রবিবার ২ অক্টোবর ২০২২ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃষ্টির অভাবে কাহারোলে পাট চাষাবাদ নিয়ে দুঃচিন্তায় কৃষকেরা

Jutসুকুমার রায়, কাহারোল প্রতিনিধি : দীর্ঘদিন বৃষ্টি নেই। জমিতে রসের অভাবে কৃষকরা পাট বুনতে না পারায় হতাশা হয়ে উঠছে। অন্যদিকে পাট বপনের এখন উপযোগী সময় চলছে। বৃষ্টি হবে -এমন আশা বুকে নিয়ে কৃষকরা পাট বীজ বপন করলেও রসের অভাবে গজাচ্ছে না পাট বীজ। এ কারণে চাষীরা চলতি মৌসুমে পাটের উৎপাদন নিয়ে চরম আতংকে রয়েছেন। দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার অনেক চাষী জানিয়েছেন, এ অঞ্চলে গম,আলু,কপিসহ অন্যান্য শীতকালীন শাকসবজি উত্তোলনের পর তারা পাট বপন করে থাকেন। আষাঢ়-শ্রাবণ মাসে পাট কর্তনের পর আবার ঐ জমিতে আমন ধানের চাষ করেন। কিন্তু এ বছর বৈশাখ মাসেও দেখা মিলছে না বৃষ্টির। তাই রসের অভাবে শুকনো মাটিতে বপনকৃত পাট বীজ গজাচ্ছে না। উলেস্নখ করে কৃষকরা জানান, বৃষ্টি না হওয়ার কারণে পাটের বীজ বুনতে দেরি হলে এর নীতিবাচক প্রভাব পড়বে আগাম ধান চাষে। এছাড়া কমে যাবে পাটের ফলন। কাহারোল উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, বর্তমান বৈশাখ মাসে খরতাপে খাঁ খাঁ করছে প্রকৃতি। জমিতে রসের অভাবে পাট চাষীরা পাটের বীজ বুনতে পারছে না। বৃষ্টির অপেক্ষায় পতিত পরে রয়েছে অনেক জমি। চাষীরা বৃষ্টির অপেক্ষায় অধীর আগ্রহে চেয়ে রয়েছে আকাশের প্রাণে। আবার অনেক চাষীরা জমিতে স্যালোমেশিনে পানি উঠিয়ে জমিতে সেচ দিয়ে রস তৈরী করে তারপর পাটের বীজ রোপন করতে দেখা যাচ্ছে গ্রাম বাংলার জনপদে। অনেক ক্ষুদ্র ও মাঝারি চাষীরা বৃষ্টির অপেক্ষায় রয়েছেন। অনেক চাষী ধৈর্য্য না ধরে শুকনো জমিতে পাট বপন করে রসের অভাবে অনেক দিনেও বীজ না গজানোয় বিপাকে পড়ে ঘুরপাক খাচ্ছেন। কেউ কেউ কষ্ট করে হলেও এক প্রকার বাধ্য হয়ে বপনকৃত বীজ গজিয়ে তুলতে জমিতে সেচ দিচ্ছেন। উপজেলার তাড়গাঁও ইউনিয়নে পাহাড়পুর গ্রামে পাট চাষী হাসিম উদ্দীন প্রতি বছর গম কাটার পর ২ বিঘা জমিতে পাট চাষাবাদ করেন। কিন্তু এবছর এখনও বৃষ্টিপাত না হওয়ায় এখন পর্যমত্ম সেই চাষী পাট বীজ বপন করতে পারেনি। তিনি বলেন, চৈত্র মাসের পর বীজ বপন করলে পাটের ফলন তেমন একটা ভাল হয় না।

উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের বাসুদেবপুর গ্রামে অতুল চন্দ্র রায় ১০/১২ দিন আগে ৮ শতক জমিতে পাটের বীজ বপন করেন। কিন্তু এখন পর্যমত্ম বীজ না গজানোর ফলে ওই জমিতে স্যালোমেশিন দিয়ে সেচ দিচ্ছেন। তিনি বলেন, পাটের জমিতে সাধারণত সেচ নালা থাকে না। জমিতে রসের অভাবে শত কষ্ট হলেও পানি দিয়েছি। তা না হলে যে পাটের আবাদ তা হারাব।

মির্জাপুর এলাকার রোস্তম আলী ২০ শতক জমিতে বীজ বুনবেন কিন্তু বীজ বপনের ৩/৪ দিন আগেই ওই জমিতে হালকা সেচ দিয়েছেন। তিনি বলেন, কি আর করবো ভাই আবাদ যখন করা লাগে আকাশের বৃষ্টির অপেক্ষায় আর কত দিন থাকব। তার চেয়ে বীজ বপনের আগে থেকেই জমিতে পানি দিয়ে দেই। একদিকে বৃষ্টি অপেক্ষায় থেকে পাট বপনে উপযুক্ত সময় চলে যাচ্ছে। অন্যদিকে জমিতে রসের অভাবে আগাম বপনকৃত বীজ গজাচ্ছে না। এছাড়া দেরিতে পাট বীজ বুনলে আগাম রোপা আমন ধান চাষে ব্যাঘাতের আশংকা করা হচ্ছে। এমন অবস্থায় পাটের আবাদ নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন পাট চাষীরা।

কাহারোল উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ মামুনুর রহমান জানান, চলতি পাট চাষ মৌসুমে কাহারোল উপজেলায় এখন পর্যন্ত ২০৫ হেক্টর জমিতে বীজ বপন করেছেন কৃষকরা। এই উপজেলায় চলতি মৌসুমে ৪২৫ হেক্টর জমিতে পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email