শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জ ঝাড়বাড়ীতে অগ্রণী দুয়ার ব্যাংকিং সেবা কেন্দ্রের উদ্বোধন

শেখ মোঃ জাকির হোসেন,দিনাজপুর প্র‘দেশ ও জাতির সেবায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ’-এ শ্লোগানকে সামনে  দিনাজপুরের  বীরগঞ্জে অগ্রণী দুয়ার ব্যাংকিং সেবা কেন্দ্রের উদ্বোধন করা হয়েছে।
মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার শতগ্রাম ইউনিয়নের ঝাড়বাড়ীতে অগ্রণী দুয়ার ব্যাংকিং সেবা কেন্দ্রের ফিতা কেটে উদ্বোধন করেন অগ্রণী ব্যাংক লিঃ এর উপ ব্যাবস্থাপক শামিম আহাম্মেদ।
পরে এক আলোচনা সভায় শতগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যার ডাঃ কে এম কুতুব উদ্দিনের  সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন  অগ্রণী ব্যাংক লিঃ এর উপ ব্যাবস্থাপক শামিম আহাম্মেদ। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন দুয়ার ব্যাংকিং সেবার ব্যাবপস্থানা পরিচালক  সৈয়দ আহাম্মেদ রইছুল এবং অঞ্চল  প্রধান আকরাম উদ্দিন ।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ব্যাংকের বিভিন্ন শ্রেণির কর্মকর্তা-কর্মচারী, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, এলাকার ব্যবসায়ী ও সুধীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
দুয়ার ব্যাংকিং সেবার ব্যাবপস্থানা পরিচালক সৈয়দ আহাম্মেদ রইছুল জানান, এখানে ব্যাংকিংয়ের সেবার মধ্যে রয়েছে, নতুন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলা, অ্যাকাউন্টে টাকা জমা ও উত্তোলন, টাকা স্থানান্তর (দেশের ভেতর), রেমিট্যান্স উত্তোলন, বিভিন্ন মেয়াদি আমানত প্রকল্প চালু, বিদ্যুৎ, টেলিফোন ও গ্যাস বিল পরিশোধ, বিভিন্ন ধরনের ঋণ উত্তোলন ও পরিশোধ এবং সামাজিক নিরাপত্তার আওতায় সরকারি সব ধরনের ভর্তুকি গ্রহণ করা যাবে।  এজেন্ট ব্যাংকিং যেভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করবে : একজন গ্রাহক ‘অগ্রণী দুয়ার ব্যাংকিংয়ে অ্যাকাউন্ট খোলার পর তাকে একটি কিউআর (কুইক রিডার) কার্ড দেয়া হবে। অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা জন্য আঙ্গুলের ছাপ নেয়া হবে। একইসঙ্গে গ্রাহকের ছবি তোলা হবে। এই ছবি ও আঙ্গুলের ছাপ সরাসরি মেইন সার্ভারে সংরক্ষিত থাকবে। এরপর গ্রাহক যখন টাকা লেনদেন করতে আসবেন, তখন তাকে অবশ্যই কিউআর কার্ডটি সঙ্গে নিয়ে আসতে হবে। এই কার্ডে বিশেষ ধরনের নিরাপত্তা ইমেজ থাকবে। এজেন্ট গ্রাহকের কিউআর কার্ডটি একটি ডিভাইসের মাধ্যমে রিড করাবে ও পয়েন্ট অব টারমিনাল (পিওটি) মেশিনে আঙ্গুলের ছাপ নেবেন এবং এই দুটি প্রক্রিয়ায় অনলাইনে মেইন সার্ভারের মাধ্যমে যাচাই করা হবে। পুরো প্রক্রিয়াটি ১০ সেকেন্ডের মধ্যে সম্পন্ন হবে। কিউআর কার্ড ও আঙ্গুলের ছাপ একই ব্যক্তির হলেই লেনদেন করা সম্ভব হবে অন্যথায় সম্ভব নয়।
উল্লেখ্য, একজন গ্রাহকের কার্ড নিয়ে অন্য ব্যক্তি যদি লেনদেন করতে চান, তাহলে সেটা কখনোই সম্ভব হবে না। কারণ কার্ডের সঙ্গে আঙ্গুলের ছাপটি মিলতে হবে। গতানুগতিক পিনভিত্তিক লেনদেনে একজন গ্রাহক সহজেই তার পিন নম্বর ভুলে যেতে পারে বা তার গোপন নম্বরটি অন্য কোনো ব্যক্তি জেনে যেতে পারে। তাতে করে তার পিন নম্বরটি ব্যবহার করে তার অ্যাকাউন্ট থেকে সহজেই যে কেউ টাকা উঠিয়ে নিতে পারে। কিন্তু অগ্রণী দুয়ার ব্যাংকিংয়ের ক্ষেত্রে গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট শতভাগ নিরাপদ থাকবে।

Spread the love