মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মহিলা পরিষদ এর গৌরবময় ৪৪ বছর

উপমহাদেশের নারী মুক্তি সমাচ প্রগতির ধারাবাহিক আন্দোলনকে ঐতিহ্যকে ধারণ করে অসম্প্রদায়িক,গণতান্ত্রিক,নারী-পুরুষের সমতাপূর্ণ সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য নিয়ে মহিলা পরিষদ লক্ষ্য নিয়ে ১৯৭০ সালের ৪ঠা এপ্রিল বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ এর জন্ম।

 

দেখতে দেখতে মহিলা পরিষদ ৪৪ বছর এ পদার্পন করেছে। সংগঠনের এই গৌরবময় ৪৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে আমি গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করছি,তাদেরকে যাদের জীবনের মূল্যে আমরা পেয়েছি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। আমি গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি আমাদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জননী সাহসিকা কবি সুফিয়া কামালসহ আরো অনেকে। যাদের অক্লান্ত পরিশ্রমে আমরা এই নারী আন্দোলনের পতাকা বহন করার শক্তি ও প্রেরণা পেয়েছি।

 

‘‘নারী মুক্তি,মানব মুক্তি,নারীর অধিকার-মানবাধিকার’’-এই শ্লোগান কণ্ঠে নিয়ে আমাদের ৪৪ বছরের পথ পরিক্রমন। স্বাভাবিকভাবে এই পথ চলা মসৃণ ছিল না। সামাজিক- রাজনৈতিক বিভিন্ন ঘাত-প্রতিঘাতের সোথে মোকাবেলা করেই এই সংগঠন। আজ শক্তিশালী প্রগতিশীল বৃহৎ সামাজিক সংগঠন হিসেবে নিজেদের অবস্থানকে সুদৃঢ় করেছে। গড়ে তুলেছে কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত একাধিক সংগঠক।

 

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ এই উপ-মহাদেশের নারী আন্দোলনের অগ্রণী সংগঠক,একটি জাতীয় ভিত্তিক অসম্প্রদায়িক স্বেচ্ছাসেবী অধিকার ভিত্তিক আন্দোলনমুখী গণনারী সংগঠন হিসেবে গত চার দশকের বেশী সময় ধরে অনন্য বৈশিষ্ট্য নিয়ে নারী মুক্তর লক্ষ্যে এগিয়ে চলছে। এই সংগঠন ধারণ করছে উপ-মহাদেশের সেই সকল প্রগতিশীল আন্দোলনের ধারাকে। যার মধ্যে আছে নারী মুক্তি, নারীর অধিকার ও মর্যাদা রক্ষার আন্দোলন। নারীর রাজনৈতিক,সামাজিক পারিবারিক অধিকারের আন্দোলন, শিক্ষার আন্দোলন বৈষম্যমূলক ও নিপীড়ন মূলক আইন সংস্কারের আন্দোলন। জাতীয় স্বাধীনতা ও মুক্তির আন্দোলন, গণতান্ত্রিক সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী আন্দোলন, মানবিকতা ও সমতা প্রতিষ্ঠার আন্দোলন, সকল অন্যায় অবিচারের বিরুদ্ধে আন্দোলন। এদেশের নারী সমাজকে তার অবস্থান ও অধিকার সম্পর্কে সচেতন করে নারী-পুরুষের বৈষম্যের সকল ক্ষেত্র এবং কারণ সমূহ চিহ্নিত করে তা নিরসনে বহুমুখী উদ্যোগ ও বহুমাত্রিক কর্মসূচী পালন করে চলছে সংগঠনটি। সংবিধানের সমতার নীতি ও আন্তর্জাতিক নারীর মানবাধিকার সনদ ও চুক্তি সমূহের আলোকে নারী মুক্তির লক্ষ্যে সমাজ মানস তৈরী। সমাজ ও রাষ্ট্রকে সম্পৃক্ত ও দায়বদ্ধ করার জন্য শক্তিশালী নারী আন্দোলন গড়ে তোলার নিরন্তর প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে।

 

মহিলা পরিষদ প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করে আসছে। শুধু মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা নয়, দীর্ঘ দিন ধরে নারীর প্রতি সকল প্রকার নির্যাতনের বিরুদ্ধে বহুমাত্রিকভাবে আন্দোলন চালিয়ে আসছে।

 

নারী নির্যাতন বিরোধী আন্দোলন সংগ্রামের পাশাপাশি ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে নারী-পুরুষের সমতাপূর্ণ সমাজ ও সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠার জন্য মহিলা পরিষদ কাজ করে যাচ্ছে। নারীর প্রতি বৈষম্যমূলক আইন সংস্কারের দাবী জানিয়ে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় হিন্দু বিবাহ রেজিষ্ট্রেশন আইন পাশ হয়েছে। পারিবারিক সুরক্ষা আইন, রাজনীতিতে নারী সমাজকে সম্পৃক্ত করার ক্ষেত্রে মহিলা পরিষদ এর রয়েছে অভূতপূর্ব সাফল্য। এরই ফলশ্রুতিতে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে জাতীয় সংসদ পর্যন্ত নারীরা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। যখন বাংলাদেশের ছেলে-মেয়েরা এভারেষ্ট বিজয় করে ফিরছে। বিজ্ঞানের নতুন নতুন গবেষনা ও আবিষ্কারের মধ্য দিয়ে বিশ্বের অঙ্গঁনে আলো ছড়াচ্ছে, তখন দেশের অভ্যন্তরে একটির পর একটি সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ঘটে চলেছে। অব্যাহতভাবে নারী নির্যাতন, শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে কাজ করা সত্ত্বেও নারী নির্যাতন বিরোধী সংস্কৃতি গড়ে তোলা সম্ভব হয়নি। পিতৃতান্ত্রিক মানসিকতা বিরাজ করছে। মৌলবাদী শক্তির অপত্যপরতা বেড়েই চলছে। সেই সাথে বাড়ছে রাজনৈতিক সহিংসতা ও রাজনৈতিক অস্থিরতা।

 

জেন্ডার বিষয়টিকে এখনও নারীর বিষয় বলে মনে করা হচ্ছে। যার ফলাফলে নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার এখনও পর্যন্ত অন্যতম চ্যালেঞ্জ হিসেবে বিরাহ করছে। একবিংশ শতাব্দীর স্বপ্ন পূরণে এখনো অনেক পরিবর্তন বাকী,এখনো অনেক দূর যেতে হবে। নারীর প্রতি প্রচলিত নেতিবাচক সংস্কৃতির শিকড় অনেক গভীরে এ শিকড় উপড়ে ফেলতে প্রয়োজন প্রচলিত আইনের সংস্কার। নতুন আইন, নতুন চিন্তা-ভাবনার অগ্রসর মানুষ।

আমরা আশা করি সরকার এ এব্যাপারে উদ্যোগী হবে। সেই সাথে নারীদের পেশাদারী দক্ষতা অর্জনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানানো হচ্ছে আজকের এই প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে।

 

রুবিনা আক্তার

সাংগঠনিক সম্পাদক

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ

দিনাজপুর জেলা শাখা

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email