শনিবার ২৫ মার্চ ২০২৩ ১১ই চৈত্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বোদায় অপুষ্টি নিরসনে নানাবিধ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা হাঙ্গার ফ্রি ওয়ার্ল্ড

মোঃ লিহাজ উদ্দীন মানিক, বোদা (পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার চন্দনবাড়ি ইউনিয়নের ৭টি গ্রামের হতদরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত গর্ভবর্তী ও প্রসুতি মায়েদের অপুষ্টি নিরসনের লক্ষে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা হাঙ্গার ফ্রি ওয়ার্ল্ড ২০১০ সাল থেকে পুষ্টি প্রকল্পের আওতায় মা ও শিশুদের নিয়ে পুষ্টি কার্যক্রম শুরু করে৷ এই কাযক্রমের আওতায় ২০১০-২০১২ সাল পর্যন্ত চন্দনবাড়ি ইউনিয়নের ১০টি গ্রামের ১০০ জন মা ও ১০০ জন শিশু নিয়ে কাজ শুরু হয়৷ সেখান থেকে ক্রমান্নয়ে স্বাস্থ্য উন্নয়নের ভিত্তিতে তাদের প্রতি বছর ফেজ আউট করা হয়৷ ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে ৭০ জন করে গর্ভবর্তী ও প্রসুতি মা নিয়ে প্রকল্পের কাজ চলছে৷ উপরোক্ত কার্যক্রমের আওতায় নিম্্নলিখিত কর্মসূচী পরিচালিত হচ্ছে যেমন: বাছাইকৃত ৭০জন মা ও তাদের শিশুদের সপ্তাহে ৬দিন পুষ্টিকর রান্নাকরা খাবার (খিচুরি, ডিম-ছোলা ভুনা, ইত্যাদি) প্রদান৷ ৭০জন মা ৬টি নির্ধারিত স্থানে এবং একটি নির্ধারিত সময়ে জমায়েত হয় যেখানে স্বেচ্ছাসেবীরা তাদের খাবার পরিবেশন করেন এবং নিশ্চিত করেন প্রতিটি মা পরিচ্ছন্ন ভাবে খাবার খেয়েছে কি না৷ তিন মাস অন্তর ৭০জন মা, তাদের স্বামী এবং শাশুড়িদের নিয়ে “খাদ্য ও পুষ্টি শিক্ষা” বিষয়ক কর্মশালার আয়োজন করা হয় সংস্থা কর্তৃক অর্গানিক কৃষি ফার্ম (সিওএফ) এ৷ এখানে পুষ্টি বিষয়ে বিভিন্ন রিসোর্স পারসনসহ সংস্থার প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ষ্টাফগণ কর্মশালা পরিচালনা করেন৷ টেকসই ভাবে পারিবারিক পুষ্টি নিশ্চিত করার লক্ষ্যে মায়েদের এককালিন ৬০০০ টাকা প্রদান করা হয়, যা দিযে মায়েরা ২০-২৫টি মুরগী, বাড়ির উঠানে সবজী বাগান করার জন্য প্রয়োজনীয় বীজ ক্রয়, মুরগীর ঘর এবং ওষুধ বা খাবার ক্রয় করতে পারেন৷ মায়েরা বা তাদের শিশুরা এবং পরিবারের সদস্যরা যাতে মুরগীর ডিম নিয়মিত পেতে পারে সেই ধরণের মুরগী মায়েরা ক্রয় করেছেন কি না তা সংস্থার কর্মীগণ নিশ্চিত করেন৷ এছাড়া মায়েদের মুরগী পালন এবং বাড়ির আঙ্গিনায় সবজি বাগান বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়৷ এলাকার মুরুব্বী, গন্যমান্য ব্যক্তি, শিক্ষক, ইমাম, ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যদের পুষ্টি বিষয়ে সচেতনতা তৈরী এবং যাতে পরবর্তীতে এলাকার মানুষকে পুষ্টি বিষয়ে সচেতন করতে পারেন এই উদ্দেশ্যে বছরে দুইবার “খাদ্য ও পুষ্টি শিক্ষা” বিষয়ক কর্মশালা আয়োজন করা হয় এবং চন্দনবাড়ি ইউনিয়নের ৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের ”পুষ্টি শিক্ষা’ ক্লাশ পরিচালনা করা হয়৷ হাঙ্গার ফ্রি ওয়ার্ল্ড এর পুষ্টি প্রকরে মাধ্যমে গ্রামীণ হত দরিদ্র মায়েরা নিয়মিত পুষ্টি সম্পন্ন খাবার পাচ্ছে এতে করে গর্ভাবস্থার দুর্বলতা থেকে রক্ষা পাচ্ছে৷ এছাড়া পুষ্টি শিক্ষার মাধ্যমে মায়েরা স্বল্পমূল্যে পুষ্টিকর খাদ্য বাছাই সম্পর্কে সচেতন হচ্ছে৷ মায়েদের গর্ভাবস্থায় ও প্রসুতি কালে বিশেষ যত্নের লক্ষে পুষ্টি বিষয়ে শাশুড়ি ও স্বামীরা সচেতন হচ্ছেন এবং পারিবারিক, এলাকার মানুষদের সচেতন করতে উদ্যোগ গ্রহণ করছেন৷ এতে নানা ধরনের কুসংস্কার দূর হচ্ছে এছাড়া গর্ভবতী মায়েদের পরিচর্যার বিষয়ে সচেষ্ট হচ্ছে৷ মা, স্বামী এবং শাশুড়িদের নিয়ে কর্মশালায় ধারাবাহিক ভাবে পুষ্টিকর খাদ্য প্রস্তুতি, মা ও শিশুর যত্ন ও সামাজিক কুসংস্কার কে ভিত্তি করে আলোচনা ও ব্যবহারিক কাজ দেখানো হয় অনেক ক্ষেত্রে নাটিকার মাধ্যমেও বিষয়বস্তু সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা দেয়া হয়ে থাকে৷ এছাড়াও নিরাপদ মাতৃত্ব ও শিশু জন্মদানের জন্য গ্রামের ধাত্রীদের বিশেষ ট্রেনিং দেয়া হচ্ছে এই প্রকল্পের মাধ্যমে৷ সমাজের সর্বস্তরের মানুষ জনের মধ্যে নিরাপদ মাতৃত্ব ও পুষ্টি বিষয়ে সঠিক ধারণা দেয়ার জন্য আরো গ্রামের গণ্য মান্য ব্যক্তিবর্গ ও স্কুল ছাত্রছাত্রীদের মধ্যেও পুষ্টি ও সামাজিক সচেতনতা মূলক তথ্য প্রদান করা হচ্ছে৷ তাদের মাধ্যমে পুষ্টি সম্পর্কিত সামাজিক ভুল ধারণা গুলো দূর করা ও সঠিক পুষ্টি জ্ঞান প্রচার করার জন্য উদ্বুদ্ধ করা হয়৷ ৭ টি গ্রামের প্রাইমারি স্কুল এর শিক্ষার্থীদের বিশেষ পুষ্টি ক্লাস এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পুষ্টিকর খাদ্য নির্বাচনের জন্য বিভিন্ন নাটিকা, গান, ছড়া লিফলেট এর মাধ্যমে পুষ্টি ক্লাস নেয়া হয়৷ শিক্ষার্থীদের পুষ্টি বিষয়ক পোস্টার, খাতা,কার্ড বিতরণ করা হয় পুষ্টি তথ্য প্রচারণার জন্য৷ এখন উক্ত ৭টি গ্রামের স্কুল গুলোতে প্রায় সব শিশুই জানে পুষ্টি কর খাদ্য কোন গুলো৷ কোন খাদ্য খেলে দেহের কি উপকার হয়৷ বিগত বছর গুলোতে পুষ্টি প্রকল্পের আওতাধীন অনেক মা আজ সাবলম্বী৷ এভাবেই গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্টির পাশে থেকে তাদের জীবনযাত্রার মান ও চিন্তার পরিবর্তনের লক্ষে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা হাঙ্গার ফ্রি ওয়ার্ল্ড অবদান রেখে যাচ্ছে ৷