শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মাসাধিককাল গুম রেখে জঙ্গীবাদের কাল্পনিক অভিযোগে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতারের বানোয়াট অভিযোগ

মো মিজানুর রহমান মিজান,স্টাফ রিপোর্টার : মাসাধিককাল গুম রেখে জঙ্গীবাদের সাথে সম্পৃক্ততার কাল্পনিক অভিযোগে দিনাজপুরের বিরল উপজেলার ধর্মজাইন গ্রাম নিবাসী মোঃ কুরবান আলী নামে এক নিরীহ ব্যক্তিকে গ্রেফতারের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন তার স্ত্রী মোছাঃ মুশফেকা বেগম৷

গত ৫ এপ্রিল দিনাজপুর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে ঐ ঘটনার আদ্যপান্ত তুলে ধরেন তিনি৷ মুশফেকা বেগম বলেন, গত ১০ ফেব্রুয়ারী ২০১৫ইং তারিখে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত হয়ে তার স্বামী রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন৷ যার রেজিষ্ট্রেশন নং- ৬৯৪/৪৷ গত ১৮ ফেব্রুয়ারী বিকালে ছাড়পত্র পাবার পর তিনি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে থেকে বাসে উঠে তার স্বামীকে নিয়ে দিনাজপুরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন৷ রংপুর সিও বাজারের কাছে পৌছালে কতিপয় ব্যক্তি বাসে উঠে প্রশাসনের লোক পরিচয় দিয়ে তার স্বামীকে বাস হতে নামিয়ে নিয়ে একটি সাদা মাইক্রোবাস যোগে চম্পট দেয়৷ তিনি রংপুর ও দিনাজপুরের কারাগার, ডিবি অফিস, এসপি অফিস সর্বত্র তার স্বামীর খোঁজ করেন৷ সব জায়গা হতে তাকে বলা হয়, তারা মোহাম্মদ কুরবান আলীর খোঁজ জানেননা এবং ঐ নামে কাউকে গ্রেফতার করেন নি৷ এই অবস্থায় জিডি করার জন্য তিনি ৭ মার্চ ২০১৫ইং তারিখে রংপুর কোতয়ালী থানায় যান৷ ঐ থানার মুন্সি জমশেদ আলী (মোবাঃ ০১৭১০০৫১৯৩৩) তাকে জানান, জিডি করে লাভ নাই৷ আপনাকে অভিযোগ দায়ের করতে হবে৷ ছবি নিয়ে আগামীকাল আসুন৷ ছবি নিয়ে তিনি পরদিন ৮ মার্চ রংপুর কোতয়ালী থানায় যান৷ কিন্তু থানা কর্তৃপক্ষ তার অভিযোগ বা জিডি কোন কিছু গ্রহণ না করে ফেরত্ পাঠিয়ে দেন৷

স্বামীকে হন্যে হয়ে খুঁজে ফেরার এক পর্যায়ে গত ২৮ মার্চ ২০১৫ইং তারিখে তিনি বিভিন্ন সংবাদপত্র মারফত জানতে পারেন যে, ২৬ মার্চ দিবাগত রাত দেড়টায় রাজধানীর দক্ষিণ খানের মোল­ারটেকের একটি বাসা থেকে তার স্বামীসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷ তার স্বামীকে জেএমবি’র এহসার সদস্য হিসা ে`েখানো হয়েছে৷ অথচ কোন জঙ্গী সংগঠনের সাথে তার স্বামীর যোগাযোগ থাকা তো দূরের কথা কোন রাজনৈতিক দলের সাথেও তার স্বামীর কোন সম্পৃক্ততা নেই বা ছিল না৷

তিনি বলেন দীর্ঘ ১ মাস ৬দিন আটকে রেখে তার স্বামী মোহাম্মদ কুরবান আলীকে নিজের ইচ্ছামাফিক শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন করে সরকারী লোকজন কাল্পনিক জঙ্গীবাদের সাথে সম্পৃক্ততার প্রমাণ করার চেষ্টা করেছে৷ যা সম্পূর্ণ কাল্পনিক, বানোয়াট ও অসত্ উদ্দেশ্য প্রণোদিত৷ তিনি সরকারের কাছে তার নিরীহ, নিের্দোষ স্বামীর নিঃশর্ত মুক্তি দাবী করেন৷ সেইসাথে যারা অহেতুক হয়রানীর চেষ্টা করছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন৷

Spread the love