সোমবার ১৬ মে ২০২২ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বোদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নতুন ভবন ৯ বছরেরও উদ্বোধন হয়নি

BODA Haspatalমোঃ নুরেহাবিব সোহেল,বোদা (পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ

জেলার সীমান্তবর্তী উপজেলা আটোয়ারী,দেবীগঞ্জ ও ঠাকুরগাঁও জেলার মধ্যবর্তী বোদা উপজেলা একটি অগ্রসরমান জনপদ। উপজেলার একমাত্র স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির নুতন ভবন দীর্ঘ ৯বছর অতিক্রম হবার পরও উদ্বোধন করা সম্ভব হয়নি। নতুন ভবনের উদ্বোধনী প্রক্রিয়া এখন লাল ফিতায় বন্দি হয়ে আছে। উপজেলাবাসীর অভিযোগ,আমলা তান্ত্রিক জটিলতার কারণেই সম্প্রসারিত নতুন ভবনের কার্যক্রম বছরের পর বছর ঝুলে রয়েছে। ফলে এলাকাবাসী আধুনিক চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হবার পাশাপাশি অন্য জেলা সদরে গিয়ে চিকিৎসা নিতে বাধ্য হচ্ছে। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়,৩১ শয্যা বিশিষ্ট অত্র স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ৫০ শয্যায় উন্নিত করা হয়। চিকিৎসা সেবা জনগণের দোড় গোড়ায় পৌছে দিতে মুল ভবনের পার্শ্বে নতুন ভবন সম্প্রসারিত করা জন্য ২০০৫ সালে এইচপিএনআইডিপি প্রকল্পের আওতায় দরপত্র আহবান করা হয়। ঢাকার মহাখালীর মেসার্স ম্যাক্স রিলায়েন্স ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ৬ কোটি ৩০ লক্ষ টাকা  প্রাক্কলিত ব্যয়ে কাজটি শুরু  করে। ১৮ মাসে কাজটি শেষ করার শর্ত থাকলেও কাজ শেষ না করেই ৮০ শতাংশ বিল তুলে এক এগারোর সময় কাজটি অসমাপ্ত  রেখে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটির প্রধান দেশের বাইরে চলে যায়। এতে ঝুলে পড়ে কমপ্লেক্সটির ভবিষ্যৎ। পরবর্তীতে এইচ আইডি উক্ত প্রতিষ্ঠানের নামে মামলা দায়ের করে। মামলায় এইচআইডি রায় পেয়ে সংশোধিত ২কোটি৩০লক্ষ টাকা প্রাক্কলিত ব্যায় নির্ধারণ করে পূনারায় দরপত্র আহবান করে। ঢাকার  ইউনাইটেড এন্টারপ্রাইজ নামক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কার্যাদেশ পেয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মুল ভবনের কাজটি সমাপ্ত করে  গত নভেম্বর মাসে কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করে। কিন্তু অদৃশ্য কারণে সম্প্রসারিত কমপ্লেক্সটি এখন কার্যক্রম চালু করা সম্ভব হয়নি।  নতুন ভবনটিতে ওয়ার্ড,প্যাথলজি,অপারেশন থিয়েটার,জরুরী বিভাগসহ আত্মঃ বিভাগ ও বহিভাগে চিকিৎসা সেবা দেবার মত সকল সুযোগ সুবিধা সম্বলিত অবকাঠামো রয়েছে। শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অবহেলা ও উদাসিনতার কারণে দীর্ঘদিনেও নতুন ভবনটির উদ্বোধন করা সম্ভব হয়নি। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির ৫০ শয্যায় উন্নিত করা হলেও প্রয়োজনীয় সংখ্যক চিকিৎসক,নার্স,টেকনিশিয়ানসহ অন্যান্য পদে লোক নিয়োগ না দেয়ায় চিকিৎসার ক্ষেত্রে যোগ হয়নি বাড়তি কোন সুযোগ সুবিধা। উপজেলার কয়েক লক্ষাধীক নাগরিকের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে নতুন ভবনটি চালু জরুরী হলেও শুধু চিঠি চালাচালি করেই কর্তৃপক্ষ কালক্ষেপন করছেন। এ বিষয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আনোয়ার আলীর দৃষ্টি আকর্ষন করা হলে তিনি জানান, আসবাবপত্রের অভাবে ভবনটি চালু করা সম্ভব হচ্ছেনা। এবিষয়ে উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email