শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্যস্ত হয়ে উঠেছে ঠাকুরগাঁওয়ের দর্জিপাড়ার কারিগররা

Thakurটেবিলে কায়দা করে কাপড় বিছানো। তারপর কচ কচ করে কাঁচিতে কাটা। পাশেই সেলাই মেশিনের খরর খরর শব্দ। পোশাক বানানোয় ব্যস্ত দর্জিরা। ঘুম নেই দর্জিপাড়ায়। ঈদকে সামনে রেখে ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত অত্যন্ত ব্যস্ত সময় পার করছেন ঠাকুরগাঁওয়ের দর্জিবাড়ির কারিগররা।আকবর হোসেন। ঠাকুরগাঁও নর্থ সার্কুলার রোডের একটি দর্জিদোকানের মালিক তিনি। পচিঁশজন কারিগর দিয়ে প্রতিষ্ঠান চালাচ্ছেন। রোজার আগে কাজের অর্ডার বেশি থাকায় আরও কয়েকজন কারিগর নিয়োগ দিয়েছেন।
তারপরও গ্রাহক সামলাতে হিমশিম খাচ্ছেন তিনি। তিনি জানান, কাজের অর্ডার এখন পর্যন্ত ভাল এলেও তা গত বছরের তুলনায় কম। ঈদের আগে অর্ডার আরও বাড়তে পারে। ঠাকুরগাঁও বিভিন্ন মার্কেটে দর্জির দোকানের কারিগরদের এখন দম ফেলার জো নেই। দিন-রাত নতুন নতুন পোশাক বানিয়ে চলেছেন তারা। রবিউল আলম নামে এক গ্রাহক জানান, ছোটবেলা থেকেই তিনি তৈরি করা শার্ট-প্যান্ট পরেন। প্রতি বছর তিন থেকে চার সেট পোশাক বানাতে হয় তার। ব্যতিক্রম হয়নি এবারের ঈদেও।
একটি অভিজাত দোকানে একটি শার্ট ও একটি প্যান্ট ৭০০ টাকা মজুরিতে সেলাই করিয়েছেন তিনি। শহরে এক নামিদামি দর্জির দোকানে মোহাম্মদ টিটু নামের এক গ্রাহক দুটি শার্ট তৈরি করতে দিয়েছিলেন। কিন্তু নির্ধারিত তারিখে শার্ট দুটি না পাওয়ায় তিনি অভিযোগ করেন। দর্জির দোকানের ম্যানেজার ইমরান হোসেন জানান, অন্য দর্জিদের তুলনায় তার সার্ভিস ভালো। গ্রাহকও বেশি। তাই কোন কোন ক্ষেত্রে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাপড় সেলাই শেষ করা সম্ভব হচ্ছে না। ইডেন টেইলার্সের বিক্রয় কর্মকর্তা বলেন, ‘যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে তারা আধুনিক ফ্যাশনের পোশাক তৈরি করেন। এ কারণে তাদের দোকানে প্রচুর ভিড় হচ্ছে। রমজানের আগেই কাজের চাপ শুরু হয়েছে।
তবে আগের বছরের তুলনায় অনেক কম।’ঠাকুরগাঁও হাওলাদার মার্কেটে পোশাক বানাতে এসেছেন লিপি আক্তার। তিনি বলেন, ‘ঈদের সময় সবাই চায় নতুন পোশাক পরতে। রেডিমেড পোশাকের দোকানে একই নকশার অনেক পোশাক থাকে। ফলে সেখান থেকে কেনা পোশাকটির স্বাতন্ত্র্য অনেক ক্ষেত্রেই থাকে না। এজন্য প্রতিবারই ঈদে নিজের পছন্দমতো কাপড় কিনে দর্জির কাছে বানাতে দেই।’দর্জি দোকান মালিকরা জানান, গত বছরের তুলনায় এ বছর অর্ডার কম হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে কথা হয় ঠাকুরগাঁও এলিট টেইলার্সের স্বত্বাধিকারী আকবর হোসেন সঙ্গে। তিনি বলেন, দেশের রাজনৈতিক অবস্থা এখনো অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছে। ব্যবসা-বাণিজ্য চাঙ্গা নেই। অন্যদিকে চাকরিজীবীরা জুলাই মাসের বেতন হাতে না পাওয়ায় পোশাক তৈরির অর্ডার কম হচ্ছে।
টেইলার্সের মাস্টার হারুন অর রশীদ বলেন, সামগ্রিক ভাবে ব্যবসা-বাণিজ্যের অবস্থা খুব খারাপ। আর তার প্রভাব দর্জিপাড়ায় পড়েছে।পোশাকের মজুরি প্রসঙ্গে তিনি জানান, অন্যান্য সময়ে একটি প্যান্টের মজুরি নেওয়া হয় ৩৬০ টাকা। কিন্তু ঈদের সময় কারিগরদের পারিশ্রামিক বেড়ে যাওয়ায় এর মজুরি দাঁড়ায় ৩৯০ টাকা। অন্যদিকে শার্টের মজুরি ৩০০ টাকার পরিবর্তে ৩৫০ টাকা নেওয়া হচ্ছে। বড় মার্কেটের দর্জি দোকান ছাড়াও বিভিন্ন ছড়ানো ছিটানো সকল দর্জিবাড়িতেই বাড়তি ভিড়। কোনো কোনো দর্জি দোকানে থান কাপড়ও বিক্রি হচ্ছে। কয়েকজন টেইলার্স মালিক জানান, তারা ভালো ব্যবসার জন্য ঈদ মৌসুমের অপেক্ষায় থাকেন। এ সময়ে তাদের ব্যস্ততা বেড়ে যায় এবং তা অব্যাহত থাকে চাঁদ রাত পর্যন্ত।