মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি শ্রমিকদের দু’গ্রম্নপের মধ্যে টানটান উত্তেজনা। ঘটতে পারে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ

দিনাজপুর প্রতিনিধি : বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি শ্রমিক ইউনিয়নের দু’গ্রম্নপের মধ্যে দ্বন্দ্ব-বিবাদের করনে খনি এলাকায় শ্রমিকদের মধ্যে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ অবস্থায় খনি এলাকায় যে কোন সময় সহিংস ঘটনার আশংকা করছেন সাধারন শ্রমিকরা। শ্রমিক ইউনিয়ন সভাপতি ওয়াজেদ আলীসহ ৪ শ্রমিক নেতাকে মারধরের ঘটনায় থানায় ১৫ জনের বিরম্নদ্ধে বর্তমান কমিটির মামলা দায়ের ও অপর পক্ষের শ্রমিকরা বর্তমান কমিটির প্রতি অনাস্থা এনে কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে ৭ সদস্যের আহবায়ক কমিটি গঠন করার ঘোষনায় এ অবস্থার সৃষ্ট হয়েছে। এ অবস্থা নিরসন না হলে কয়লা উৎপাদনের উপর প্রভাব পড়তে পারে। জানা যায়, খনিতে ১ হাজার ৪১জন শ্রমিক কর্মরত।

গত ৫ জুলাই শনিবার সকালে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির সাবেক সভাপতি রবিউল ইসলাম রবির নেতৃত্বে খনি শ্রমিক রাহেনুল ইসলাম বর্তমান কার্যকারী কমিটির অনুমতি ছাড়াই খনি গেটের সামনে এক শ্রমিক সমাবেশ ডাকে। এতে বর্তমান কমিটির বিরুদ্ধে পেট্রবাংলার অধিন শূন্য পদে শ্রমিকদের স্থায়ী চাকুরী না হওয়ায় কমিটির সভাপতি ওয়াজেদ আলীকে দায়ী করে তার বিরুদ্ধে উষ্কানী মূলক বক্তব্য দিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াতে থাকেন। এছাড়াও শ্রমিকদের মাঝ আয়-ব্যায়ের হিসেব না দেওয়ায় কথা বলে কমিটির প্রতি অনাস্থা আনতে শ্রমিকদের কাছ থেকে স্বাক্ষর গ্রহন শুরম্ন করেন। সেখানে বর্তমান কমিটির সদস্যরা প্রতিবাদ করতে গেলে দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ ঘটে। এতে সভাপতি ওয়াজেদ আলীসহ ৪ শ্রমিক নেতা আহত হয়।

এ ঘটনায় গত ৭ জুলাই সোমবার রাতে পার্বতীপুর মডেল থানায় মামলা করেছেন ওয়াজেদ আলী। এদিকে সাবেক সভাপতি রবিউল ইসলামের নেতৃত্বে অপর অংশটি গত শনিবারেই বর্ধিত সভা ডেকে বর্তমান কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে রাহেনুল ইসলামকে আহবায়ক করে ৭ সদস্যের একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করে। সেই সাথে পূর্বের কমিটির ১৮সদস্যকে বহিস্কার করে তারা।

এব্যাপারে ওয়াজেদ আলী বলেন, বর্তমান কমিটি গঠনতন্ত্র অনুযায়ী এখনও বহাল আছে। কতিপয় সদস্যর মতামতের ভিত্তিতে নির্বাচিত কমিটি ভাঙ্গা যায় না। তাছাড়া দুপুরের শীফটের ৩০ জনের মত শ্রমিক নিয়ে কমিটি ভাঙ্গার ধুয়া তুলে শ্রমিকদে বিভ্রাসত্ম করছে। তারা অফিসে ঢুকতে না পারায় এখন তাকে প্রান নাশের হুমকী দেওয়া হচেছ।

অপর দিকে সাবেক সভাপতি রবিউল ইসলাম দাবি করেন, সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এব্যাপারে পার্বতীপুর মডেল থানার ওসি নাসির উদ্দিন মন্ডল বলেন, খনি এলাকায় যাতে কোন সহিংস ঘটনা না ঘটে সে ব্যাপারে শ্রমিকদের সার্বক্ষনিক পুলিশি নজরদারীর মধ্যে রাখা হয়েছে।