বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মাঠে নেই বিএনপি জামায়াতসহ ২০ দল

ডিমলা(নীলফামারী)ঃ দেশের চলমান অনিদৃষ্টকালের হরতাল অবরোধে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলায় মাঠে নেই আন্দোলনের মূল ভহমিকায় থাকা বিএনপি জামায়াতসহ ২০ দলের নেতাকর্মীরা।

 

চলমান হরতাল অবোরেধ প্রায় ৩ মাস অতিবাহিত হতে চললেও রাজনৈতিক মাঠে দলীয় কর্মসূচি নিয়ে হরতাল অবরোধের পক্ষে কোন প্রকার মিছিল মিটিং বিক্ষোভসহ পিকিটিং করতে কাউকেই দেখা যায়নি।

 

দলীয় নেতাকর্মীরা হাত গুটিয়ে ব্যক্তিগত নীতি নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। ঝিঁমিয়ে পড়েছে তাদের সকল রাজনৈতিক কর্মকান্ড।

 

এ ব্যাপারে উপজেলা যুবদলের সভাপতি রববানী প্রধান বলেন,মূল দলের নেতারা দলীয় কার্যক্রমে নিস্ক্রিয় থাকার কারনেই দলীয় কোন কর্মসুচি পালন করা সম্ভব হচ্ছেনা। ইতিমধ্যে উপজেলা আওয়ামীলীগসহ ১৪ দলীয় জোটের নেতৃবৃন্দ ডিমলাকে অরতাল অবরোধ মুক্ত এলাকা হিসেবে ঘোষনা দিয়েছেন। প্রতিটি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে তারা গড়ে তুলেছেন হরতাল অবরোধ ও নাশকতা প্রতিরোধ কমিটি। দলীয় নেতাকর্মীরা এলাকার সাধারন মানুষকে সভা সমাবেশের মাধ্যমে হরতাল অবরোধ ও নাশকতার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহববান জানিয়ে নীজ নীজ এলাকায় নাশকতা কারীদের চিহ্নত করে প্রশাসনিক সহযোগিতায় নাশকতা কারীদের আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করছেন।

 

এ বিষয়ে নীলফামারী-১(ডোমার-ডিমলা) আসনের সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার বিরোধী দলের ডাকা অবৈধ হরতাল অবরোধসহ সকল প্রকার নাশকতা রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি আহববান জানান।

 

তিনি দলীয় নেতাকর্মী ও আইন শৃঙ্খলা প্রয়োগকারী সংস্থাকে বিনা কারনে কেউ যেন হয়রানীর স্বীকার না হয় সেদিকে নিবিরভাবে পর্যবেক্ষন করার বিষয়ে সকলকে অনুরোধ জানান। এ ছাড়া এলাকায় স্কুল কলেজ সরকারী বে-সরকারী প্রতিষ্ঠানসহ সকল প্রকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও যান চলাচল করছে স্বাভাবিক। শ্রমিকরা ব্যস্ত সময় পার করছেন তাদের প্রতিদিনের কর্মকান্ডে।

উপজেলা সদরের কুমিল্লা বেকারী সত্বাধিকারী সিরাজ উদ্দিন বলেন,আমার বেকারীতে ২০ জন শ্রমিক কাজ করেন। তারা নিয়মিতভাবে তাদের কাজ পরিচালনা করে আসছেন। হরতাল অবরোধের কোন প্রভাব আমার বেকারীতে পড়েনি।

উপজেলা নির্মান শ্রমিক নেতা আব্দুস সামাদ, ছ মিল শ্রমিক নেতা জমশের আলী,হোটেল রেস্তরা ও বেকারী নেতা মধাব কুমার রায় বলেন,আমরা অত্র উপজেলার শ্রমিকরা স্বাভাবিকভাবে আমাদের কার্য পরিচালনা করে আসছি। হরতাল অবরোধের কোন প্রভাব আমাদের মাঝে পড়েনি।

উপজেলা শ্রমিক নেতা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বিরোধী দলের ডাকা হরতাল অবরোধের কোন প্রভাব পড়েনি আমার উপজেলায়। অত্র উপজেলার প্রায় ২০ হাজার শ্রমিক তাদের নিত্যদিনের কার্যক্রম পরিচালনা করে পরিবার পরিজন নিয়ে স্বাভাবিক জীবন যাপন করছে। শুক্রবার এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এলাকার পরিবেশ ছিলো স্বাভাবিক।

Spread the love