শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২ ১৪ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে সাথী ফসল হিসেবে আদা ক্ষেতে করলা ও শিম চাষে সাফল্য

মীর কাসেম লালু, ষ্টাফ রিপোর্টার॥ সঠিক সময়,সঠিক পদ্ধতি,বুদ্ধিমত্তা আর পরিশ্রম সব মিলে শিম চাষে সফল দিনাজপুরের বীরগঞ্জের চাষী সিরাজুল ইসলাম। যখন কৃষকরা একটি ক্ষেতে একটি ফসল আবাদ করে মাথায় হাত দিয়ে বসে আছে,ঠিক সে সময় তিনি একই ক্ষেতে একই সময়ে তিনটি ফসলের চাষ করে দিগুন লাভ করে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছেন ।
সফল চাষী সিরাজুল ইসলাম এর কাছে তার সফলতার কথা জানতে চাইলে তিনি জানান,আমার মনের জোর,তারপর ভাল দো-আশলা এবং উচু একপ্লট জমি যাতে পানি যেন উঠতে না পারে। ভালো করে চাষ করে জমি মনের মত করে তৈরী করি। তারপর যত্নসহকারে ফসল বুনন করি,নিয়মিত দেখাশোনা, সময় মত সার বিশ দেয়া। এই হলো আমার সাফল্যর গোপন কথা। যে কোন কৃষক এই কয়েকটা কথা মেনে চললে সফলতা আসবেই।
তিনি বলেন, ২.৫০একর (৫বিঘা) জমিতে ১৫ই বৈশাখ দেশী জাতের আদা লাগাই ৫২হাজার টাকার,কিছুদিন পর আদার গাছ বড় হলে মাটির নিচের পচা আদা (মথা) বিক্রি করি ৬৫হাজার টাকার। আশা করছি আদা যখন মাটির নিচ থেকে তুলে বাজারে বিক্রি করবো ৫-৭ লাখ টাকা মুনাফা হবে। আদা এমন একটি ফসল রোদও চায় ছায়াও চায়, আর এই দুটোই পাওয়া যায় করলা আর শিম থেকে,যার কারনে এই তিনটি ফসল একসাথে যে পরিমান লাভ বা মুনাফা আসে তা অন্য কোন ফসল থেকে আসেনা। মজার বিষয় হচ্ছে দুটি ফসলের খরচ দিয়ে তিনটি ফসল চাষ করা যায়।
জৈষ্ঠ্য মাসে করোলা লাগাই আশ্বিন মাসে করলা শেষ হয়ে যায়। করলা চাষে ৩০হাজার টাকা মুনাফা হয়।এর পর সেই জমিতে শিম চাষ করি।
শিম চাষে তেমন খরচ লাগে নাই, করলার জাঙ্গিতেই শিম হচ্ছে। মাত্র ১৬ হাজার টাকা খরচ হয়েছে শিম চাষে । এ পযন্ত ৩৫হাজার টাকার শিম বিক্রি করেছি। বর্তমানে প্রতি সপ্তাহে ১৫-২০ মন শিম বিক্রি করছি। লনটন ও বারী ১৪ জাতের শিম চাষ করেছি, কারন এই সব জাতের শিম ফলন বেশী আর পোকার আক্রমন কম হয়। বাজারে খুচরা বিক্রেতা ও খদ্দেরদের কাছে কদরও বেশী। তাই আনুমানিক আরো ৫০হাজার টাকার শিম বিক্রি করতে পারবো।
ক্ষেতে কর্মরত বেশ কয়েকজন মহিলা শ্রমিক শিম তুলছিলেন। এদের মধ্যে মোছা শরিফা খাতুন জানান, এখন খুব একটা কাজ নেই। দ্রব্য মূল্যে উর্ধগতি সামাল দিতে শিম ক্ষেতে ফসল তোলার কাজে যোগ দিয়েছে। শিম ক্ষেতে ১০০টাকা মন হিসেবে প্রতিদিন কমপক্ষে ৩মন শিম তোলা হয়। এতে করে প্রতিদিন প্রায় ৩ হতে ৪শত টাকা বাড়তি আয় হয়। সংসারে প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী কেনার ক্ষেত্রে এই বাড়তি আয় থেকে জোগান দেওয়া হয়।
এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার আবুরেজা মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, করলা কিংবা শিম চাষে সাথী ফসল হিসেবে হলুদ এবং আদা চাষ বেশ লাভজনক। কারণ হলুদ এবং আদা চাষে ছায়ার প্রয়োজন হয়। যা করলা অথবা শিম চাষে পুরণ করা যায়। তাই করলা এবং শিম চাষের পাশাপাশি সাথী ফসল হিসেবে আদা এবং হলুদ চাষে আমরা কৃষকদের পরামর্শ এবং সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করে যাচ্ছি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email