শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪ ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ

পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:  দিনাজপুরের পার্বতীপুর বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে এক লাখ মেট্রিকটন কয়লা ক্রয়কে কেন্দ্র করে শুরম্ন হয়েছে তেলেসমাতি কারবার। ইটভাটা-শিল্পপ্রতিষ্ঠান নয়, খনি এলাকার মুদি, নাপিতসহ পান-বিড়ি দোকানিদের কয়লা দেয়ার জন্য কয়লা বিক্রিতে জালিয়াতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। ব্যবসায়ী না হয়েও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের ট্রেড লাইসেন্সে ব্যবসায়ী হয়ে সিংহভাগ কয়লা বরাদ্দ পেয়েছেন ওই সব ব্যক্তি। পরিবেশ ছাড়পত্রের অজুহাতে আবেদন বাতিল করা হয়েছে ইটভাটা ও বয়লার ব্যবহারকারী শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে।

 

জানা যায়, গত ১৫ ডিসেম্বর কয়লা বিক্রির জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রচার করা হয়। বিজ্ঞপ্তিতে ক্রেতাদের ট্রেড লাইসেন্স, জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা পরিচয়পত্র প্রযোজ্য ক্ষেত্রে পরিবেশ ছাড়পত্র চাওয়া হলেও আয়কর সনদ ও ভ্যাট সনদের বিষয়টি রহস্যজনক কারণে এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে। এ কারণে খনি এলাকার আশপাশের ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহের হিড়িক পড়ে যায়। এতে ১৭ ডিসেম্বর থেকে ২১ ডিসেম্বর দুপুর পর্যমত্ম চার দিনে প্রায় ৩ হাজার ট্রেড লাইসেন্স বিক্রি হয়েছে। ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করেই রাতারাতি এলাকার কৃষক, শ্রমিক, পান-বিড়ি দোকানি, নাপিত, চা-বিস্কুট দোকানিসহ বিভিন্ন পেশা ও শ্রেণীর মানুষ ব্যবসায়ী হয়ে আবেদন করেন কয়লার জন্য। রাতারাতি ব্যবসায়ী হয়ে যাওয়া ব্যক্তিদের নেই কোনো আয়কর সনদ কিংবা ভ্যাট নিবন্ধন। শুধু ট্রেড লাইসেন্সধারী ওই ব্যক্তিরা কয়লা ক্রয়ের সুযোগ পেলেও বঞ্চিত রয়েছে ইটভাটা ও বয়লার চালিত শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে খনির কয়েকজন কর্মকর্তা বলেন, ইটভাটা কিংবা বয়লারচালিত শিল্পপ্রতিষ্ঠানের জন্য নয়, এবার কয়লা বিক্রি করা হচ্ছে খনি এলাকাসহ রংপুরের কিছু এলাকার পান-বিড়ি, মুদি, নাপিতসহ চা-বিস্কুট দোকানিদের কাছে। এর সবটাই করা হয়েছে রংপুরের বাসিন্দা ও খনির মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন, অর্থ ও হিসাব) মো. সিরাজুল ইসলামের নেতৃত্বেই। কারণ এবার কয়লা নিয়ে বাণিজ্যের জন্যই কয়লা ক্রয়ের পূবের্র সব শর্ত বাদ দিয়ে শুধু ট্রেড লাইসেন্স চাওয়া হলেও ইটভাটা ও বয়লারচালিত শিল্পপ্রতিষ্ঠানের কাছে চাওয়া হয়েছিল পরিবেশ ছাড়পত্র। কয়লা ক্রয়ের জন্য প্রায় ৫ হাজার আবেদন পড়লেও কর্তৃপক্ষ ৬০০টি আবেদন বিবেচনায় নিয়ে কয়লা ক্রয়ের বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের জানিয়ে দিয়েছে। এদের মধ্যে মাত্র কয়েকজন স্থানীয় ইটভাটা মালিক থাকলেও বাকিরা খনি এলাকার শুধু ট্রেড লাইসেন্সধারী পান-বিড়ি, মুদি, নাপিত ও চা-বিস্কুট দোকানি এবং রংপুরের লোকজন। এসব ট্রেড লাইসেন্সধারীর ১০ টন কয়লা ক্রয়ের আর্থিক সঙ্গতি না থাকলেও তাদের বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ১০০ টন করে। তাদের একজনেরও কয়লা পোড়ানোর মতো কোনো প্রতিষ্ঠান নেই। কিন্তু তারা মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন, অর্থ ও হিসাব) মো. সিরাজুল ইসলামের বদৌলতে পেয়ে গেছেন ১০০ টন করে কয়লার বরাদ্দ। বুধবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরের আশা ব্রিকসের মালিক জাকির হোসেন, শ্যামপুর চান্দুরা বিজয়নগরের জালাল ব্রিকসের মালিক জালাল উদ্দিন, একই এলাকার আকাশ ব্রিকসের মালিক জহুরা বেগম ও নওগাঁর কোচগাড়ি এলাকার বিবিসি ব্রিকসের মালিক মাজেদুর রহমান জানান, সরকারকে উপযুক্ত আয়কর ও ভ্যাট দেয়ার পরও খনি কর্তৃপক্ষ পরিবেশ ছাড়পত্রের অজুহাতে ইটভাটার আবেদন বাতিল করে শুধু ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে রাতারাতি ব্যবসায়ী বনে যাওয়া ব্যক্তিদের ১০০ টন করে কয়লা বরাদ্দ দিয়েছে। এখানে কয়লা বাণিজ্য ছাড়া অন্য কিছুই হচ্ছে না। কয়লা বিক্রয় বিজ্ঞপ্তি আহবানকারী উপমহাব্যবস্থাপক (অর্থ ও হিসাব) মো. শরিফুল আলম জানান, বিজ্ঞপ্তিতে শুধু ট্রেড লাইসেন্স চাওয়া হয়েছে। ইটভাটার ছাড়পত্র না থাকায় তাদের আবেদন বাতিল করে ট্রেড লাইসেন্সধারীদের ১০০ টন করে কয়লা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

খনি মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘদিন পর কয়লা বিক্রি শুরম্ন হওয়ায় ক্রেতার চাপ বেড়েছে। বিষয়টি নিয়ে ব্যবস্থাপনা পরিচালকই ভালো বলতে পারবেন। খনি ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আমিনুজ্জামানের মুঠোফোনে (০১৭১১৫২৫৪৩৩) একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

Spread the love