শুক্রবার ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বেগম জিয়ার গ্রেফতারী পরোয়ানা প্রত্যাহারের দাবী, দিনাজপুরে সম্মিলিত পেশাজীবি পরিষদের আলোচান সভা

দিনাজপুর প্রতিনিধিঃগনতন্ত্রকে দাফন করে সরকার গুম, খুন, হত্যা, নির্যাতন, জেল-জুলুমের রাজত্ব কায়েম করেছে । বেগম জিয়ার গ্রেফতারী পরোয়ানা প্রত্যাহারের দাবী দিনাজপুরে সম্মিলিত পেশাজীবি পরিষদের আলোচান সভায় বক্তারা।
দেশ আজ এক মৃত্যু ও আতংক পুড়িতে পরিনত হয়েছে। মানুষের কোন নিরাপত্তা নেই। গনতন্ত্রকে দাফন করে স্বৈারাচার হাসিনা সরকার বাকশাল কায়েম করে গুম, খুন,হত্যা, নির্যাতন,জেল-জুলুমের রাজত্ব কায়েম করেছে। দেশের ১৬ কোটি মানুষ আজ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার গনতান্ত্রিক আন্দোলনের সাথে রাজপথে রয়েছে। বিএনপির চেয়ারপার্সন, ২০ দলীয় ঐক্যজোটের নেতা ও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করে সরকার নিজের পায়ে কুড়াল মাড়ছে। বেগম জিয়ার কিছু হলে দেশের ১৬ কোটি মানুষ রাজপথে ঝাপিয়ে পড়বে। পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি দিয়ে শেষ রক্ষা হবে না। প্রতিটি পেশার মানুষ আজ চরম নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে দায়িত্ব পালন করছে। অবিলম্বে সকল দলের অংশ গ্রহনের মধ্যদিয়ে তত্তাবধায়ক সরকারের অধিনে জাতীয় নির্বাচন দিন। নইলে পালাবার পথ খুজে পাবেন না। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেফতারে ভয় দেখিয়ে কোন লাভ হবে না। দেশের মানুষ তার সাথে আছে। শেখ হাসিনাকে ইঙ্গিত করে বলেন আপনার সাথে জনগন নাই আছে কিছু চাটুকার ও লুটেরা।
গতকাল বুধবার বিকাল ৪ টায় দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সম্মেলন কক্ষে সম্মিলিত পেশাজীবি পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখার আয়োজনে “একুশঃ বিপন্ন গনতন্ত্র ও বর্তমান প্রেক্ষাপট” শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তারা উপরোক্ত কথা বলেন। সম্মিলিত পেশাজীবি পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখার সদস্য সচীব ও ড্যাব দিনাজপুর এর সাধারন সম্পাদক ডাঃ জিয়াউল হক জিয়ার সঞ্চালনায়, দিনাজপুর সম্মিলিত পেশাজীবি পরিষদের আহবায়ক অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, দিনাজপুর শিক্ষক-কর্মচারী ঐক্যজোটের সভাপতি প্রভাষক মঞ্জুরুল ইসলাম। বিষয় বস্তুর উপর বক্তব্য রাখেন, দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধ্যাপক ডাঃ মওদুদ হোসেন(সার্জারী), জেলা আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এড. আব্দুল হালিম, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীরমুক্তিযোদ্ধ মোকসেদ আলী মঙ্গলীয়া, হাবিপ্রবি’র অধ্যাপক টিএমটি ইকবাল, হাবিপ্রবি’র অধ্যাপক হাসান ফুয়াদ এনতাজ, দিনাজপুর শিক্ষক সমিতির সভাপতি আশরাফুল ইসলাম, দিনাজপুর শিক্ষক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী আব্দুর রহিম ও দিনাজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি ও দৈনিক উত্তরার সহকারী সম্পাদক মোঃ ইদ্রিস আলী।
বক্তারা বলেন, সরকার জনগনকে বোকা বানানোর জন্য যতই চেষ্টা করুক জনগন বোকা নয়। দেশের মানুষ সরকারের সকল চাটুকারিতা ধরে ফেলেছে। গনতন্ত্রের জন্য লড়াই করছে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। সরকার নাগরিক অধিকার হরন করে জুলুম-নির্যাতন শুরু করেছে। ২০ দলের আহুত অবরোধ ও হরতালে জনগনের স্বতঃস্ফুর্ত অংশ গ্রহন রয়েছে। পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি দিয়ে বিরোধী দলকে দমন করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে। কারন বিরোধী দলকে মিছিল মিটিং করতে না দিলেও জনগন হরতাল পালন করছে। প্রতিটি দোকান-পাট বন্ধ থাকছে। শেখ হাসিনা সরকারের সময় ঘনিয়ে এসেছে। পালাবার পথ খুঝে না পেয়ে জনগনের উপর নির্যাতন চালাচ্ছে। কিন্তু তাতেও শেষ রক্ষা হবে না। ছাত্রলীগ-যুবলীগের সন্ত্রাসীরা পেট্রোল বোমা মেরে মানুষ হত্যা করছে আর দোস চাপাচ্ছে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের উপর। মিথ্যাচার দিয়ে বেশিদিন টিকে তাকা যায়না। বক্তারা বলেন, যতই জুলুম-নির্যাতন চালান না কেন রাত অনেক গভীর হয়েছে এখন ভোরে সূর্য উঠবে। জনগনের মুখে হাসি ফুটবে কেউ রোধ করতে পারবে না। বক্তারা শেখ হাসিনাকে উঙ্গিত করে বলেন, আর নয় যথেষ্ট হয়েছে এখন দেশের গনতন্ত্র ও দেশের মানুষের কল্যানের কথা চিন্তা করে বিরোধী দলের সাথে সংলাপে বসুন এবং যত দ্রুত সম্ভব তত্তাবধায়ক সরকারের অধিনে সকল দলের অংশ গ্রহনে জাতীয় নির্বাচন দিন। এত দেশের মানুষ মাচবে, দেশ বাচবে ও দেশের গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হবে। আলোচনার শেষ পর্যায়ে বক্তারা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা প্রত্যাহারের দাবী জানান।

Spread the love