শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বড়পুকুরিয়ার কয়লা বিক্রি করতে না পেরে শত কোটি টাকার লোকসানে পড়েছে

Pic-Koolদিনাজপুর প্রতিনিধিঃ উৎপাদিত কয়লা বিক্রি না হওয়ায় দুই মাস কয়লা উৎপাদন বন্ধ রাখার জন্য উৎপাদনকারী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চীনা মাইনিং কোম্পানি সিএমসিকে পত্র দিয়েছে দিনাজপুরের পার্বতীপুরস্থ বড়পুকুরিয়া কোল মাইন কোম্পানি লিমিটেড। গত বৃহস্পতিবার এই পত্র দেয়া হয়েছে বলে সংশি­ষ্ট সূত্রে জানা গেছে। এ সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে শ্রমিকদের মাঝে চাপা ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটতে পারে শ্রমিক অসন্তোষের ঘটনা। ফলে বড়পুকুরিয়ার কয়লা বিক্রির মৌসুমে কয়লা বিক্রি করতে না পেরে শত কোটি টাকার লোকসানে পড়েছে। টন প্রতি ২ হাজার ৫০০ টাকা কম দামে কয়লা বিক্রির ঘোষণা দিয়েও গ্রাহক পাচ্ছে না খনি কর্তৃপক্ষ। কয়লার প্রধান গ্রাহক ভাটা মালিকরা বলছেন, ভরা মৌসুমে খনি কর্তৃপক্ষ কয়লা বিক্রি না করায় বাধ্য হয়ে তাদের আমদানিকৃত কয়লার ওপর নির্ভর করতে হয়। অথচ ভরা মৌসুমে কয়লা বিক্রি করলে খনিকে এই লোকসানে পড়তে হতো না। কয়লা ইয়ার্ডের ধারণ ক্ষমতা ২ লাখ মেট্রিক টন। বর্তমানে ইয়ার্ডে মজুদ কয়লার পরিমাণ ৫ লাখ মেট্রিক টন। এ কারণে কয়লা ইয়ার্ডটি এখন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। কয়লা খনিতে কর্মরত শ্রমিকরা জানান, কয়লা ইয়ার্ডে ধারণ ক্ষমতার অধিক কয়লা মজুদ হওয়ায় কয়লার সত্মূপে তাপ মাত্রা বৃদ্ধি পেয়ে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটছে। খনি কর্তৃপক্ষ পানি সেচ দিয়ে কোনো রকমে কয়লা ইয়ার্ডকে রক্ষা করছে। এ বিষয়ে গতকাল বুধবার বড়পুকুরিয়া কোল মাইন কোম্পানি লিমিটেডের এমডি প্রকৌশলী আমিনুজ্জামান বলেন, প্রতিদিন কয়লা উৎপাদন হচ্ছে এমন কি বিক্রিও হচ্ছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email