সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘মধ্যপ্রাচ্য শান্তির চূড়ান্ত সময় অতিক্রান্ত’

ইসরায়েল-ফিলিস্তিন শান্তি আলোচনার জন্য যুক্তরাষ্ট্র নির্ধারিত সময়সীমা কোনো সমঝোতা ছাড়াই পার হয়ে গেল। তিন বছর বিরতির পর ২০১৩ সালের জুলাইয়ে মধ্যপ্রাচ্যের ওই দুপক্ষের মধ্যে আলোচনা শুরু হলেও তেমন কোনো অগ্রগতি হয়নি। চলতি এপ্রিলের মধ্যেই বৈরি দেশদুটির মধ্যে একটি শান্তি চুক্তি সইয়ের সময়সীমা বেঁধে দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু গত সপ্তাহে ফিলিস্তিনের বিবদমান দুই রাজনৈতিক পক্ষ ফাতাহ ও হামাসের মধ্যে রাজনৈতিক সমঝোতা হলে শেষ পবের্র শান্তি আলোচনা স্থগিত করে ইসরায়েল। আলোচনা বন্ধ করে দেয়ায় ইসরায়েলের ওপর নাখোশ হন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি। তিনি এই শান্তি আলোচনায় মধ্যস্থতা করছিলেন। সোমবার এক রুদ্ধদ্বার বৈঠকের ধারণকৃত অংশে কেরিকে বলতে শোনা যায়, দুই রাষ্ট্র সমাধানে শিগগিরই পৌঁছানো না গেলে ইসরায়েল ক্রমেই ‘‘বর্ণবাদী রাষ্ট্রে’’ পরিণত হওয়ার ঝুঁকিতে পড়বে বলে সতর্ক করছেন তিনি।

এক বিবৃতিতে কেরি ইসরায়েল ‘‘বর্ণবাদী রাষ্ট্রে’’ পরিণত হচ্ছে বলে তিনি বিশ্বাস করেন, এমন কথা অস্বীকার করেছেন। কেরি ধারণকৃত মন্তব্য প্রকাশের পর সমালোচনার মুখে আত্মপক্ষ সমর্থন করে কেরি ওই বিবৃতি প্রকাশ করেন। দৈনিক বিস্টে প্রকাশিত উদ্ধৃতি অনুযায়ী কেরি বলেন, ‘‘দুই রাষ্ট্র সমাধানই একমাত্র বাস্তবসম্মত বিকল্প। একটি একক রাষ্ট্র হলে দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক নিয়ে এটি একটি বর্ণবাদী রাষ্ট্রে পরিণত হবে- অথবা এটি এমন একটি রাষ্ট্র হবে যা ইসরায়েলের ইহুদি রাষ্ট্রের সম্ভাবনাকে ধ্বংস করে দেবে।’’

 

তবে মঙ্গলবার প্রকাশিত ওই বিবৃতিতে কেরি বলেছেন, ‘‘আমি বিশ্বাস করি না, আমি প্রকাশ্যে বা ব্যক্তিগতভাবে কখনো বলিনি, ইসরায়েল একটি বর্ণবাদী রাষ্ট্র বা এটি তা হতে যাচ্ছে।’’ফিলিস্তিনের দখলকৃত এলাকায় ইহুদি বসতি নির্মাণ ও ফিলিস্তিনি বন্দি মুক্তি নিয়ে দুপক্ষের মতবিরোধে আলোচনায় আগে থেকেই সমস্যা বিরাজ করছিল। কিন্তু বুধবার ফিলিস্তিনের ধর্মনিরপেক্ষ দল ফাতাহ ও ইসলামপন্থী দল হামাসের মধ্যে রাজনৈতিক সমঝোতা হয়। এই সমঝোতায় আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ফিলিস্তিনে দুপক্ষের একটি ঐক্য সরকার গঠন করার বিষয়ে চুক্তি হয়। এর পরপরই হামাস যুক্ত থাকবে এমন কোনো দলের সঙ্গে আলোচনা করবে না বলে শান্তি আলোচনা স্থগিত করে ইসরায়েল। ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, ‘‘আববাসকে (মাহমুদ আববাস) হয় ইসরায়েলের সঙ্গে শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে হবে অথবা হামাসের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ থাকতে হবে- এক সঙ্গে দুটি হবে না।’’