শনিবার ২১ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বোচাগঞ্জে তেজপাতার বাগানের প্রতি ঝুকছে এলাকার কৃষকরা

বোচাগঞ্জ (দিনাজপুর)প্রতিনিধি : দিনাজপুৃরের কৃষি সমৃদ্ধ বোচাগঞ্জ উপজেলায় এবার তেজপাতা গাছের বাগানের প্রতি ঝুকছে এলাকার কৃষকরা। অল্প জমিতেই পরিকল্পনা অনুযায়ী বাগান করে ইতমধ্যে বেশ কয়েকজন কৃষক আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছেন।
বোচাগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার জালগাঁও গ্রামের বিশিষ্ট কৃষক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুর রাজ্জাক এক বছরে পুর্বে প্রথমে ৫০ শতক জমিতে তেজপাতার বাগান করেন সেখানে তিনি প্রায় ৪ শতাধিক গাছ রোপন করেন। গত এক বছরের মধ্যে সে দুই দফায় প্রায় লক্ষাধিক টাকার পাতা বিক্রি করেছেন। বছরে অন্তত দুই থেকে তিন বার তেজপাতার গাছ থেকে পাতা মুড়ানো যাবে। রকমারী বিভিন্ন খাদ্য তৈরী করতে মসলা হিসেবে তেজপাতা ব্যবহার হওয়ার কারনে এই অঞ্চলে এর চাহিদা রয়েছে ব্যাপক। ব্যক্তি উদ্যোগে ও সখের বসে অনেকেই বাড়ীর আঙ্গীনায় তেজপাতার গাছ লাগালেও বানিজ্যিক আকারে তেজপাতার বাগান বোচাগঞ্জ উপজেলায় এটাই প্রথম এবং সবচেয়ে বড় বলে জানা গেছে। এরই মধ্যে ইঞ্জিনিয়ার আব্দুর রাজ্জাক তেজপাতার বাগানের পাশে প্রায় এক একর জমিতে আরেকটি তেজপাতার বাগান করার পরিকল্পনা নিয়েছেন।
তার বাগানের কেয়ারটেকার জানান, পুর্বে এই জমিতে অন্যান্য ফসল করে ৫ বছরে যে লাভ হত সেখানে তেজপাতার বাগান করে এক বছরে দ্বিগুন লাভ হয়েছে। পাশাপাশি দীর্ঘদিন এই গাছ থেকে পাতা মুড়িয়ে বাজারে বিক্রির সম্ভাবনা থাকায় কম খরছে অধিক লাভের সম্ভাবনা থাকে। এছাড়াও অন্যান্য বিভিন্ন ফসলের চেয়ে তেজপাতার গাছ পরিচর্চা করতে হয় কম।
উপজেরা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সফিকুল ইসলাম জানান, একটু উঁচু ডাঙ্গা জমিতে তেজপাতার গাছ লাগাতে হবে। এই অঞ্চলের মাটি তেজপাতা গাছ আবাদের জন্য উপযোগি। এজন্য বোচাগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিস কৃষকদের তেজপাতার গাছ আবাদের জন্য কৃষকদের বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী অল্প সময়ে অধিক লাভের আশায় বোচাগঞ্জের কৃষকরা এখন দিন দিন তেজপাতা বাগান করার প্রতি ঝুকছেন। এরই মধ্যে উপজেলার জালগাঁও, আখাপুর, মতিজাপুর, হাট মাধবপুর সহ বিভিন্ন এলাকায় বানিজ্যিক আকারে কৃষকরা তেজপাতার বাগান করছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email