বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বোদা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে যে কারণে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির ভরাডুবি

মোঃ নুরেহাবি সোহেল,বোদা (পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ

গত ১৯ ফেব্রুয়ারী  বোদা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জামায়াত সমর্থীত প্রার্থী সফিউল্লাহ সুফি’ ব্যাপক ভোটের ব্যবধানে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তার কাছে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি সমর্থীত  অনেক হেভিওয়েট প্রার্থী পরাজিত হন। এখানে আওয়ামীলীগের প্রার্থী  অধ্যাপক ফারুক আলম টবির সাথে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী  প্রার্থী চন্দনবাড়ী ইউ.পি’র ৫বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হুসেন বাবুল প্রতিন্দন্দ্বীতায় অবর্তীর্ণ হন আর সে কারণে আওয়ামীলীগের ভোট ভাগাভাগি হয়ে যায়। ফারুক আলম টবি উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও চেয়ারম্যান পদ-প্রার্থী হিসেবে তৃর্নমুল নেতা কর্মীদের একাট্টা করতে ব্যর্থ হয়, দলের মধ্যম সারির অনেক নেতাই তার পক্ষে তেমন জোরালো ভূমিকা নেয়নি বলে রাজনৈতিক বিশে­ষকদের অভিমত। পাশাপাশি স্থানীয় সাংসদ এ্যাডঃ নুরুল ইসলাম সুজন একই সাথে চেয়ারম্যান,ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের জন্য নির্বাচনী মাঠে সরাসরি ভোট চাওয়ায় সাধারণের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রীয়ার সৃষ্টি হয়। অপর দিকে বিএনপি সমর্থীত ৩জন  প্রার্থী  থাকায় বিএনপির নেতাকমীরা দ্বিধাবিভক্তিতে পড়ে যায়। ভোটের আগমুহূর্তে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আঃ আজিজ সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচন থেকে নিজেকে সরিয়ে নেওয়ায় ভোটের হিসাব নিকাষ অনেকটা পাল্টে যায়। বিএনপির সাবেক সংসদ ও পঞ্চগড় জেলা বিএনপির সভাপতি মোজাহার হোসেন দফায় দফায় বৈঠক করেও বোদা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সর্বজনবিদীত নেতাকে খুজতে ব্যর্থ হয়ে একক প্রার্থী ঘোষনা না করে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোয়াজ্জেম হুসেন বাবুলকে মৌন সমর্থন দেয়ায় তৃর্নমুল নেতাকর্মী ও সমর্থকরা হতাশ হয়ে পড়ে। বিগত দিন গুলোতে বোদায় আন্দোলন সংগ্রামে জামায়াতকে মাঠে দেখা না গেলেও ভোটের মাঠে সুফির পক্ষে জামায়াত  কর্মী সমর্থকদের নির্ঘুম প্রচারণা চালাতে দেখা গেছে। নিজেদের দলীয় কোন্দল সমাধা করতে না পারলে আগামীতে রাজনীতির মাঠে জামায়াতকে মোকাবেলা করা আওয়ামীলীগ ও বিএনপির  উভয়ের  জন্যে বুমেরাং হবে বলে  স্থানীয় সুধীজনদের অভিমত।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email