেলিম (১৫), এনামুল হক (১৩), অমিছা বেগম (৪১), মোঃ আলম (২৫) ও আব্দুল কুদ্দুস (৬৫) মারাত্বক জখম ও গুরুতর আহত হয়। আহতদের চিৎকারে গ্রামবাসী রক্তাত্ত ও মুমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। অবস্থার অবনতি হলে সালাম, খাদিজা, সফিকুল, ফয়জুল, সালেহা, সেলিম ও এনামুলকে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে। এদিকে সন্ত্রাসীরা ১লক্ষ ৫০হাজার টাকা মুল্যের ৫টি গরু, স্বর্ণালংকার, নগদ ৮০হাজার টাকা, ২টি টিনের ও ১টি খরের ঘরের ধান, চাউল, থালা-বাসন, কাপর-চোপর ৫লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত মামলা দায়েরের প্রস্ত্ততি চলছিল। মোবাইল ফোনে আব্দুল খালেক মোবাইল ফোনে জানান ৩০ বছর ধরে উল্লেখিত জমি পত্তন নিয়ে ভোগ দখলে আছি। এক বছর আগে তারা জোর করে বাড়ি-ঘর করে দখল করেছে। ঘটনার দিন সন্ধায় আমার বাড়ির গেটে অস্ত্র নিয়ে মহরা দেওয়ার সময় বাধা দিলে তারা বাড়িতে ঢুকে হামলা চালিয়ে আমাকেসহ ৮জন লাঠি ও অস্ত্রের আঘাতে আহত করে। আমি তাৎক্ষনিক আহতদের নিয়ে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসাধিন রয়েছি। আমাকে ফাসানোর জন্য তারা নিজেরাই বাড়িঘর ভাংচুর ও অগ্নি সংযোগ করেছে। মোহনপুর ইউপি চেয়ারম্যান দীনেশ চন্দ্র মহন্ত জানান আমি অসুস্থ্য ঘটনা শুনেছি উল্লেখিত ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং দোষীদের দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী জানাচ্ছি। থানার ওসি কেএম শওকত জানান অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ করলে বিষয়টি তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লংঘনের অপরাধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email