মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বোদায় আন্তর্জাতিক নারী দিবসেও নারীরা বৈষম্যের শিকার

মোঃ নুরেহাবিব সোহেল,বোদা (পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ

বোদায় আন্তর্জাতিক নারী দিবসেও নারীরা বৈষম্যের শিকার হয়েছে। নারী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত বিভিন্ন অনুষ্ঠান মালায় ও আলোচনা সভায় বিশেষ অথিতি হিসেবে নেই কোন নারী নেত্রীর নাম। অথচ দেখা যায় উপজেলা পর্যায় দ্বিতীয় সবর্বচ পদটি অসিন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান । ‘‘অগ্রগতির মুল কথা নারী পুরুষ সমতা’’ এই পতিপাদ্য সামনে রেখে সারম্বরে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত হলেও এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যন লাইলী বেগমকে। অপর দিকে এখনও আমাদের সমাজে নারী শ্রমিকরা পারিশ্রমিক বৈষম্যের শিকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত।  এই জনপদে দিন দিন কৃষি শ্রমিক হিসেবে নারী শ্রমিকরা জন প্রিয় হয়ে উঠছে। শুধু কৃষিই নয় নির্মার্ণ,ঘর গৃহস্থালী ও বিভিন্ন ধরনের কলকারখানা সহ সব অংগনে রয়েছে নিরলস পদচারন। কারণ হিসেবে সব খাতে পুরুষের প্রায় সমকক্ষ ও বেশি সময় ধরে কাজ করে নারী শ্রমিকরাই। বিনিময়ে তারা পুরুষের তুলানাই কম পারিশ্রমিক পেলেও এব্যপারে নেই তাদের কোন জোরালো অভিযোগ। রয়েছে শুধু বুক ভরা হাহাকার আর হতাশা। সব মিলিয়ে জীবন যুদ্ধে নিবেদিত এক বলিষ্ঠ যোদ্ধার আমরণ আপোষহীন সংগ্রামের চিত্র। আবহমান এই রুপসী বাংলায় এমন এক সময় ছিল যখন এদেশের নারীদের নরম হাতে রং বেরঙের চুড়িই শোভা পেত। এখন সেই হাতে চুড়ির বদলে তাদের নিত্য সঙ্গী হয়েছে কাজের নানা সরঞ্জাম। কাক ডাকা ভোরে ঘুম থেকে উঠে সংসারের যাবতীয় কাজ শেষ করে সেই নারীরা ছুটে যান আয়ের কর্মক্ষেত্রে। একজন পুরুষ শ্রমিক যেখানে দৈনিক ২৫০-৩০০ টাকা মুজুরী পায় সেখানে একজন নারী শ্রমিক সর্বোচ্চ ১৫০-১৮০ টাকা। এই অঞ্চলে অনেক নারী সংগঠন কাজ করলেও এনিয়ে আজ পর্যন্ত কোন কর্মসূচী বা টেবিল আলোচনারও কোন খবর কারো জানা নেই। নারী শ্রমিক জুলেখা জানায়, নিতান্তই পেটের তাগিদে তারা বিভন্ন পেশায় শ্রমিক হয়েছে। কাজ হারানোর ভয়ে পারিশ্রমিক বাড়ানোর কথা মুখ ফুটে মালিককে বলতেও পারেনা। সরকারি ও বে-সরকারী বিভিন্ন সংগঠন নারীদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের কথা ভাবলে হয়তো পাল্টানো যাবে এঅঞ্চলের নারী শ্রমিক অঙ্গনের দৃশ্যপট। অর্থনৈতিক মুক্তি মিলবে অনেক নারীর পরিবারে। হয়তো বুনবে আগামীর স্বপ্ন এ আশায় এখনও পথ চেয়ে রয়েছে এই জনপদের অবহেলিত অগনিত নারী শ্রমিকরা।