মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বড়পুকুরিয়ায় কয়লা ক্রয়ে চাহিদা বাড়ছে

Hakimpurদিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে উত্তোলিত কয়লা প্রতি টন কয়লার মূল্য ৩ হাজার ৪৫৮ টাকা কমিয়ে সাড়ে ৭ হাজার মূল্য নির্ধারণ করায় কয়লা বিক্রির চাহিদা বেড়ে গেছে। খনি প্রকল্প এলাকায় সাড়ে ৩ লাখ মেট্রিক টন উত্তোলিত কয়লা মজুদ রয়েছে।
দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আনিসুজ্জামান জানান, প্রকল্প থেকে উত্তোলিত প্রায় ৪ লাখ মেট্রিক টন কয়লা মজুদ ছিল। ভারত থেকে সাড়ে ৭ হাজার টাকা মূল্যে নিুমানের কয়লা ব্যবসায়ীরা আমদানী করে ইটভাটায় ব্যবহার করতো। বিষয়টি অনুধাবন করতে পেরে পেট্রো বাংলা কর্তৃপক্ষ সরকারের নীতিনির্ধারণী মহলের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে প্রতি টন কয়লার মূল্য ১২ হাজার ৬৫৮ টাকা থেকে ৩ হাজার ৪৫৮ টাকা কমিয়ে ৯ হাজার ২শ টাকা মূল্যে বিক্রি করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। ফলে গত ১০ দিন থেকে কয়লা খনি প্রকল্প থেকে প্রতিদিন ৪ থেকে ৫ হাজার মেট্রিক টন কয়লা ইটভাটা মালিকেরা ক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছে।
দিনাজপুর জেলা ইটভাটা মালিক সমিতির সহ-সভাপতি রেজাউল ইসলাম জানান, নিজের এলাকার উত্তোলিত উন্নত মানের কয়লা ব্যবহারের জন্য সবসময়ই ইটভাটা মালিকেরা আগ্রহী ছিল। কিন্তু প্রতি টন কয়লার মূল্য বেশি থাকায় বাধ্য হয়ে ইটভাটা মালিকেরা ভারতের নিু মানের কয়লা আমদানী করে ইটভাটায় পুড়তো। এখন স্বাভাবিকভাবেই কয়লার মূল্য ৯ হাজার ২শ টাকা করায় ইট ভাটা মালিকেরা আগ্রহী হয়ে বড়পুকুরিয়ার উত্তোলিত কয়লার উপর ঝুঁকে পড়েছেন। বড়পুকুরিয়া উন্নতমানের কয়লা। এই কয়লার সাথে ভারত থেকে আমদানী করা কয়লার সাথে তুলনা করা যায় না। কারণ ভারতের কয়লা খুব নিুমানের। যেখানে বড়পুকুরিয়ার কয়লা ১টনে কাজ হবে, সেখানে ভারতের নিুমানের কয়লা দেড় টন প্রয়োজন হয়।
বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক জানান, গত ২৬ মার্চ থেকে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির উত্তোলন বন্ধ রয়েছে। উৎপাদনশীল ১২০৬ নম্বর কোল ফেজ থেকে উত্তোলনযোগ্য কয়লার মজুদ শেষ হওয়ায় এবং নতুন কোল ফেজ থেকে কয়লা উত্তোলনের প্রস্তুতিমূলক কাজ চলায় কয়লার উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। তিনি জানান, ১২০৬ নম্বর কোল ফেজ থেকে কয়লা উৎপাদন যন্ত্রপাতি সরিয়ে ১২০৫ নম্বর নতুন ফেজে স্থাপন কাজের জন্য কয়লার উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। এটি কয়লার খনির একটি স্বাভাবিক কার্যক্রম। এ কাজের জন্য ত্রিশ থেকে চলি¬শ দিন সময় লাগতে পারে। তবে মে মাসের প্রথম সপ্তাহে নতুন ফেজ হতে কয়লা উত্তোলন শুরু করা যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।
গত ২৫ মার্চ ১২০৬ নম্বর কোল ফেজরে উত্তোলনযোগ্য কয়লার মজুদ শেষ হয়ে যাওয়ায় নতুন ১২০৫ নম্বর ফেজ থেকে কয়লা উত্তোলন করার সিদ্ধান্ত নেয় খনি কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে ১২০৬ নম্বর ফেজের কয়লা আহরণ ও উত্তোলনের কাজে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি সরিয়ে এনে ১২০৫ নম্বর কোল ফেজে স্থাপনের কাজ চলছে। এ কারণে ২৬ মার্চ থেকে খনির কয়লা উত্তোলন বন্ধ রয়েছে।
অন্যদিকে নতুন পদ্ধতিতে কয়লা আহরণের ফলে কয়লার উৎপাদন প্রায় দ্বিগুণ বেড়ে যাওয়ায় খনির কোল ইয়ার্ডে জমে উঠেছে কয়লার বিশাল স্তুপ। পূর্বে ভূগর্ভস্থল থেকে যে পরিমাণ কয়লা উত্তোলন করা হতো তা মজুদ কয়লার ৩০ থেকে ৪০ ভাগ। বর্তমানে আধুনিক যন্ত্রপাতি যেভাবে উত্তোলিত হচ্ছে তা ৫০ থেকে ৭০ ভাগ। ফলে কয়লা উত্তোলনের পরিমাণ পূর্বের তুলনায় দ্বিগুন হয়েছে। খনিতে মজুদ কয়লা বিক্রি করা না গেলে এর রক্ষণাবেক্ষণে নানা ঝামেলা পোহাতে হয়। ফলে কর্তৃপক্ষ কয়লার মূল্য ১২ হাজার ৬৫৮ টাকা থেকে ৩ হাজার ৪৫৮ টাকা কমিয়ে ৯ হাজার ২শ টাকা নির্ধারণ করায় কয়লা বিক্রি বেড়ে গেছে।
এখন বড়পুকুরিয়া থেকে প্রতিদিন গড়ে ৪ থেকে ৫ হাজার মেট্রিক টন কয়লা বিক্রি হচ্ছে। তবে ভারত থেকে অবাঁধে কম দামে (প্রতি টন ৭ হাজার ৫০০ টাকা) নিম্নমানের কয়লা আমদানি অব্যাহত থাকায় বড়পুকুরিয়ার কয়লা বিক্রি কিছুটা কম হচ্ছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email