সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বড়পকুরিয়ায় কয়লা উত্তোলন শুরু হলেও বিক্রি বন্ধ থাকায় ভাটা মালিকরা বিপাকে

শেখ সাবীর আলী, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লাখনিতে দীর্ঘ ৬ মাস কয়লা উত্তোলন বন্ধ থাকার পর ১৫ নভেম্বর বিকেল থেকে পুরোদমে কয়লা উত্তোলন শুরু হয়। এতে কয়লা খনি সংলগ্ন বড়পুকুরিয়া ২৫০ মেগাওয়াট কয়লা ভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি জ্বালানী সংকট থেকে রক্ষা পেলেও কয়লা বিক্রি বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন কয়েক হাজার ইট ভাটা মালিক ।

বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি লিঃ এর মহা ব্যবস্থাপক (মাইনিং) হাবিব উদ্দিন আহমেদ বলেন, চলতি সনের গত ১০মে ১২০৫ নং কোল ফেস থেকে কয়লা উত্তোলনের সময় ভূ-গর্ভে হঠাৎ পানির প্রবাহ বেড়ে যাওয়ায় কয়লা উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়। এরপর থেকে ঐ কোল ফেসটি থেকে কয়লা উত্তোলন বন্ধ রেখে ১২১২ নং নতুন কোল ফেস এর কাজ শুরু করা হয়। সম্পূর্ণ রুপে কাজ শেষ হলে গত ১৫ নভেম্বর বিকেল থেকেই আবারো কয়লা উত্তোলন শুরু হয়ে যায়। সেদিন থেকেই প্রতিদিন ৪ হাজার থেকে ৫ হাজার মেট্রিক টন পর্যমত্ম কয়লা উত্তোলন করা হচ্ছে খনির ১২১২ নম্বও কোল ফেজ থেকে। তিনি আরও বলেন তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য বড় ধরনের কয়লার মজুদ রাখার পর পরই ইটভাটাসহ খোলা বাজাওে কয়লা বিক্রি শুরম্ন হবে।

উলে­খ্য যে, ২০০৫ সালে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি থেকে কয়লা উত্তোলন শুরম্ন হলে উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন ইট ভাটার মালিকেরা এখান থেকে কয়লা কিনে তাদের ইট ভাটায় জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার করে আসছেন। এ বছর ভরা মৌসূমে এখানকার কয়লা না পেয়ে ভাটা মালিকেরা চরম বিপাকে পড়েছেন। মাইশা ব্রিক ফিল্ডের মালিক আ: মান্নান সরকার জানান অত্র এলাকার ভাটা মালিকেরা বিগত কয়েক বছর থেকে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির কয়লা ব্যবহার করে আসছেন, এ বছর বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি থেকে কয়লা কিনতে না পেরে তারা চরম বিপাকে পড়েছেন। আমিন ব্রিক্সের মালিক রুহুল আমিন বলেন ভারত থেকে কয়লা আমদানী বন্ধ থাকায় এবং বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির কয়লা বিক্রি বন্ধ থাকায় এ বছর ভাটা ও শ্রমিকদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন।

Spread the love