শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে বিয়ের ৪৫ দিন পর মা হয়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে

এন.আই.মিলন, দিনাজপুর প্রতিনিধি ঃ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে এক  মাদ্রাসার ছাত্রী বিয়ের ৪৫ দিন পর মা হয়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে, নবজাতক পুত্রকে মেরে ফেলার চেষ্টা করে মা।

সরজমিনে গেলে জানাযায়, উপজেলার শিবরামপুর ইউনিয়নের শালবাড়ী খাটিয়াদীঘী গ্রামের শাহাজান আলীর কন্যা জীন্দাপীর মাদ্রাসার ৮ম শ্রেনীর ছাত্রী শাহানাজ পারভিন এর সঙ্গে গত ২৫ আগষ্ট পাল্টাপুর ইউনিয়নের সনকা এলাকার জামালপুর ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের পুত্র ফুলমিয়ার বিয়ে হয়। বিয়ের ৪৫ দিন পর স্ত্রী শাহানাজ পারভিন মা হয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে।

সনকা এলাকাবাসী জানায়, ১০ অক্টোবর (সোমবার) দুপুর ১২ টার দিকে বাড়ীর লোকজন কাজে ব্যস্ত থাকার সুযোগে শাহানাজ পারভিন বিশ্রামের কথা বলে ঘরের দরজা লাগিয়ে দিয়ে বাচ্চা প্রসব করে শিশুটিকে মেরে ফেলার চেষ্টা করে। শিশুটির কান্নার শব্দপেয়ে বাড়ীর লোকজন দ্রুত ঘরে প্রবেশ করলে ১টি পুত্র সন্তান দেখতে পায় এবং শিশুটির সরিরের বিভিন্ন অংশে রক্তাত্ব কাটা ছেড়া দেখা যায়। ঘটনাটি প্রতিবেশীরা জানতে পারলে এলাকাবাসীর মধ্যে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে। প্রতিবেশীরা শিশুটিকে দ্রুত চিকিৎসার পরামর্শ দিলে ফুলমিয়ার পিতা শহিদুল, চাচা ও দাদী মুমুর্ষ শিশু পুত্র ও মা শাহানাজ পারভিনকে দ্রুত চিকিৎসার জন্য বীরগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকের পরামর্শে তারা দিনাজপুর মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে।

সংবাদপেয়ে দিমেক হাসপাতালে গেলে ফুলমিয়ার চাচা জানায়, শাহানাজ পারভিনের ফুপু কলেজ ছাত্রী শহিদা আক্তার তামান্না, খাদিজা, ফুপা শাহিন মা-ছেলেকে লুকিয়ে হাসপাতালথেকে পালিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। শাহানাজ পারভিন এর মাধ্যমে তারা শিশুটির প্রকৃত জন্মদাতার সংবাদ জানতে চাইলে সে একই এলাকার নানা আব্দুল জলিলের পুত্র মামুন বলে জানায়।

ফুলমিয়া জানায়, ১১ অক্টোবর সন্ধ্যায় তারা শাহানাজ পারভিনকে দিমেক হাসপাতাল হতে বাড়ীতে নিয়ে আসলে তার পরিবারের লোকজন এসে মা-ছেলে নিয়ে যায় তাদের বাড়ীতে।

শালবাড়ী এলাকাবাসী জানায়, ১ দিকে নাবালীকা ৮ম শ্রেনীর ছাত্রীর বিয়ে, অন্যদিকে শিশু পুত্রকে হত্যার চেষ্টার কারনে মেয়েটির কঠিন শাস্তি হওয়া দরকার।

Spread the love