সোমবার ১৬ মে ২০২২ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বোদার জফিরুল খোকার দিনবদল

Picture-BodaFমোঃ নুরেহাবিব সোহেল,বোদা (পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ

উত্তরের হিমেল হাওয়া ও কুয়াশার রহস্যময় চাদর ছড়িয়ে আবির্ভাব হয় শীতকাল। কনকনে শীতের সকালে মুখোরচক খাদ্য হিসাবে পিঠা খাওয়া বাঙ্গালীর আদি ঐতিহ্য। বাংলাদেশের শীতকালীন এক ঐতিহ্যবাহী পিঠা চিতই পিঠা যা সকলেরই পছন্দ। শীতের মৌসুমের শুরুতে বোদা উপজেলার অনেক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী রাস্তার পাশের ফুটপাতে পিঠা বিক্রি শুরু করে । এমনই এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী জফিরুল ইসলাম খোকা বোদা ধানহাটির এক কোণে সারা বছর চিতই পিঠার পাশাপশি শীত মৌসুমে ভাঁপা ও তেল পিঠা বিক্রি করে সংসারের অভাব দুর করেছে। দীর্ঘ একযুগ ধরে সে পিঠা বিক্রি করে জীবনের স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে এনেছে। প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত  প্রতিদিন ১০কেজি চালের পিঠা বিক্রি করে এক থেকে দেড় হাজার টাকা আয় হয়। প্রতিটি ভাঁপা পিঠা ৫ টাকা,চিতই পিঠার দাম ৩টাকা তার সাথে মরিচ বাটা,সরিসা বাটা ও এক টুকরো গুড় ফ্রি। সব খরচ বাদ দিয়ে তার মাসিক আয় ১৫হাজার টাকা। স্ত্রী কে সাথে নিয়ে চলছে তার জীবনে জয়ী হবার সংগ্রাম। প্রতিদিন পিঠা তৈরীর জন্য স্ত্রী রাহিমা চাউল ভিজিয়ে বাড়ীতে আটা বানিয়ে রাখেন। জফিরুল ইসলাম পূর্বে রিক্সা চালাতো সেখান থেকে কিছু অর্থ উপার্জন হলেও  তার স্ত্রী সন্তান নিয়ে নানা অভাবের মধ্যে সংসার চলতো না। জনৈক আজাদের পরামর্শে  মাত্র ৩শ টাকা  পুঁজি দিয়ে শুরু করে চিতই পিঠা বিক্রি। এতে তার কিছু টাকা লাভ হওয়ায় ঝুকে পড়ে পিঠা বিক্রিতে। আজ সে চিতই পিঠা বিক্রি করে নিজের সংসারের অভাব ঘুচাতে সক্ষম হয়েছে। পাশাপাশি ছেলে মেয়েদের পড়া লেখার খরচসহ ২ কন্যাকে বিয়ে দিয়েছেন। ছেলেটি এখন পড়ে বগুড়া হামদর্দ কলেজে। এখন তার হয়েছে নিজের বাড়ী, পাওয়ার ট্রিলার, আবাদী জমি ও ৫টি গরম্ন। ধানহাটির পাশে ভূমি অফিসের সীমানা প্রাচীর ঘেষে একচালা একটি ঘরে ছোট আকারের চিতই,ভাঁপা পিঠা সহ অন্যান্য শীতের পিঠা বিক্রি করেন। সন্ধ্যা হলে তার ব্যস্ততা বেশী দেখা যায়, কারন হিসাবে জানতে চাইলে খোকা জানায় এসময় ক্রেতার সংখ্যা বাড়ে। অনেকেই আবার তার দোকান থেকে পিঠা কিনে বাসা বাড়ীতে ছেলে মেয়েদের জন্য নিয়ে যায়। খোকা আক্ষেপ  করে জানান, জাতীয় নির্বাচনে যদি সব দল অংশ গ্রহন করতো তাহলে লোক সমাগম বেশী হতো । নির্বাচনের কয়েক দিন পিঠা বিক্রি করে সারা বছরের সঞ্চয় জমা করতে পারতাম। পিঠা বিক্রি করে দারিদ্রকে জয় করা খোকার মুখে এখন সুখের হাসি। শীতের শুরু থেকেই বোদা উপজেলার সদরের এলাকা গুলোতে শীতকালীন পিঠা কেনাবেচার ধুম পড়ে যায়। আর এই শীতের পিঠা বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে খোকার মত প্রায় শতাধিক পরিবার।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email