শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মানব উন্নয়ন সূচকে একধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ

undpবার্ষিক মানব উন্নয়ন ও নারী-পুরুষ সমতা উন্নয়ন সূচকে এগিয়েছে বাংলাদেশ। জাতিসংঘের উন্নয়ন সংস্থা ইউএনডিপি প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার জাপানের রাজধানী টোকিওতে ইউএনডিপির প্রধান কার্যালয়ে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। ইউএনডিপির ওয়েবসাইট সূত্রে এ খবর পাওয়া গেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, বর্তমানে মানবসম্পদ উন্নয়নে বাংলাদেশের অবস্থান ১৪২তম। এর আগে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৪৩তম স্থানে। প্রত্যাশিত আয়ু, স্বাক্ষরতা, শিক্ষা এবং মাথাপিছু আয়ের ভিত্তিতে সারা বিশ্বে এ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ইউএনডিপি। আজ সকালে রাজধানীর একটি হোটেলে ইউএনডিপির পক্ষ থেকে এ প্রতিবেদনে বাংলাদেশ অংশটি তুলে ধরা হয়েছে। প্রসঙ্গত মানবসম্পদ উন্নয়ন সূচকে প্রথম স্থানে রয়েছে নরওয়ে, ২য় স্থানে অস্ট্রেলিয়া, ৩য় স্থানে সুইজারল্যান্ড, ৪র্থ স্থানে নেদারল্যান্ডস ও ৫ম স্থানে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।
জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) প্রতি বছরের মতো এবারও ২০১৪ সালের মানব উন্নয়ন সূচক প্রকাশ করেছে। আর এতে বলা হয়েছে, নারী-পুরুষের বৈষম্য কমিয়ে আনায় দারুণ অগ্রগতি দেখিয়ে মানব উন্নয়ন সূচকে আরো এক ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। গতবারের মতো এবারো দ্রুত এগিয়ে চলা ১৮ দেশের তালিকায় বাংলাদেশকে রেখেছে জাতিসংঘ। গত বছর এই সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৪৩ নম্বরে।
এদিকে ইউএনডিপির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, লিঙ্গ বৈষম্য কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে গত এক বছরে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে দারুণ উন্নতি দেখিয়েছে। এ সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১১৫ নম্বরে, যেখানে ভারত ও বাংলাদেশ উভয়ই রয়েছে ১২৭ নম্বরে। অন্যদিকে এবারই প্রথম জেন্ডার ডেভেলপমেন্ট ইনডেক্স নামে নতুন একটি সূচক চালু করেছে ইউএনডিপি, যাতে বাংলাদেশের অবস্থান ১০৭ নম্বরে। এতে দেখা যাচ্ছে, দক্ষিণ এশিযঅর অন্যান্য দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশ নারী-পুরুষ বৈষম্য কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে দ্রুত অগ্রসর হচ্ছে।
সার্বিক মানব উন্নয়ন সূচকে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলের মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে শ্রীলঙ্কা, ৭৩ নম্বরে। এ তালিকায় মালদ্বীপ ১০৩, ভঅরত ১৩৫, ভুটান ১৩৬, নেপাল ১৪৫, পাকিস্তান ১৪৬, আফগানিস্তান ১৬৯ এবং মিয়ানমার ১৫০ নম্বরে রয়েছে। তালিকার সবার শেষ, অর্থাৎ ১৮৭ নম্বর স্থানে রয়েছে নাইজার। আফ্রিকার এ দেশটির এক ধাপ অবনমন ঘটেছে।
দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শ্রীলঙ্কার অবস্থান রয়েছে সবচেয়ে ওপরে। শ্রীলঙ্কা বর্তমানে ৭৩তম স্থানে রয়েছে। এ ছাড়া ভারত ও পাকিস্তানের অবস্থান যথাক্রমে ১৩৫ ও ১৪৬তম স্থানে। অন্যদিকে নারী-পুরুষ সমতা উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১০৭তম স্থানে রয়েছে। এ সূচকের ভারতের অবস্থান ১৩২ ও পাকিস্তানের অবস্থান ১৪৫তম স্থানে।
প্রতিবেদনে বলা হয়, জন্মমুহূর্তে ৬৯ দশমিক ২ বছর প্রত্যাশিত আয়ু, জনপ্রতি গড়ে ৫ দশমিক ৮ বছর শিক্ষা গ্রহণ এবং ২ হাজার ৭১৩ ডলার মাথাপিছু জাতীয় আয় (জিএনআই) নিয়ে মানব উন্নয়ন সূচকে এবার বাংলাদেশের স্কোর ০.৫৫৪। আর এ সূচকে সবার ওপরে থাকা নরওয়ের স্কোর ০.৯৪৩। গত বছরের সূচকে ০.৫১৫ স্কোর নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৪৩ নম্বরে। গত বছরের হিসাবে জন্মমুহূর্তে বাংলাদেশের একটি শিশুর প্রত্যাশিত আয়ু ছিল ৬৯ দশমিক ২ বছর, জনপ্রতি শিক্ষাগ্রহণের সময় ছিল গড়ে ৪ দশমিক ৮ বছর এবং মাথাপিছু জাতীয় আয় (জিএনআই) ছিল এক হাজার ৭৮৫ ডলার।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email