শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্যবসায়ী হত্যার অভিযোগে এসআই জাহিদ আটক

Siঅবশেষে রাজধানীর মিরপুরের ঝুট ব্যবসায়ী মাহাবুর রহমান সুজন (৩৫) হত্যাকান্ডে অভিযুক্ত মিরপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জাহিদুর রহমানকে আটক করা হয়েছে। আজ বুধবার তাকে রাজারবাগ পুলিশ লাইন থেকে আটক করা হয় বলে জানা গেছে। এর পর তাকে মিরপুর থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা রুজু করতে নিহত সুজনের পরিবারকে খবর দেয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত গত ১২ জুলাই শনিবার গত শনিবার গভীর রাতে রাজধানীর শংকর এলাকা থেকে আটক করা ঝুট ব্যবসায়ী মাহাবুবুর রহমানকে জাহিদুর পিটিয়ে মেরেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। মাহাবুবুরের স্বজনেরা বলেন, চাহিদামতো টাকা না দেয়ায় এসআই জাহিদ এ ঘটনা ঘটিয়েছেন।
পুলিশের মিরপুর বিভাগের উপকমিশনার ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, আজ বুধবার সুজনের লাশের ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পুলিশের হাতে এসেছে। সেখানে মৃত্যুর কারণ হিসেবে বলা হয়েছে- হত্যাজনিত (হোমিসাইড)। তিনি বলেন, সুজনের পরিবারের অভিযোগ ছিল এসআই জাহিদের বিরুদ্ধে। তাই ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর তাত্ক্ষণিকভাবে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
সুজনের পরিবারের অভিযোগ, নির্যাতন করে তাকে হত্যা করা হয়েছে। সুরতহাল রিপোর্টেও নির্যাতনে মৃত্যুর বিষয়টি উঠে এসেছে। এ ঘটনায় ওই দিনই এসআই জাহিদকে থানা থেকে প্রত্যাহার করে রাজারবাগ পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়। এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে আজ বুধবার সন্ধ্যায় মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সালাউদ্দীন আহমেদ বলেন, নির্যাতনের শিকার সুজনের ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর বিকালে তাকে আটক করা হয়।
বহুল আলোচিত এসআই জাহিদ এর আগে গত ফেব্রুয়ারিতে মো. জনি নামের এক বিহারি যুবককে পিটিয়ে হত্যা করেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। তিনি তখন পল্লবী থানায় কর্মরত ছিলেন। ওই ঘটনার পর পল্লবী থানা থেকে তাকে প্রত্যাহার করা হয়। জনি হত্যার তদন্ত এখনো চলছে, এর মধ্যেই তিনি মিরপুর মডেল থানায় যোগ দিয়েছেন। গত রবিবার সুজনকে হত্যার অভিযোগ ওঠার পর আবারও তাঁকে প্রত্যাহার করা হয়।
এছাড়া গত জানুয়ারিতে জাভেদ হোসেন নামের এক যুবককে পায়ে গুলি করেন এসআই জাহিদ। পরে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে রাজধানীর জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে তার মৃত্যু হয়। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে চাঁদার দাবিতে আরও অনেককে ধরে এনে নির্যাতন, মামলার ভয় দেখিয়ে টাকা আদায়, পিটিয়ে হাত-পা ভেঙে দেয়ারও অভিযোগ রয়েছে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে ক্ষোভ প্রকাশ করে স্থানীয় এমপি ইলিয়াস মোল্লাহ সাংবাদিকদের বলেন, জনি হত্যার এক সপ্তাহ আগেই আমি পুলিশের ডিসি সাহেবরে বলেছিলাম, এসআই জাহিদ অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে, ব্যবসা-বাণিজ্য ছাড়া তার কোনো কাজ নাই। তারে সরান। আপনারও সম্মান রক্ষা হোক, আমারও হোক। তিনি বললেন- দেখতাছি। এক সপ্তাহ পরে তো জনিরে মারল। জনি হত্যার পরে আমি ডিসি সাহেবকে বললাম, ঘটনা তো একটা ঘটে গেল। জনির বাবা-মা যেন মামলা করতে পারে, সে ব্যবস্থা নেন। পুলিশ সেটাও করল না।
জানা যায়, এসআই জাহিদের বিরুদ্ধে চলতি বছর সুজন, জাভেদ ও জনি নামের ৩ জনকে হত্যার অভিযোগ রয়েছে। তবে পুলিশ এ সব অভিযোগ বরাবরের মতোই অস্বীকার করেছে। তবে সর্বশেষ মিরপুর থানায় কমর্রত অবস্থায় গত ১২ জুলাই শনিবার রাতে তার হেফাজতে সুজনকে নির্যাতন করে মেরে ফেলার ঘটনায় ফেঁসে যান জাহিদ।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email