বুধবার ৪ অগাস্ট ২০২১ ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জ পৌরসভার ২০২১-২০২২ অর্থবছরের ১৪ কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেট অনুমোদন

মো. আব্দুর রাজ্জাক : আয় ও ব্যয় সমপরিমাণ ধরে বীরগঞ্জ পৌরসভার ২০২১-২০২২ অর্থ বছরের ১৪ কোটি ০২ লাখ ৭৫ হাজার ৪৪৭ টাকা ৭০ পঁয়সার প্রস্তাবিত বাজেট অনুমোদন।

মঙ্গলবার দুপুরে পৌর ভবনের হলরুমে আয়োজিত জরুরী সাধারণ সভায় (বাজেট সভা) এই বাজেট অনুমোদন করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন বীরগঞ্জ পৌরসভার মাননীয় মেয়র মোঃ মোশারফ হোসেন (বাবুল)।

সভায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যবৃন্দ, জাতীয় চার নেতা, মহান মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদ এবং মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারীদের শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করা হয়।

সভায় বীরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র বলেন, ২০২১ সালের ১৬ই জানুয়ারি নির্বাচনে নির্বাচিত হয়ে ০৮ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণ করি। এরপর থেকে আমি ও আমার পরিষদ নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন এবং বীরগঞ্জ কে আধুনিক, উন্নত, বাসযোগ্য, পরিচ্ছন্ন ও মডেল পৌরসভা হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ শুরু করি। এজন্য বীরগঞ্জবাসীর পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

মেয়র বলেন, করোনার এই দুঃসময়ে আমরা সর্বদা মানুষের পাশে আছি। প্রয়োজনে তাদেরকে খাদ্য সামগ্রী প্রদান করেছি। এভাবেই সব সময় মানুষের পাশে থেকে করোনা মোকাবেলায় আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

তিনি বলেন, কর্মকৌশল ঠিক করেছি। সেগুলো হচ্ছে, পরিকল্পিত পৌর অবকাঠামো নির্মাণের মাধ্যমে রুট পর্যায়ে নাগরিক সুবিধার উন্নয়ন। উন্নত বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, জলাবদ্ধতা নিরসন এবং সবুজায়ন ও পরিবেশবান্ধব অবকাঠামো নির্মাণ/ উন্নয়ন এর মাধ্যমে নগরীর পরিবেশ উন্নয়ন। অপ্রচালিত আয়ের খাত সন্ধানের মাধ্যমে রাজস্ব আয় বৃদ্ধি। পৌর জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা উন্নয়নের মাধ্যমে করোনা ভাইরাস, ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়ার প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ। রাজস্ব ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়নের মাধ্যমে আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধি। কর্ম সম্পাদনে গতিশীলতা আনয়ন ও সেবার মান বৃদ্ধি। দাপ্তরিক কর্মকাণ্ডে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণ। আর্থিক ও সম্পদ ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন।

উন্নত চিকিৎসা সেবা সহজলভ্য করার নিমিত্তে চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের পরিকল্পনা মেয়র আরো বলেন, বীরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর যখন বীরগঞ্জ কে বদলে দিতে কর্মযজ্ঞ শুরু করবো, ঠিক সেই মুহুর্তে বীরগঞ্জে করোনার সংক্রমণ দেখা দেয়, স্থবির হয়ে যায় কার্যক্রম। তবে বর্তমানে করোনা মহামারির মধ্যেই প্রকল্পের আওতায় সড়ক, ড্রেনসহ বিভিন্ন অবকাঠামো উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে। শুধু অবকাঠামো উন্নয়ন নয়, নাগরিক সুযোগ-সুবিধাজুৃক বৃদ্ধি, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, পরিবেশ ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন, শিল্পায়ন, ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, পৌরসভার আয় বৃদ্ধিসহ নানাবিধ প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। পৌরভার উন্নয়ন দৃশ্যমান হয়েছে। ইতোমধ্যে পৌরসভার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ও ওয়ার্ড রাস্তা ও ড্রেন নির্মাণ করা হয়েছে। বীরগঞ্জ পৌরসভার জলাবদ্ধতা দূরীকরণার্থে নর্দমা নির্মাণের কাজ প্রক্রিয়াধীন। চলমান ও নতুন উন্নয়ন প্রকল্পের ব্যাপারে মেয়র বলেন, করোনকালেও পৌরসভার উন্নয়ন থেমে নেই। বীরগঞ্জ পৌরসভার ০৯টি ওয়ার্ডে ক্ষতিগ্রস্থ ও নতুন রাস্তা এবং নর্দমা নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। নক্সা প্রণয়ন কাজে পরামর্শক নিয়োগ সম্পন্ন হয়েছে। গোরস্থানসমূহের অবকাঠামো উন্নয়ন, কাঁচা বাজার, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, নিরাপদ চলাচলে ফুটপাথ নির্মাণ, প্রাকৃতিক জলাশয় সমূহের উন্নয়ন, ওয়াকওয়ে নির্মাণ, গণশোচাগার নির্মাণ, ফুটওভার ব্রীজ ইত্যাদি অবকাঠামো নির্মাণ কাজ বাস্তবায়নে দরপত্র আহ্বান প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। বীরগঞ্জ পৌরসভাকে নতুন রূপে দেখা যাবে।

তিনি আরো বলেন, শুধুমাত্র পরিচ্ছন্ন ও বাসযোগ্য পৌরসভা নয়, একটি কর্মঞ্চল পৌরসভা গড়তে শিল্পায়ন ও কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। শিল্পায়নের মাধ্যমে ছেলে-মেয়ের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে। এছাড়া জীবনমান উন্নয়ন, আলোকায়ন ব্যবস্থার উন্নয়ন, ক্রীড়া ও সংস্কৃতির উন্নয়ন, ও পার্কসহ বিভিন্ন বিনোদনকেন্দ্রের উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে।

সভায় মেয়র বলেন, অদৃশ্য ভাইরাসকে মোকাবেলা করে আমাদের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে। করোনা সংকটের এ মূহুর্তে জাতীয় বাজেটের আলোকে পৌরসভার উন্নয়ন ও নাগরিকসেবা বৃদ্ধিতে বাস্তবসম্মত পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। সেই লক্ষ্যে ২০২১-২০২২ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট প্রণয়ন করা হয়েছে। পৌরসভার গৃহীত পদক্ষেপসমূহ যথাযথভাবে বাস্তবায়নে প্রয়োজন সকল নাগরিকের পরিপূর্ণ আন্তরিকতা ও সহযোগিতা।পৌরসভা যেমন দায়িত্ব রয়েছে পৌরবাসীর নাগরিক স্বাচ্ছন্দের ব্যবস্থা করা, তেমনিভাবে নাগরিকদেরও কর্তব্য রয়েছে পৌরসভাকে তার কাজে সার্বিক সহযোগিতা করা। তাই আমি নাগরিক দায়িত্ব পালন, নিয়মিত কর পরিশোধসহ পৌরসভার সকল উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে পৌরবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পৌরসভার প্যানেল মেয়র-১ ও ০৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃআব্দুল্লাহ আল হাবীব , প্যানেল মেয়র-২ ও ০৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মেহেদী হাসান, প্যানেল মেয়র-৩ নার্গিস বেগম (কেয়া) সংরক্ষিত মহিলা আসনের কাউন্সিলর মোছাঃ রহিমা খাতুন, মোছাঃ ছাবিনা ইয়াসমিন, ০১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল বারিক, ০৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. আব্দুল আহাদ, ০৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. মুক্তার হোসেন, ০৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. হুমায়ুন কবীর, ০৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বনমালী রায়, তাজউদ্দীন আহম্মেদ, সচিব মোঃ হানিফ সরদার, হিসাব রক্ষক (ভাঃ)ওয়াজেদ আলীসহ শাখা প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email