সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জ খলসি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ।

মো: নাজমুল ইসলাম মিলন,বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার সুনামধন্য খলসি উচ্চ বিদ্যালয় ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। প্রধান শিক্ষকের ব্যাপক অনিয়ম, দুর্নীতি, দায়িত্ব অবহেলাসহ বিভিন্ন অপকর্মে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে, অবৈধ বিদ্যুৎ সরবরাহের মামলা দায়েরের প্রস্ত্ততি চলছে।

অভিযোগ ও সরজমিন তদন্তে জানা যায়, নিয়ম বর্হিভূতভাবে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষকে বিতারিত করে নিজপাড়া ইউনিয়নের জগদীশপুর গ্রামের ইউনুস আলীর পুত্র অস্থায়ী পদে কর্মরত করণিক (কেরানী) মোঃ ইসমাইল হোসেন রাতারাতি প্রধান শিক্ষকের চেয়ারে বসেন। মনোরম পরিবেশে ১৯৯৩ সালে স্থাপিত বিদ্যালয়টি বেশ সুনামের সাথে এলাকায় শিক্ষা বিস্তারে কার্যক্রম চালিয়ে আসছিল। কিন্তু ইসমাইল হোসেন দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে শুরু হয় নানা অপকর্ম। এমন কোনো জঘন্য কাজ নেই যা তার দ্বারা সংঘটিত হয়নি। ভূয়া নিবন্ধনে শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়া, বিভিন্ন জনকে চাকুরী দেয়ার নামে ৩০/৩৫ লক্ষ টাকা আদায় ও আত্মসাৎ, এলাকার নিরীহ খেটে খাওয়া মহিলাদের নিকট প্রতারণার মাধ্যমে সাড়ে ৫ লক্ষাধিক টাকা আদায় ও আত্মসাতের ঘটনায় আনীত মামলার প্রধান আসামী হচ্ছেন প্রধান শিক্ষক ইসমাইল হোসেন। স্কুলের মালামাল, বৈদ্যুতিক তার খুলে নিয়ে নিজের বাড়ির সেচ পাম্পে ব্যবহার, হ্যান্ডটিউব ওয়েল, পুরাতন টিন, রড, বালি, সিমেন্ট বিক্রি করার পরেও সরকার কর্তৃক প্রদত্ত ল্যাপটপ, প্রজেক্টর, কম্পিউটর বিক্রি করার অভিযোগ রয়েছে।

এ ব্যাপারে বীরগঞ্জ প্রেসক্লাবের একদল সাংবাদিক অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরজমিন তদমেত্ম ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে পান বিদ্যালয় বন্ধ। মুঠোফোনে প্রধান শিক্ষককের সাথে কথা হলে, তিনি জানান কিছু লোক তার শিক্ষক হাজিরা খাতা কেড়ে নেয়ায়, তাই তিনি উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে অবহিত করতে বিদ্যালয় ছুটি দিয়েছেন।

অপরদিকে, বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির নির্বাচিত সভাপতি জিতেন্দ্র নাথ রায় সহ অন্যান্য কয়েক জন সদস্যের সাথে কথা হলে জানা যায়, প্রধান শিক্ষক ইসমাইল হোসেন কাউকে তোয়াক্কা না করে অনেক দিন থেকে বিদ্যালয়ে অনুপোস্থিত আছেন। কিন্তু প্রতিনিয়ত শিক্ষক হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে থাকেন ফলে বিদ্যালয়ের শিক্ষক হাজিরা খাতাটি জব্দ করা হয়েছে। সরজমিন স্কুল মাঠে অবস্থানকালে অনেক সচেতন মানুষ সাংবাদিকদের দেখিয়ে দিয়ে বলেন, প্রধান শিক্ষক ইসমাইল হোসেন বিদ্যালয়ের বৈদ্যুতিক সংযোগের মিটার থেকে অবৈধভাবে পার্শ্ব সংযোগ দিয়ে প্রতি মাসে ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা আদায় ও আত্মসাৎ করছেন। দিনাজপুর পল­ী বিদ্যুৎ সমিতি-১ বীরগঞ্জ জোনাল অফিসের ডিজিএম শাহীন চৌধুরীকে ঘটনাটি জানালে তিনি তাৎক্ষনিক লোক পাঠিয়ে খলসি উচ্চ বিদ্যালয় যার হিসাব নম্বর- ৮২৯/২০২০ সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্ত্ততি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

এ ব্যপারে, অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের সাথে বেশ কয়েকবার মুখোমুখি হওয়ার চেষ্টা করা হলেও তিনি বাড়িতে লুকিয়ে থেকে মুঠোফোনে জানান উপজেলা সদরে অবস্থান করছেন। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোছাঃ রাবেয়া বেগম এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, প্রতিটি স্কুল চলমান আছে। কিন্তু প্রধান শিক্ষক ইসমাইল হোসেন কেন খলসি উচ্চ বিদ্যালয় ছুটি ঘোষণা করেছেন সেটি আমার জানা নেই। শতশত ছাত্র-ছাত্রী এবং অভিভাবকেরা প্রধান শিক্ষক ইসমাইল হোসেনের এহেন কর্মকান্ডের তীব্র ক্ষোভ ও নিন্দা জানায়। প্রধান শিক্ষকের সকল অপকর্ম ধারাবাহিক ভাবে প্রকাশের লক্ষে সাংবাদিকদের তথ্য সংগ্রহ অব্যাহত রয়েছে।

 

Spread the love