রবিবার ২ অক্টোবর ২০২২ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

”ভিশন ২০২১’ বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখবে বিমসটেক’-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

pm‘ভিশন ২০২১’ বাস্তবায়নে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এই আঞ্চলিক জোট বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করার জন্য  ভূমিকা রাখতে পারে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার মিয়ানমারের রাজধানী নেপিতাওর আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় আঞ্চলিক জোট বিমসটেকের তৃতীয় শীর্ষ সম্মেলনে তিনি বলেন, “আঞ্চলিক যোগাযোগ ও সহযোগিতার মাধ্যমে বিমসটেকভুক্ত দেশগুলোর অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির সাথে সাথে বাংলাদেশও ‘সোনার বাংলা’ গড়ে তোলার স্বপ্ন পূরণের পথে এগিয়ে যাবে।”

ঢাকায় বিমসটেক দারিদ্র নিরসন সেন্টার স্থাপনের প্রস্তাব দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “গত ৫ বছরে বাংলাদেশের দারিদ্রের মাত্রা ৪০ শতাংশ থেকে ২৬ শতাংশে নামিয়ে এনেছে। আগামী ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে দারিদ্রমুক্ত দেশে পরিণত করা হবে।”

তিনি আরো বলেন, “সকল উন্নয়নের জন্যই সম্মিলিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন। আমরা এখন বিশ্বায়নের যুগে বাস করছি। উন্নয়ন ও সম্মৃদ্ধির জন্য আমাদের একযোগে কাজ করতে হবে। বিমসটেকের লক্ষ্য পূরণে বাংলাদেশের অঙ্গীকারের কথা আমি পুনর্ব্যক্ত করছি। আমাদের সবাইকে সাধারণ লক্ষ্যে পৌঁছে দেয়ার সম্ভাবনা এই জোটের আছে। বিমসটেকের স্থায়ী সচিবালয় প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে আমাদের সব যৌথ সিদ্ধান্ত ও লক্ষ্য বাস্তবায়নে কার্যকর গতি আসবে বলে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।”

এ সময় তিনি জ্বালানি উন্নয়ন কর্মসূচি, বিদ্যুৎ উৎপাদন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, জলবায়ু পরিবর্তন ও বাংলাদেশের ৩ কোটি মানুষের সম্ভাব্য অভিবাসনের কথা তুলে ধরেন।

আর এই সচিবালয় স্থাপনের জন্য বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকাকে বেছে নেয়ায় জোটভুক্ত দেশগুলোকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

এছাড়া পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ, মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ উন্নয়ন, বিশ্বাস নিয়ে সম্পদ ও সম্মৃদ্ধির সমবণ্টনের মাধ্যমে বিমসটেককে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানের স্বাগত বক্তব্যে মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট থেইন সেইন ‘সমতা ও অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে’ জোটভুক্ত দেশগুলোর অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রা তরান্বিত করার জন্য যৌথ প্রচেষ্টা সংহত করার ওপর জোর দেন।

এর আগে স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৮টায় আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ সম্মেলন শুরু হয়। এ অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী সেরিং টোবগে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, নেপালের প্রধানমন্ত্রী সুশীল কৈরালা, শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মহিন্দা রাজাপাকসে, থাইল্যান্ডের বিশেষ দূত ও বিমসটেকের মহাসচিব সিহাসাক ফুয়াংকেটকো এবং মিয়ানমারে এডিবির মিশন প্রধান পুটু কামায়ানা।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই বঙ্গোপসাগরের তীরবর্তী ৭ দেশের শীর্ষ নেতাদের স্বাগত জানান মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট থেইন সেইন। পরে প্রত্যেক দেশের শীর্ষ নেতারা সাতটি ‘ক্রিস্টাল বলে’ স্পর্শ করলে তাতে ভেসে ওঠে সাত দেশের পতাকা। এ সময় জোটভুক্ত দেশগুলোর পরিচিতি এবং জোটের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে একটি ভিডিও প্রদর্শণ হয়। পরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও ফটোসেশনের শেষে শুরু হয় মূল সম্মেলন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর ঢাকায় বিমসটেকের স্থায়ী সচিবালয় প্রতিষ্ঠা এবং ভারতে আবহাওয়া ও জলবায়ু বিষয়ক বিমসটেক সেন্টার প্রতিষ্ঠার বিষয়ে দুটি মেমোরেণ্ডাম অব অ্যাসোসিয়েশন এবং ভুটানে বিমসটেক কালচারাল ইন্ডাস্ট্রিজ কমিশন ও বিমসটেক কালচারাল ইন্ডাস্ট্রিজ অবজারভেটরি প্রতিষ্ঠায় একটি সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন জোটের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email