শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে শারদীয় দূর্গোৎসব উদ্যাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি মূলক সভা

ডি,রায় বাবুল বীরগঞ্জ(দিনাজপুর)থেকে ঃ বীরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে আসন্ন শারদীয় দূর্গোৎসব উদ্যাপন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বীরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে গত শনিবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলম হোসেন-এর সভাপতিত্বে পরিষদ মিলনায়তনে আসন্ন শারদীয় দূর্গোৎসব ১৪২৩ বাংলা উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আমিনুল ইসলাম। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন শারদীয় দূর্গোৎসব হিন্দু ধর্মালম্বীদের একটি বৃহৎ উৎসব। এ উৎসবে হিন্দু,মুসলিম,বৌদ্ধ,খৃষ্টান সকল ধর্মের মানুষের আগমন ঘটে থাকে এবং উৎসব উপভোগ করে থাকেন। তেমনি ভাবে মুসলিম ধর্মীয় অনুষ্ঠানেও  একই ভাবে অন্যান্য ধর্মের মানুষ ধর্মীয় অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন এবং উৎসব উপভোগ করে থাকেন। ্এটি হচ্ছে বাঙ্গালী জাতির ঐতিহ্য। এ ঐতিহ্যকে আমাদের যে কোন মূল্যে ধরে রাখতে হবে। বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সকল ধর্মের সম অধিকার নিশ্চিত করেছেন। তাই আসন্ন শারদীয় দূর্গোৎসব সুন্দর ও সুষ্ঠভাবে পালনের জন্য তিনি আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সহ  সকলের সার্বিক সহোযোগিতা কামনা করেন। উপজেলা দূর্গাপূজা উদ্যাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদক মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শ্রী গোপাল চন্দ্র দেব শর্মার পরিচালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সহকারী ভূমি কমিশনার শারমিন সুলতানা, বীরগঞ্জ থানা অফিসার ইন্চার্চ মোহাম্মদ আক্কাস আহম্মেদ,উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার অধ্যাপক কালীপদ রায়,উপজেলা দুদক সভাপতি আলহাজ্ব মাঈনউদ্দিন আহম্মেদ, দূর্গাপূজা উদ্যাপন পরিষদের উপদেষ্টা বাবু গিরিজানাথ দাস,পূজা উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বাবু দীনেশ চন্দ্র মহন্ত, সহ-সভাপতি শিবরামপুর ইউপি চেয়ারম্যান বাবু জনক চন্দ্র অধিকারী, সাতোর ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান বাবু রবীন্দ্র নাথ গোবিন বর্মন,সাবেক পূজা কমিটির সাধারন সম্পাদক শ্রী সুরেন্দ্রনাথ কোকিল বাবু সহ ১১ টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন । সভাপতির বক্তব্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলম হোসেন বলেন বীরগঞ্জ উপজেলায় ১১ টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা সহ মোট ১৫১ টি দূর্গা মন্ডপে এবারে পূজা উদ্যাপন হতে যাচ্ছে। পূজামন্ডপে পূজা চলাকালীন সময় বা পরে যেন কোন প্রকার অপ্রিতিকর ঘটনা না ঘটে সে দিকে সকলকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার পাশাপাশি পূজাকমিটির ভোলন্টিয়ার ভাইদের সার্বিক ভাবে সহযোগিতা করতে হবে। পূজোয় অনেক মানুষের সমাগম ঘটে থাকে, তাই আইন প্রয়োগ কারী সংস্থা ও পূজোকমিটির ভোলন্টিয়ার ভাইদের সতর্ক দৃষ্টি থাকলে যে কোন অপ্রিতিকর ঘটনা এড়ানো সম্ভব হবে। তিনি শান্তিপূর্ন ভাবে আসন্ন শারদীয় দূর্গোৎসব পালনের জন্য সকল সম্প্রদায়ের মানুষের সার্বিক সহযোগীতা কামনা করেছেন। সভায় উপজেলার ১১ টি ইউনিয়নের এবং পৌরসভার ১৫১ টি পূজা মন্ডপের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Spread the love