শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জ উপবৃত্তি’র টাকা না দেয়ায় ছাত্রীকে মেরে হাত ভেঙ্গে দিয়েছে শিক্ষক

মোঃ আবেদ আলী, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ বীরগঞ্জ উপবৃত্তি’র টাকা না দেয়ায় গরীব মেধাবী ছাত্রীকে মেরে হাত ভেঙ্গে দিয়েছে প্রধান শিক্ষক।

উপজেলার সাতোর ইউনিয়নের ১৩৮নং-গড়পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিধ্যালয়ে ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রী, রোল-১ মোছাঃ রিপা আক্তারের মা-মর্জিনা বেগম এক লিখিত অভিযোগে জানান, আমার মেয়ের উপবৃত্তির টাকা থেকে প্রতি বিলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রবীন্দ্র নাথ সেন ২০০/-টাকা কেটে নিয়ে পকেটস্থ করত। ইতোপূর্বে টাকা বিতরনের সময় রিপার উপবৃত্তি উত্তেলনের সময় (একই গ্রামের আনোয়ারাকে) ডুপলিকেট মা সাজিয়ে টাকা উত্তেলনের চেষ্টা চালায়। সংবাদ পেয়ে মেধাবী ছাত্রী রিপার মা ডাকেশ্বরী স্কুল কেন্দ্রে টাকা প্রদানের সময় হাতেনাতে ধরে উপবৃত্তির টাকা উদ্ধার করেন। অবৈধভাবে উপবৃত্তির টাকা আদায়ের চেষ্টা ব্যার্থ হয়ে ওই প্রধান শিক্ষক বাড়ীতে এসে রিপাকে স্কুলে যাওয়া নিষেধ করে। তদুপরি নিয়মিত ছাত্রী রিপা স্কুলে যায় ক্ষিপ্ত প্রধান শিক্ষক তাকে স্কুল থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। রিপা স্কুল থেকে যেতে না চাইলে তাকে মারপিট করে, এক পর্যায় স্কুলের দেয়ালে ধাক্কা দিলে রিপার ডান হাত ভেঙ্গে যায়। স্কুলে মারপিট খেয়ে মেধাবী স্কুল ছাত্রী বাড়ীতে ফিরে ঘটনা প্রকাশ ও মা-বাবার কাছে অভিযোগ করে। এ সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে শতশত গ্রামবাসী উত্তেজিত হয়ে স্কুল ঘেরাও ও প্রধান শিক্ষককে অবরুদ্ধ করে। ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ রেজাউল করিম শেখ ন্যায় বিচারের আশ্বাস দিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। দীর্ঘ ২৫ দিন পেরিয়ে গেলেও বিষয়টি সুরাহা না হওয়ায় উল্লেখিত ঘটনা গত ১৮/০৯/২০১৬ইং তারিখে থানা ক্যাম্পাসে আগত দিনাজপুরের পুলিশ সুপার মোঃ হামিদুল আলমের কাছে অভিযোগ করাকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আলম হোসেন উপস্থিত ছিলেন। আহত গরীব মেধাবী শিশু ছাত্রী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধিন হয়েছে।

Spread the love