শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদের শাহাদাত বার্ষিকী

আজ বীরশ্রেষ্ঠ ল্যান্স নায়েক নূর মোহাম্মদ শেখের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী। জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। সহযোদ্ধাদের জীবন বাঁচাতে নিয়ে এগিয়ে গেছেন নিশ্চিত মৃত্যুর মুখে। তার সে চেষ্টা সার্থক হয়েছিল। নিরাপদে ফিরতে পেরেছিল সহযোদ্ধারা। শুধু ফিরে আসেননি আমাদের নূর মোহাম্মদ। শত্রুপক্ষের একটি মর্টারের গোলা শেষে পর্যন্ত কেড়ে নিয়েছিল তার জীবন প্রদীপ। পরে জঙলের মধ্যে পাওয়া গেছে এই বীরশ্রেষ্ঠর নিস্তেজ দেহটি। পাকিস্তানি হায়েনারা উপড়ে ফেলেছিল তার দুটি চোখ। দেহকে ছিন্ন-ভিন্ন করেছিল বেয়নার খোচা।
বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ ১৯৩৬ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি নড়াইলের মহেশখালী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার মায়ের নাম জেনাতুননেছা। বাবা আমানত শেখ। নূর মোহাম্মদ ছিলেন বাবা-মার একমাত্র সন্তান। কিন্তু অভাব-অনটনের কারণে শিক্ষাক্ষেত্রে তার অগ্রগতি হয়নি।
ছোটবেলায় তিনি তার বাবা-মাকে হারান। ১৯৬৯ সালে নূর মোহাম্মদ ভর্তি হন ইপিআর বাহিনীতে (বর্তমানে বাংলাদেশে রাইফেল) তখন তার বয়স ২৩ বছর। ট্রেনিংয়ের পর তার পোস্টিং হয় দিনাজপুুর। সেখানে ছিলেন ১৯৭০ সাল পর্যন্ত। তারপর আসেন যশোর হেড কোয়ার্টারে। ১৯৭১ সালে মার্চ মাসে পাকিস্তানিরা বাঙালিদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়লে সিপাহী নূর মোহাম্মদ সৈনিক মনে নাড়া দেয় স্বাধীনতা আর স্বদেশপ্রেম। তার সচেতন বিবেক বোধ তাকে মুক্তিযুদ্ধের উদ্বুব্ধ করে। যশোরে মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি ছিলেন ৮নং সেক্টরের অধীনে।
নূর মোহাম্মদ প্রতিষ্ঠানিক সামরিক প্রশিক্ষণ থাকায় একটি কোম্পানির প্রধান নিযুক্ত করে যশোরের সীমান্তবর্তী গোয়ালহাটি টহলের দায়িত্ব দেয়া হয়। ৫ সেপ্টেম্বর ১৯৭১। মুক্তিবাহিনী বিকেলে বাধা দেয় পাক বাহিনীকে। নূর মোহাম্মদ সঙ্গে ছিলেন দুইজন সহযোদ্ধা গোয়ালহাটির দক্ষিণে ছুটিপরে অবস্থান করছিল পাক বাহিনী। তাদের উপরে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব দেয়া হয় এই পাক বাহিনীর অবস্থানের ওপর। কিন্তু মুক্তিবাহিনীর অবস্থানের কথা বুঝে ফেলে পাক বাহিনী।
তারা তিনজন পাক বাহিনীর নজরে পড়ে যান। চান পাশে অবস্থান নেয় শত্রুসেনারা। শুরু হয় অবিরাম গুলিবর্ষণ।
নূর মোহাম্মদ বুঝতে পারেননি তিনি তার জীবনের শেষ মুখোমুখি। নূর মোহাম্মদ সহযোদ্ধা সিপাহী নান্নু মিয়া ও সিপাহী মোন্তফা। নান্নু হাতে হালকা মেশিনগান আর এটাই ছিল তাদের হাতে প্রধান অস্ত্র। গুলি ছুটতে ছুটতে ফিরতে থাকে তারা তিনজন। এমন সময় হঠাৎ একটি বুলেট এসে সিপাহী নান্নুর বুকে বিঁধে বেরিয়ে যায়। মাটিতে পড়ে যান নান্নু মিয়া।
এলএমজি হাতে তুলে নেন নূর মোহাম্মদ। এক হাতে নান্নু মিয়াকে নিয়ে আর অন্য হাতে নূর মোহাম্মদের মেশিনগান দিয়ে বের হচ্ছে অবিরাম গুলি। কারণ তিনি দলীয় অধিনায়ক। তার দায়িত্ব মুক্তিযোদ্ধাদের জীবন বাঁচানো। ঠিক এই সময় মর্টারের একটি গোলা এসে লাগে নূর মোহাম্মদ ডান পায়ে। পা গুঁড়িয়ে যায়।
শক্রদের ঠেকাতে থাকে সে যাতে মোস্তফা নান্নুকে সঙ্গে করে স্থল ঘাঁটিতে যেতে পারে। কিন্তু সহযোদ্ধাদের ঘাঁটিতে ফেরাতে পারলেও অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে নূর মোহাম্মদ নিস্তেজ হয়ে পড়েন। সেদিন তার আত্মত্যাগ হয়ে ছিল। শ’ শ’ সহযোদ্ধার কন্ঠ রুদ্ধ হয়ে ছিল সেদিন।
তাকে পূর্ণ সামরিক মর্যাদায় সমাহিত করা হয় যশোরের শার্শা উপজেলার উত্তর সীমান্তবর্তী কাশিপুর গ্রামে। প্রতি বছর স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবসে ও তার মৃত্যু দিবসে ওই এলাকার বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা এসে তার স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে যান। ফুুল দেন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা।
Spread the love