সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে ৬মাসে ১৯ জনের আত্মহত্যা

মোঃ আবেদ আলী,বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকেঃ বীরগঞ্জে গত ৬ মাসে ১৯ জনের আত্মহত্যা করেছে।

বীরগঞ্জ থানা সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার সুজালপুর ইউনিয়নের বর্ষা গ্রামের আব্দুল খালেকের কন্যা বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্রী শিরিন সারমিন (১৮) মায়ের উপর অভিমান করে সকালে শোওয়ার ঘরে গলায় ফাস দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টাকালে গংগানির শব্দ পেয়ে তাকে উদ্ধার করে মুমুর্ষ অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভার্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধিন অবস্থয় শিরিন মারা যায়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাশিক মেডিকেল অফিসার ডা্.আসিফ আনো্য়ার থানায় অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করে । পুলিশ অভিযোগ পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে লাশের সুরতহাল লিপিবদ্ধ করে শিরিনের লাশ তার পরিবারের কাছে হসত্মামত্মর করেন। উপজেলার মরিচা ইউনিয়নের সুন্দরীহাটগাছ গ্রামের মৃত প্রেমহরি চরন রায়ের পুত্র হরিশ চন্দ্র রায় (৫৫) ও  মোহম্মদপুর ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামের অবিনাশ মহমেত্মর শিশু কন্যা ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রী অপন্না রানী রায় (১০) গত সোমবার দুপুরে নিজ বাড়িতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্ম হত্যা করে। পরিবারের পক্ষ থেকে জানান হয় হরিশ রায় রোগ যন্ত্রনা সহৃ করতে না পেরে ও অপন্না মায়ের উপর অভিমান করে আত্মহত্যা করেছে। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল গিয়ে লাশের সুরতহাল লিপিবদ্ধ করে্ পরিবারের কাছে লাশ হসত্মামত্মর করা হয়। প্রতিটি ঘটনায় অস্বাভিক মৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত জানুয়ারী হতে ডিসেম্বর/২০১৩ইং পর্যন্ত এক বছরে ৪৪ জন আত্মহত্যা করেছে। চলতি বছরের গত জানুয়ারী হতে জুন/২০১৪ইং পর্যন্ত ৬ মাসে ১৯ জন আত্মহত্যা করেছে। বীরগঞ্জ পৌরসভা ও উপজেলার শিবরামপুর, পলাশবাড়ী, শতগ্রাম, পাল্টাপুর, সুজালপুর, নিজপাড়া, মোহম্মদপুর, ভোগনগর, সাতোর, মোহনপুর ও মরিচা সহ ১১টি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড সমুহের প্রত্যমত্ম পল্লীর বিভিন্ন পাড়া-গাঁয়ে এদের মধ্যে শিশু, মহিলা, বালক-বালিকা, যুবক-যুবতী ও বৃদ্ধ-বৃদ্ধাসহ সকল বয়সী মানুষ রয়েছে। তবে অধিকাংশ শিশু ও মহিলা। দারিদ্রতা, দুরারোগ্য ব্যাধি, প্রেম-ভালবাসা, বহু বিবাহ, যৌতুকের কারনে নির্যাতন, বিবাহ বিচ্ছেদের কারনে সংসারে অশামিত্ম হচ্ছে অন্যতম। আত্মহত্যাকারীরা সকল আশা আকাংখ্যা হারিয়ে নিজের জীবনের পরাজয় মেনে নিয়ে মনের যন্ত্রনা নিভৃত করতে এই সুন্দর পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে। পুলিশ জানায় ২০১৩ ইংরেজী বছরে থানায় ৪৪টি অস্বাভাবিক মৃত্য মামলা দায়ের করা হয়েছে। প্রতিটি ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরতহাল রির্পোট তৈরী করে অধিকাংশ লাশ পরিবারের কাছে সৎকারের জন্য হসত্মামত্মর করা হয়েছে। কিছু সংখ্যক লাশ স্থানীয় সরকারের সুপারিশ আত্মীয়-স্বজনের আবেদনের পৃক্ষিতে ও জেলা ম্যাজিষ্ট্রেটের অনুমোতিক্রমে সৎকারের জন্য প্রকৃত দাবীদারের কাছে হসত্মামত্মর করা হয়েছে।